Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / অধ্যক্ষ ছাড়াই কুতুবপুর স্কুল এন্ড কলেজে দায়সারা শোক দিবস পালন

অধ্যক্ষ ছাড়াই কুতুবপুর স্কুল এন্ড কলেজে দায়সারা শোক দিবস পালন

111মেহেরপুর নিউজ, ১৫ আগষ্ট:
মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার কুতুবপুর স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ সুন্নত আলীর অনুপস্থিতিতে দায়সারাভাবে ব্যানার ফেষ্টুন ছাড়াই জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন শ্রেণীতে ছয় শতাধিক শিক্ষার্থী লেখাপড়া করলেও গোটা পঞ্চাশেক শিক্ষার্থী নিয়ে শোক দিবস পালন করলো অন্য শিক্ষকরা। তবে অধ্যক্ষ সুন্নত আলী প্রতিষ্ঠানের পানির পাইপ চুরি হওয়ায় থানায় জিডি করতে গিয়েছেন দাবি করে অনুষ্ঠানে উপস্থিত হতে পারেননি এমন মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন।
অধ্যক্ষ সুন্নত আলীর বিরুদ্ধে এর আগে কলেজ শাখার শিক্ষকদের বেতনের টাকা আত্মসাৎ, তাদের নিয়োগের টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ রয়েছে। এমনকি এ অভিযোগে তাকে প্রায় দেড় বছর বহি:স্কার করে রাখা হয়েছিল। পরে ব্যবস্থাপনা কমিটি ও স্থানীয়দের কাছে পবিত্র কোরআন শরিফ ছুঁয়ে আর দূর্নীতি না করার অঙ্গিকার করে মাফ চেয়ে চাকরি ফেরত পান।
অধ্যক্ষ সুন্নত আলী একের পর এক সমালোচনামুখী কার্যক্রমে অতিষ্ঠ শিক্ষক ও এলাকার অভিভাবকরা। অচিরেই অধ্যক্ষ সুন্নত আলীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে ঐতিহ্যবাহী এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি ধ্বংস হয়ে যাবে। এলাকার শিক্ষা মান উন্নয়নে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে তাদের ধারণা।
স্থানীয়রা জানান, সোমবার সকালে কুতুবপুর কলেজ ও স্কুল শাখার শিক্ষকরা গুটিকতক শিক্ষার্থী নিয়ে কলেজ এলাকায় একটি র‌্যালী বের করে। পরে কলেজ চত্বরে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। তবে র‌্যালী বা আলোচনা সভায় কোনো ব্যানার বা ফেষ্টুন দেখা যায়নি। ফলে ঠিক বোঝা যায়নি এটি কিসের র‌্যালী।
একাদশ শ্রেণীর ছাত্র হুসাইন কবির জানায়, শোকদিবসের অনুষ্ঠানে কোনো ব্যানার ছিল না। তাই আমরা বুঝতে পারিনি আসলে কিসের অনুষ্ঠান ? সে আরো জানায়, মাত্র গোটা পঞ্চাশেক ছাত্রছাত্রী অনুষ্ঠানে এসেছিল।
কলেজ শাখার প্রভাষক রেজাউর রহমান জানান, সারাদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সকল প্রতিষ্ঠান বঙ্গবন্ধুর ৪১ তম শাহাদৎ বার্ষিকী পালন করছে ঠিক সেই দিন তিনি প্রতিষ্ঠানে না গিয়ে এমনকি অনুষ্ঠানের কোনো আয়োজন না করে নিজ ক্ষমতায় ছুটি কাটাচ্ছেন। ফলে সাধারণ শিক্ষক ও এলাকাবাসীর মধ্যে তার সম্পর্কে সরকার বিরোধী নেতিবাচক ধারণা তৈরি হয়েছে। তনি আরো জানান, গত ১লা আগষ্ট তিনি এক সপ্তাহের জন্য চিকিৎসা জনিত ছুটি নেন। এক সপ্তাহ পার হলেও আজ পর্যন্ত তিনি বিদ্যালয়ে হাজিরা দেননি।
অন্যদের মধ্যে প্রভাষক মাহফুজুল আলম জুহিন, রুবেল হোসেন, নাজমুল হোসেন, রাজন হোসেন জানান, অধ্যক্ষ সুন্নত আলীর খামখেয়ালীপনায় একটি ঐতিহাবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ধ্বংস হতে চলেছে। এর থেকে পরিত্রান দরকার।
গাংনীর ধলা ক্যাম্পের ইনচার্জ এস আই টিপু সুলতান অনুষ্ঠান স্থলে এসে অধ্যক্ষকে না পেয়ে তিনি গাংনী থানার ওসিকে জানিয়েছেন বলে প্রতিবেদককে জানান।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত অধ্যক্ষ সুন্নত আলী বলেন, শোক দিবস পালন উপলক্ষে কাথুলী ইউপি চেয়ারম্যানের স্কুল প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠান করবেন। সেখানে পানি সরবরাহ করার পাইপ রাতে চুরি হয়েছে এমন খবর নৌশপ্রহরী খাইরুল ইসলাম তাকে জানালে গাংনী থানায় জিডি করতে গিয়েছিলাম। যে কারণে অনুষ্ঠানে যেতে পারেনি। তবে অনুষ্ঠান করার জন্য সাইদুজ্জামানকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল। থানার জিডি ন¤^র কত এমন প্রশ্ন করলে উত্তরে তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন আপনাকে পরে জানাচ্ছি।
তবে সিনিয়র সহকারী শিক্ষক সাইদুজ্জামানের সাথে কথা বললে তিনি জানান, গত ১ তারিখ থেকে ৭দিন চিকিৎসা জনিত ছুটিতে থাকার কারণে ওই সাত দিনের দায়িত্ব নিয়েছিলাম। তার পর থেকে আর কোনো দায়িত্ব আমাকে দেয়া হয়নি। জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানের কোনো দায়িত্বও আমাকে দেয়া হয়নি। আমরা শিক্ষকরা নিজেদের উদ্যোগে করেছি।
গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন বলেন, ওই প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ একজন মিথ্যাবাদী। এ ধরণের কোনা জিডি তিনি করেননি বা থানায় আসেননি। তিনি আরো বলেন, যখন সারা দেশের সকল প্রতিষ্ঠানে শোক দিবস পালন নিয়ে ব্যাস্ত তখন প্রতিষ্ঠানে না গিয়ে নিজেকে অধ্যক্ষ দাবি করেন।এ ধরণের মানুষের বিচার হওয়া দরকার।
গাংনী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুজ্জামান বলেন, ঘটনাটি শুনেছি। এবিষয়ে অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
স্কুল এন্ড কলেজ ব্যবস্থপনা কমিটিই এ ব্যাপাওে সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতা রাখেন । সেই হিসেবে অধ্যক্ষ সুন্নত আলীর দায়ের করা একটি রিটের কারণে বর্তমান ব্যবস্থাপনি কমিটির কার্যক্রম স্থগিত থাকায় ওই কমিটির কেউ কথা বলতে রাজি হননি।
এমন অবস্থায় এলাকার শিক্ষানুরাগী সচেতন মহলের প্রশ্ন অধ্যক্ষ সুন্নত আলীর লাগাম টেনে ধরবে কে?

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.