Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / অনাহারে অর্ধহারে চলছে গাংনীর দৃষ্টি প্রতিবন্ধী দম্পতি’র জীবন সংগ্রাম

অনাহারে অর্ধহারে চলছে গাংনীর দৃষ্টি প্রতিবন্ধী দম্পতি’র জীবন সংগ্রাম

মেহেরsumiya potobondiপুর নিউজ,০২ এপ্রিল:
মেহেরপুরের গাংনীর উপজেলা ধানখোলা গ্রামের দৃষ্টি প্রতিবন্ধী দম্পতি রাশিদুল ইসলাম ও সুমাইয়া খাতুন। নানা প্রতিশ্রতি দেয়া হলেও দীর্ঘ ৩৫ বছরেও তেমন কোন সরকারী সহায়তা তারা। স্বামী স্ত্রী দুজনেই দৃষ্টি প্রতিবন্ধী (অন্ধ)। দুটি শিশু সন্তান কে নিয়ে অভাব অনটনের মধ্যে দিয়ে কাটছে তাদের সংসার। কখনো অনাহারে কখনো অর্ধহারে এভাবে চলছে তাদের জীবন সংগ্রাম। নিজের জমিজমা নেই অন্য’র জমিতে কোন রকম চাটায়ের বেড়া দিয়ে বসবাস করছে। সুমাইয়া খাতুন ১ মাস পূর্বে রুবাবা নামের এক কন্যা শিশুর জন্ম দেয়। দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ও দরিদ্র হওয়ার কারনে হওয়ার কারনে কন্যা শিশু রুবাবা কে লালন পালন করতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। গত কয়েক দিন আগে শিশু রুবাবা নিউমনিয়া রোগে আক্রান্ত হয়ে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে। অর্থ অভাবে প্রয়োজনীয় ওষধ পত্রও নিতে পারেনী এই দৃষ্টি প্রতিবন্ধীরা।
দৃষ্টি প্রতিবন্ধী রাশিদুল ইসলাম জানান,১০ বছর আগে চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক তাকে শিক্ষকের চাকুরী দেওয়ার প্রতিশ্রতি দিয়েছিলেন কিন্ত আজও অবধি সে প্রতিশ্রতি বাস্তবায়ন হয়নী।
দৃষ্টি প্রতিবন্ধী রাশিদুল ইসলাম আরো জানান, তিনি বিএ ও তার স্ত্রী সুমাইয়া খাতুন এইচএসসি পাশ। সরকার যদি তাদের একটি চাকুরী ব্যবস্থা করে দিতেন তাহলে কিছুটা হলেও কষ্ট লঘব হতো। রাশিদুল ইসলামের স্ত্রী দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সুমাইয়া খাতুন জানান,তারা টাইফয়েড ও হাম বসন্ত রোগে আক্রান্ত হওয়ার কারনে ৩ বছর বয়সে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী হয়ে পড়েন। স্থানীয়রা জানায়,দৃষ্টি প্রতিবন্ধী রাশিদুল ইসলাম ও সুমাইয়ার বড় ছেলে তামিম মিফতা (০৮) সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২য় শ্রেণীর মেধাবী ছাত্র তার রোল নং ১। অর্থ অভাবে তামিম মিফতা ও ১ মাস বয়সী রুবাবা ভবিষ্যত নিয়ে শংকা প্রকাশ করেছেন তারা।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.