Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ।। তিন দিন পর সন্ধান মিলল ইউপি সদস্য’র

অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ।। তিন দিন পর সন্ধান মিলল ইউপি সদস্য’র

মেহেরপুর নিউজ, ১৪ নভেম্বর:
মেহেপুরের গাংনী উপজেলার রাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৮ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য হাসানুজ্জামানকে তুলে নিয়ে যাওয়ার তিন দিন পর তার সন্ধান পাওয়া গেছে। তাকে চুয়াডাঙ্গার জীবনগর উপজেলার উথুলী বাজার থেকে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে পুলিশ দাবি করেছে।

মঙ্গলবার ভোরে চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার উথুলী বাজারে থেকে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পরে দুপুরে তার বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা দিয়ে চুয়াডাঙ্গা আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

রাইপুর ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম সাকলায়েন সেপু জানান, মঙ্গলবার সকালে খোঁজ পাওয়া যায় ইউপি সদস্য হাসানুজ্জামানকে জীবননগর থানা পুলিশ অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করেছে। এমন সংবাদ পাওয়ার পর তার পরিবারের লোকজনকে নিয়ে জীবননগর থানায় গিয়ে জানতে পারি তাকে মঙ্গলবার ভোররাতে উথুলী বাজার থেকে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করেছে। পরে তাকে অস্ত্র মামলায় চালান দিয়ে জেলে পাঠিয়েছে। তিনি জানান, আমরা দুই একদিনের মধ্যে তার জামিন চেয়ে আদালতে আবেদন করবো।

জীবননগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনামুল হক জানান, ইউপি সদস্য হাসানুজ্জামানকে কবে থেকে নিখোঁজ বা কারা তুলে নিয়েছিল তা জানা নেই। তবে মঙ্গলবার ভোরে স্থানীয় উথুলী বাজারে তাকে ঘোরাফেরা করতে দেখে টহলরত পুলিশের সন্দেহ হলে তার দেহ তল্লাশি করে একটি শার্টারগানসহ গ্রেপ্তার করে। তিনি জানান, পরে তার বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে একটি মামলা দিয়ে চুয়াডাঙ্গা আদালতে পাঠানো হলে আদালত কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। ওসি বলেন, ইউপি সদস্য হাসানুজ্জামানের বিরুদ্ধে গাংনী থানাতেই ডাকাতি ও বিষ্ফোরক আইনে তিনটি মামলা রয়েছে।

ইউপি সদস্য হাসানুজ্জামানের চাচা মোখলেসুর রহমান  অভিযোগ করে বলেন, পুলিশ তাকে ধরে নিয়ে দুই দিন লুকিয়ে রাখার পর হাতে অস্ত্র দিয়ে গ্রেপ্তার দেখিয়েছে। গাংনী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন বলেন, হাসান মে¤^রকে সাদা পোশাকে তুলে নেয়ার কোথাও সন্ধান না পেয়ে তার চাচা মুনসুর আলী একটি জিডি করেন।

প্রসঙ্গত, গত শনিবার সন্ধ্যায় ইউপি সদস্য হাসানুজ্জামান গ্রামের একটি চায়ের দোকানে চা পান করছিলেন। এসময় ৮ থেকে ৯ জনের একদল লোক অস্ত্রের মুখে একটি সাদা মাইক্রোবাসে করে তুলে নিয়ে যায়। তার পরপরই ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম সাকলায়েন সেপু গাংনী থানা, মেহেরপুর ডিবি ও প্রতিবেশী জেলা চুয়াডাঙ্গার বিভিন্ন থানা ও ডিবিতে খোঁজ নিলেও হাসানুজ্জামানের গ্রেপ্তারের কথা কেউ স্বীকার করেনি।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.