Templates by BIGtheme NET
Home / নির্বাচন / আগামী সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ জয় ছাড়া অন্য কিছু ভাবছে না . . . . . . এম এ এস ইমন

আগামী সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ জয় ছাড়া অন্য কিছু ভাবছে না . . . . . . এম এ এস ইমন

মেহেরপুর নিউজ, ২২ আগষ্ট:
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের মাঝেও আলোচনা শুরু হয়েছে। সম্ভাব্য প্রার্থীরাও নির্বাচনী মাঠে গনসংযোগ শুরু করেছেন। কে পাচ্ছেন আওয়ামীলীগের মনোনয়ন, কে পাচ্ছেন বিএনপির, কে জাতীয় পার্টির এমনকি জামায়াত ইসলামি থেকে কেউ প্রার্থী হচ্ছেন কিনা এ ধরণের নানা প্রশ্ন এখন ঘুরপাক খাচ্ছে। যদিও নির্বাচনের এখনো দেড় বছর বাকি আছে।
এরই ধারাবাহিকতায় মেহেরপুর নিউজ তার পাঠকদের জন্য সকল দলের সম্ভাব্য প্রার্থী যারা মাঠ দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। দলের আস্থাভাজন হওয়ার চেষ্টায় গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন সে সকল প্রার্থীদের মুখোমুখি হচ্ছে মেহেরপুর নিউজ। আমাদের প্রতিবেদকরাও ছুটছেন সেকল প্রার্থীদের কাছে। তাঁদের নির্বাচনী পরিকল্পনা, এলাকার উন্নয়ন পরিকল্পনা, দলীয় পরিকল্পনা খুটি

নাটি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে থাকছে প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার।
এবারে থাকছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র নেতা ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় প্রচার ও প্রকাশনা উপকমিটির সদস্য মেহেরপুর স্থল বন্দর বাস্থবায়ন আন্দোলনের মুখপাত্র এম এ এস ইমনের সাক্ষাৎকার। সাক্ষাৎকারটি গ্রহণ করেছেন আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক সাইদ হোসেন।
সাক্ষাৎকারের এক পর্যায়ে এমএ এস বলেন, আওয়ামীলীগ গনমুখী দল। যে কারণে আগামী নির্বাচনে জয়লাভের জন্য অনেক আগে থেকেই নির্বাচনমুখী। এবারের নির্বাচনে আওয়ামীলীগ জয় ছাড়া অন্য কিছু ভাবছে না।

মেহেরপুর নিউজ: মেহেরপুর নিউজের পক্ষ থেকে আপনাকে শুভেচ্ছা।
এম এ এস ইমন: অাপনি সহ মেহেরপুর নিউজ পরিবারের সকল শুভেচ্ছা।

মেহেরপুর নিউজ: আগামী সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন নিয়ে আপনার প্রত্যাশা কি?
এম এ এস ইমন: আগামী সংসদ নির্বাচনে মেহেরপুর-১ আসনে প্রার্থী হিসেবে আওয়ামীলীগের দলীয় ভাবে মনোনয়ন প্রত্যাশা করি। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ও জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবারের মনোনয়নে তরুণ, ত্যাগী, ছাত্র নেতাদের ব্যপারে আগ্রহী সেই ক্ষেত্রে আমি মনোনয়নের ব্যাপারে আশাবাদী।
মেহেরপুর নিউজ : আপনি দির্ঘদিন মেহেরপুরের বাইরে ঢাকাতে পড়াশোনা ও পাশাপাশি রাজনীতি করেছেন, মেহেরপুরের রাজনীতিতে জড়ালেন কেন ?

এম এ এস ইমন: মেহেরপুরে আমার জন্মভূমি। আমি ঢাকাতে গেছি তো লেখাপড়া করতে । জীবন জীবিকার জন্য। আমি আমার পড়াশোনার পাশাপাশি ছাত্র রাজনীতি করেছি। আমি যদি মেহেরপুর কলেজে পড়াশোনা করতাম তাহলে আমি মেহেরপুরে রাজনীতি করতাম। আমি মেহেরপুর কলেজে ছাত্রলীগের রাজনীতি করেছি। আমি ১৯৯৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হই । তখন ৯০ দশকে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে সমস্ত আনন্দোলন করেছি। ঐ সময় ছাত্রলীগের যে সব ঐতিহ্যবাহী আনন্দোলন আমি ঐ সব আনন্দোলন করেছি। লেখাপড়া শেষ আমি ছোটখাটো ব্যবসা শুরু করি। তারপর আমি ছাত্র রাজনীতি শেষে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়ি। ২০১৩ সালে আমি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সহ-সম্পাদক নির্বাচিত হই। এই কমিটিতে প্রচার কমিটিতে আছি। মূলত আমি কখনও মেহেরপুর থেকে বিছিন্ন হয়নি। আমার মন সব সময় মেহেরপুরে পরে থেকেছে। কারণ এটা মা মাটির টান। পাশাপাশি মাতৃভূমি হিসাবে মেহেরপুরের জন্য আমার দায়বদ্ধতা থেকেই যায়। আর মেহেরপুরে আমার জন্মভূমি তাই এখানে আমাকে ফিরে আসতেই হবে। সেকারণেই মেহেরপুরের রাজনীতিতে নিজেকে সপে দিয়েছি।

মেহেরপুর নিউজ:  আলোচনা হয় আপনার পরিবার জামাত-বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত এবং আপনার পরিবারে রাজকারও আছে।

এম এ এস ইমন: এসব কথা আমার কানেও আসে। মেহেরপুর রাজনীতিতে যারা আছে, যারা আমাকে প্রতিদ্বন্দী মনে করে তারা আমাকে নিচু দেখাতে যা যা করার তা করার চেষ্টা করে। আমার বিরুদ্ধে কোন কিছু না পেয়ে শেষে আমার পরিবারকে টার্গেট করেছে। তবে আমি চ্যালেঞ্জ করে বলতে পারি আমার বাবা, আমার চাচা, আমার দাদা পুরো পরিবারটায় অরাজনৈতিক পরিবার। আমিই প্রথম রাজনীতিতে এসেছি। আমার পরিবারে আমিই ফাষ্ট জেনারেশন রাজনীতিতে। কেউ প্রমান দেখাতে পারবে না আমার বাবা, আমার চাচা, আমার দাদা কোন রাজনৈতিক দলের কোন ওয়ার্ড বা কোন জায়গার কোন সদস্য ছিল। এটা পুর নিছক একটা মিথ্যা ও হিন প্রচারণা ছাড়া আর কিছু না। আর একটা বিষয়ে বলি আমার দাদা কিন্তু আমদাহ ইউনিয়নের দুবার চেয়ারম্যান ছিল অরাজনৈতিক ব্যক্তি হিসাবে। আমি আবারও চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলতে পারি কেউ যদি আমার বাবা, চাচা, দাদার কোন রাজনৈতিক দলের সদস্য পদ দেখাতে পারে তাহলে আমি রাজনীতি ছেড়ে দেব।

মেহেরপুর নিউজ : আপনি যদি নৌকার মনোনয়ন পান এবং সংসদ নির্বাচিত হন তাহলে মেহেরপুরের উন্নয়ন নিয়ে আপনার পরিকল্পনা কি ?

এম এ এস ইমন: মেহেরপুরের উন্নয়ন নিয়ে আমার অনেক গুলো পরিকল্পনা আছে। তার মধ্যে আগে নির্ধারন করতে হবে সমস্যা গুলো কি কি ? তারপর সমাধান। মেহেরপুর বাংলাদেশের একটা ছোট জেলা। তারপরও ভাল খবর হচ্ছে মেহেরপুর চার ফসলি জমি যেটা বছরে চার বার ফসল হয়। এটা বিশ্বের আর কোথাও পাবেন না। সেক্ষেত্রে আমরা ভাগ্যবান । আল্লাহর কাছে শুকরিয়া। চার ফসলি জমি হওয়াতে মেহেরপুরের মানুষের ভাত কাপড়ের অভাব আছে বলে আমার মনে হয় না। এখানে কোন শিল্প কল কারখানা ও অর্থনৈতিক জোন না থাকায় বেকারত্বও হারটা বেশী এটাই মেহেরপুর জেলার প্রথম এবং প্রধান সমস্যা বলে মনে করি। আমি যদি মেহেরপুরে বেকারত্ব দূর করতে চাই তাহলে মেহেরপুরে শিল্প বিল্পব ঘটাতে হবে। শিল্প বিল্পব ঘটাতে গেলে যে সব অবকাঠানো দরকার বা সুযোগ সুবিধা দরকার মেহেরপুরে সেটা নাই বা পড়ে না। এটা রাজধানী থেকে অনেক দূরবর্তি এলাকা, সিমান্ত এলাকা, এখানে শিল্প কল কারখানার করার আগ্রহ নেই শিল্প উদ্যক্তাদের । আমি অনেক ভেবে চিন্তে দেখেছি একটা কাজ করতে পারলে এখানে বেকারত্ব দূর হবে, শিল্প উদ্যেক্তাদের আগ্রহ বাড়ানো সবই সম্ভব সেটা হলো স্থল বন্দর। দেখেন যশোরে স্থল বন্দর ছাড়া আর কিছু নাই যা হয়েছে সব স্থল বন্দর কেন্দ্রিক হয়েছে। স্থল বন্দর হলে যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো হবে এবং তাহলে মেহেরপুরে রেল লাইনের কাজটি হবে। আর যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো হলে মেহেরপুরে শিল্প উদ্যেক্তাদের শিল্প কল কারখানা করতে আগ্রহ প্রকাশ করবে। আমাদের মেহেরপুরে প্রচুর কাঁচা সবজি উৎপন্ন হয় সে গুলো ভারতে রপ্তানি করা যাবে। সেখান থেকে আমদানি রপ্তানির মাধ্যমে এটা অর্থনৈতিক দ্বার উন্মুক্ত হবে। আমি একটা ডাটা সংগ্রহ করে দেখেছি যে স্থল বন্দর হলে ৫ হাজার লোকের কর্ম সংস্থান হবে। মেহেরপুরে ৫ হাজার বেকার নাই। আর আমার প্রানপ্রিয় নেত্রী মাননীয় প্রধান মন্ত্রী বাংলাদেশে যেভাবে উন্নয়ন করছেন তাতে আমার বিশ্বাস আগামী কয়েক বছেরের মধ্যে বাংলাদেশ একটি সত্যিকারের সোনার বাংলায় পরিনত হবে।
আমার মেহেরপুরে তিনটি কৃষি ভিত্তিক বীজ উৎপাদন খামার আছে। আমার নেত্রী মাননীয় শেখ হাসিনা শিক্ষাকে সব সময় অগ্রাধাকার দেন। আমরা যদি একটু চেষ্টা করি তা হলে মেহেরপুরে একটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় করা সম্ভব।
মেহেরপুরে আর একটা বড় সমস্যা আছে সেটা হলো জমি জায়গা নিয়ে পারিবারিক সমস্যা। ভাই ভাই, আতীয়, স্বজনের মধ্যে জমি জায়গা নিয়ে বিরোধ হয়। আমরা যদি এটাকে ডিজিটাল পধতিতে জমির মাপ আনতে পারি তা হলে এ সমস্যা সমাধান করা সম্ভাব। আর একটা বিষয় আদম ব্যপারীর খপ্পরে পরে অনেক পরিবার নি:স্ব হয়েছে। আমরা যদি সঠিক প্রক্রিয়ায় ম্যান পাওয়ার রপ্তানি করতে পারি তাহলে আমরা অনেক পরিবারকে নি:স্ব হওয়ার হাত থেকে বাঁচাতে পারবো। আর আমি যখন স্বপ্ন দেখি তখন বড় স্বপ্নই দেখি। আমি চাই মেহেরপুর বাংলাদেশের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ জেলা হবে।

মেহেরপুর নিউজ: স্বাধীনতার সূতিকাগার মেহেরপুরের কোন নেতা বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে বড় কোন পদে যেতে পারেননি ? এটাকে কিভাবে দেখছেন।

এম এ এস ইমন: দেখেন আমি আবারো বলি আমি যখন স্বপ্ন দেখি তখন বড় স্বপ্নই দেখি ছোট কোন স্বপ্ন দেখিনা। আমি চাই মেহেরপুরের কেউ মন্ত্রী বা আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, যেটাকে বলে আওয়ামীলীগের থিংক ট্যাংকার সেই পর্যায়ে যাক। কিন্তু দুখঃ জনক হলেও সত্য সেইা ভাবে মেহেরপুরে কোন লিডারশিপ গড়ে উঠেনি। যেভাবে হওয়ার কথা ছিল । এটা আওয়ামীলীগেও নাই বিএনপিরও নাই। এর কারন মেহেরপুরে সেই ভাবে রাজনৈতিক চর্চাটা হয়নি। কেন্দ্র থেকে বড় কোন নেতার স্নেহ ভাজন কোন পাত্র এখানে ছিল না বা পাইনি । তবে এখন অনেক ভালো ভালো ছেলেরা রাজনীতিতে আসছে। আমি আশাবাদী এখান থেকে অনেক ভালো নেতৃত্ব গড়ে উঠবে। এরাই একদিন বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দেব।
মেহেরপুর নিউজ:  মনোনয়ন না পেলে সতন্ত্র নির্বাচন বা অন্য দলের হয়ে নির্বাচন করার কোন পরিকল্পনা আছে কি?

এম এ এস ইমন: আমার আদর্শ, আমার শিরাই শিরাই, রক্ত কণিকায় ছোটবেলা থেকে আমার লালিত স্বপ্ন বঙ্গবন্ধু। বঙ্গবন্ধুর যে আওয়ামীলীগ সেই আওয়ামীলীগের বিকল্প কোন দল হয়েছে বলে আমার মনে হয় না। অন্য দলে যাওয়ার কোন প্রশ্নই আসেনা। মৃতুর আগ পর্যন্ত আল্লাহ আমাকে যেন তৌফিক দেয় যেন আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে নিয়ে মরতে পারি। আর সতন্ত্র আমি ব্যাক্তি ইমনের কোন মূল্য নেই। আমি কি যে, আমি সতন্ত্র ভোট করতে যাব। সতন্ত্র বা অন্য কোন দল এ চিন্তা আমার মাথায় আসতেই পারে না।

মেহেরপুর নিউজ : দলীয় মনোনয়ন অন্য কেউ পেলে আপনি তার হয়ে কাজ করবেন কি না ?

এম এ এস ইমন: অবশ্যই আমার কাছে ব্যাক্তির চেয়ে দল বড়। আমার সর্বচ্চো চেষ্টা থাকবে আমার দলকে জিতিয়ে আনার। আমি এখনো জনসংযোগে নৌকার পক্ষে প্রচারণা করি। ব্যক্তি ইমনের পক্ষে নয়। মনোনয়ন আমি সহ অনেকেই চাইবো। তবে দল যার হাতে নৌকা তুলে দিবেন আমরা একত্রে তার হয়েই কাজ করে বিজয় ছিনিয়ে আনবো।

মেহেরপুর নিউজ : বর্তমানে মেহেরপুর আওয়ামীলীগের মধ্যে যে বিভক্তি রয়েছে এটাকে কিভাবে দেখেন?

এম এ এস ইমন: এটা একটা অপরাজনীতি। এখানে বিভেদ কিছুটা রয়েছে। তবে সেটা নেতৃত্বের প্রশ্নে দলের প্রশ্নে নয়। তবে মেহেরপুরে হানা হানির রাজনীতিটা নাই এটা ভাল দিক । এটা অনেক পজেটিভ দিক শুধু নিতিবাচক দিক দেখলে হবে না । ইতি বাচক দিকে আসতে হবে। এখানে অনেকে মনোনয়ন পেতে চাই। মনোনয়নের জন্য সবাই ছুটাছুটি করছে কিন্তু এটা নিয়ে মারামারি হানাহানি নেই। এটা কিন্তু খুব ইতিবাচক দিক। মনোনয়ন নিয়ে মারামারি হানাহানি মেহেরপুর জেলার ইতিহাসে হয়নি। প্রতিযোগীতা থাকতে পারে। তবে মনোনয়ন পেলে সবাই নৌকার পক্ষে নামবো।

মেহেরপুর নিউজ : ব্যক্তি ইমন জয়ের ব্যাপারে কতটুকু আশাবাদি ?
এম এ এস ইমন: আমার দল বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ, আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসার পর জননেত্রী শেখ হাসিনা যে উন্নয়ন করেছে তা মানুষ ভুলে যায়নি। এটার মূল্যায়ন মানুষ করবে। আমি যদি সেটার প্রতিনিধিত্ব করি । আমাকে যদি মনোনয়ন দেওয়া হয়। অবশ্যই আমি আমার দলীয় ইমেজকে কাজে লাগাবো। মেহেরপুরের নেতা কর্মীদের একত্রীত করে এবং আমার ব্যাক্তি গত শুভাকাঙ্কীদের সমন্বয় করে আমি জয়ের ব্যপারে কাজ করবো এবং অবশ্যই আমি জয়ের ব্যপারে আশাবাদী।

মেহেরপুর নিউজ : এবারে সংসদ নির্বাচনের অনেক আগেই নির্বাচনী হওয়া শুরু হয়েছে এটাকে কিভাবে দেখছেন?
এম এ এস ইমন: আওয়ামীলীগ একটি গনমূখি দল। আওয়ামীলীগ এবারের নির্বাচনটাকে খুব সিরিয়াস ভাবে নিয়েছে। আমারদের কে নির্বাচনে জয়ী হতে হবে জয়ের জন্য যে যে প্রক্রিয়া করার দরকার তা আমরা করছি। কারণ আমাদের টার্গেট হচ্ছে জয়। জয় ছাড়া অন্য কিছু নয়।
মেহেরপুর নিউজ: ব্যস্ততার মাঝেও মেহেরপুর নিউজকে সময় দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ।
এম এ এস ইমন: মেহেরপুর নিউজ পরিবারকেও ধন্যবাদ।

ঘোষনা: পরবর্তী সাক্ষাৎকারে থাকছেন মেহেরপুর জেলা বিএনপির সহসভাপতি মো: আনছারুল হক। সাক্ষাৎকারটি পড়তে মেহেরপুর নিউজের সাথেই থাকুন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.