Templates by BIGtheme NET
Home / ফিচার / আজ এসএসসি পরীক্ষায় বসছে পাপিয়া :: পা দিয়ে লিখেই স্বপ্ন জয়ের আশা

আজ এসএসসি পরীক্ষায় বসছে পাপিয়া :: পা দিয়ে লিখেই স্বপ্ন জয়ের আশা

ইয়াদুল মোমিন,০২ ফেব্রুয়ারি:
দুই হাতে শক্তি না থাকায় পা দিয়ে লিখে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিবে পাপিয়া। তার পুরো নাম ববিতা আখতার পাপিয়া। গ্রাম ও স্কুলের সকলেই তাকে পাপিয়া বলেই ডাকে। জন্মের পর থেকে দুই হাতে কোন শক্তি পায়না সে। ফলে তার কাজ কর্ম সারতে হয় দুই পা দিয়ে। তার কাজ কর্মে সহযোগীতা করে তার বড় বোন পপি খাতুনসহ পরিবারের সদস্যরা। তার বোন পপি খাতুনও তার সাথে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিবে।
মেহেরপুর সদর উপজেলার ঝাউবাড়িয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় হতে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে পাপিয়া। আজ বৃহস্পতিবার মেহেরপুর সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে পরীক্ষার সিটে বসতে যাচ্ছে সে। এর আগে ২০১৪ সালে জেএসসি পরীক্ষাতেও সে পা দিয়ে লিখে ভাল ফল নিয়ে পাশ করেছিল।
মেহেরপুর সদর উপজেলার ঝাউবাড়িয়া নওদাপাড়ার পিয়ারুল ইসলাম দুই মেয়ে ও এক ছেলের মধ্যে ছোট মেয়ে পাপিয়া। পা দিয়ে লেখাসহ বইয়ের পাতা বের করা, খাতার পাতা বের করা, বই ঠিক মত গুছিয়ে রাখা সবই করে পা দিয়ে।
গত মঙ্গলবার সরেজমিনে তার বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, পা দিয়ে একটি বইয়ের পাতা উল্টিয়ে তার পড়ার পাতাটি খুজে বের করছে পাপিয়া। কিছুক্ষন পড়ার পর সেগুলো একটি খাতা বের করে শুরু করলো লেখা। পাদিয়ে কলমটি ঠিকমত ধরে লেখা শুরু করলো খাতায়। তার লেখা দেখে মনে হলোনা সে পা দিয়ে লিখেছি। অন্যরা হাতে যেমন করে লিখে পা দিয়েই একই রকম করে অনায়াসেই লিখে যাচ্ছে পাপিয়া।
কথা হলো তার মা আরিফা খাতুনের সাথে। তিনি বলেন, আমার পেটে থেকে সে প্রতিবন্ধী হয়ে জন্ম নিয়েছে। সে দুই হাতে কোনো শক্তি পায়না। জন্মের পর এলাকার বিভিন্ন ডাক্তারকে দেখিয়েছিলাম তারা বলেছেন চিকিৎসা করে কোন লাভ হবে না। আমরা গরিব মানুষ তাই মেয়েকে বাইরের কোন ডাক্তারকে দেখাতে পারি নি। জানিনা দেখালে ভাল হতো কিনা?
তিনি আরো বলেন, প্রতিবন্ধী হলেও আমার মেয়েকে মানুষের মত মানুষ করার চেষ্টা করছি। সে যেন কারও কাছ হাত না পাতে সেকারণে তাকে লেখাপড়া শিখাচ্ছি। লেখাপড়াতে তার খুব আগ্রহ আছে। সে যতদুর লেখাপড়া করতে চাই কষ্ট করে হলেও আমরা তাকে পড়াব।
পাপিয়া খাতুনের বড় বোন পপি খাতুনও এসএসসি পরীক্ষাই অংশ নিচ্ছে। সে বলে, আমি তার সমস্ত কাজ করে দিই। প্রথম প্রথম খুব কষ্ট হত। আল্লাহ কেন যে তার হাতে শক্তি দিলনা? তবে এখন আর কষ্ট হয় না। এখন গর্ব হয়, এই কারণে যে আমার বোন হাতে লিখতে না পারলেও পা দিয়ে লিখে সে মাধ্যমিক স্কুল শেষ করে এসএসসি পরীক্ষা দিবে।
পাপিয়া খাতুনের সহপাঠি নাজমুন্নাহার জানায়, তার বান্ধবি পাপিয়া হাত দিয়ে লিখতে না পারলেও সে দিয়ে পাদিয়ে লেখার কাজ চালিয়ে নিচ্ছে। সে জেএসসিতেও ভাল রেজাল্ট করেছে। আমার বিশ্বাস সে এসএসসিতে ভাল রেজাল্ট করবে।
পাপিয়ার প্রতিবেশী হোসনে আরা বলেন, পাপিয়ার দুই হাত অচল। কিছুর করতে পারে না। নিজের খাওয়া-দাওয়াটাও ঠিকমত করতে পারেনা। তার বোন ও মা তাকে খাওয়াই দেয়। কিন্তু লেখাপড়ার প্রতি তার খুব আগ্রহ। তার বাবা মাও গরিব। তারপরেও সে অনেক বাধা বিপত্তি অতিক্রম করে পাদিয়ে লিখে লেখা পড়া করে যাচ্ছে। এবছর সে এসএসসি পরীক্ষা দিবে। সে ভালভাবেই পাশ করুক এই দোওয়া করি।
পাপিয়া জানায়, প্রতিবন্ধী হলেও সে সমাজের বোঝা হতে চাই না। উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হতে চাই সে। তার ¯^প্ন সেও একজন শিক্ষিকা হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলবে। সমাজের অসহায় দুস্থদের ছেলেমেয়েদের সে লেখাপড়া শেখাবে।
পাপিয়া বলেন, আমি প্রতিবন্ধী হওয়াতে আমাকে এ পর্যন্ত নিয়ে আসাতেই অনেকের সহযোগীতা রয়েছে। তাদের মধ্যে তার বাবা, মা, ভাই, বোন,তার সহপাঠিরা এবং তার স্কুলের শিক্ষকরা তাকে সহযোগীতা করেছেন। তাদের সকলের কাছে পাপিয়া কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।
ঝাউবাড়িয়া স্কুলের সহকারী শিক্ষক কামরুল হাসান বলেন, পাপিয়া সমাজের একটি উদাহরণ। হাতে শক্তি না পেলেও পা দিয়ে লিখার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে সে। তার অদম্য আগ্রহই তাকে সমাজের একটি উচ্চ আসনে নিয়ে যাবে এ বিশ্বাস আমার রয়েছে।
পাপিয়া স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক আব্দুর রকিব কালের কন্ঠকে বলেন, সে প্রতিবন্ধী হিসেবে ক্লাস সিক্সে ভর্তি হয়েছিল। সে হাতে লিখতে পারেনা। কিন্তু লেখাপড়ার প্রতি তার অদম্য আগ্রহ রয়েছে। সে পাদিয়ে লিখেই জেএসসিতে ভাল রেজাল্ট করেছে। সে এবার এসএসসি পরক্ষাও দিবে পা দিয়ে লিখে। এবার সে ভালো রেজাল্ট করে স্কুলের সম্মান বয়ে আনবে সে প্রত্যাশা আমার রয়েছে। প্রতিবন্ধী হিসেবে তার জন্য অতিরিক্ত সময়ের আবেদন করা হয়েছে।
পাপিয়ার দুই হাতের সমস্যা নিয়ে কথা মেহেরপুরের সিভিল সার্জন ডা. রাশেদা সুলতানার সাথে। তিনি বলেন, এটা জেনেটিক ডিজঅর্ডারের কারণে হয়ে থাকে। এ ধরণের রোগের কোন চিকিৎসা নাই।
জেলা শিক্ষা অফিসার সুভাষ চন্দ্র গোলদার বলেন, পাপিয়ার জন্য প্রতিবন্ধী হিসেবে প্রতিটি পরীক্ষায় অতিরিক্ত ২০ মিনিট সময় দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে।
মেহেরপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) পরিমল সিংহ কালের কন্ঠকে বলেন, আমি পাপিয়ার বিষয় জেনেছি। তার লেখাপড়া চালিয়ে নেওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.