Templates by BIGtheme NET
Home / ইতিহাস ও ঐতিহ্য / আজ ‘মেহেরপুর মুক্ত’ দিবস

আজ ‘মেহেরপুর মুক্ত’ দিবস

1মেহেরপুর নিউজ,০৬ ডিসেম্বর:
আজ ৬ ডিসেম্বর। ‘মেহেরপুর মুক্ত’ দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে বাংলাদেশের প্রথম রাজধানী মুজিবনগর খ্যাত মেহেরপুর হানাদার মুক্ত হয়। মুক্তিযোদ্ধাদের গেরিলা হামলায় দিক-বিদিক হারিয়ে পাকিস্থানী হানাদার বাহিনীর শেষ দলটি ৫  ডিসেম্বর বিকেল থেকে গোপনে মেহেরপুর ছাড়তে থাকে। পরের দিন ৬ ডিসেম্বর রাজনৈতিক মর্যাদাপুর্ণ মেহেরপুর জেলা হানাদার মুক্ত হয়।
২ ডিসেম্বর গাংনী হানাদার মুক্ত হলে শিকারপুরে (ভারত) অবস্থিত মুক্তি বাহিনীর এ্যাকশন ক্যাম্পের ক্যাপ্টেন তৎকালীন মেহেরপুর মহকুমা প্রশাসক তৌফিক ইলাহী চৌধুরী হাটবোয়ালিয়ায় এসে মুক্তিবাহিনীর ঘাঁটি স্থাপন করেন। মিত্রবাহিনী ও মুক্তিবাহিনী সম্মিলিত ভাবে ৫  ডিসেম্বর মেহেরপুরে প্রবেশ করে। ১  ডিসেম্বর থেকে মেহেরপুর পাকবাহিনী থেকে মুক্ত হওয়া শুরু হলেও সীমান্তে পাকবাহিনীর পুঁতে রাখা অসংখ্য মাইন অপসারনের মধ্য দিয়ে মেহেরপুর পুরোপুরি ভাবে হানাদার মুক্ত হয় ৬  ডিসেম্বর।
সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সিরাজুল ইসলাম বলেন, আমরা ৫  ডিসেম্বর রাত আনুমানিক ১২/১টার দিকে সুবেদার সামসুল ইসলামের নেতৃত্বে সদর উপজেলার বারাদির পাটকেলপোতা গ্রামে শক্তি শালী অ্যামবুশ তৈরি করে ছিলাম। সেখানে মর্টার দিয়ে কয়েকটি আক্রমন চালিয়ে পাক বাহিনীর একটি গাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছিলাম। আর বাকি গাড়িগুলো পালিয়ে যায়। তারপর থেকে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে খবর আসতে থাকলো পাক বহিনীরা মেহেরপুর ছেড়ে পালিয়েছে।
জেলা সাংগঠনিক কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা আমিরুল ইসলাম বলেন, খলিসাকুন্ডি ব্রীজের কাছে আমরা এন্টি ট্যাংক মাইন পুতে একটি পাকিস্তানী গাড়ি উড়িয়ে দেয় এবং সেই গাড়িতে ৭/৮জন পাকিস্তানি সৈন্য ছিল, এতে তারা ছিন্ন বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। পলাশী পাড়া পাগলা সেতুর কাছে আমরা পাক বাহিনীর সাথে সম্মুখ যুদ্ধ করি। এখানে আমি সামান্য আহত হয় এবং অমার বুকে শেলের টুকরা লাগে। অতঃপর ৬ই ডিসেম্বর আমাদের মেহেরপুর জেলা দখল মুক্ত হয়। ঐদিন মেহেপুরের জনসাধারণ এবং আপামর মুক্তিযোদ্ধারা সর্বস্তরের লোক একযোগে রাস্তায় নেমে পড়ে আনন্দে উল্লাসিত হয় এবং মিষ্টি মুখ করে উল্লাসে মন প্রফুল্ল হয়।
জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বশির আহমেদ জানান, ৫ ডিসেম্বর আমরা মুজিবনগর থেকে গাংনী উপজেলার ভাটপাড়া পর্যন্ত কঠিন অ্যামবুশ তৈরি করে বেরিকেড সৃষ্টি করেছিলাম। আমাদের শক্ত অবস্থানের খবর জানতে পেরে পাকবাহিনীরা ৫  ডিসেম্বর থেকে মেহেরপুর ছাড়তে শুর করেছিল। ৬  ডিসেম্বর ভোরে আমরা জানতে পারলাম মেহেরপুর পুরোপুরি শত্রুমুক্ত হয়েছে। তখন সবাই জয় বাংলা শ্লোগান দিয়ে ‘মেহেরপুর মুক্ত’ ঘোষনা করি।
কমান্ডার বশির আহমেদ আক্ষেপ করে বলেন, বিভিন্ন সময় রাজনৈতিক দল ক্ষমতায় এসে অনেক অ-মুক্তিযোদ্ধাকে মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে চিহ্নিত হয়েছে। সব থেকে দুঃখ লাগে সরকার দেয়া ভাতা তুলতে গিয়ে দেখি, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন যে ব্যক্তি আমার ঘর পুড়িয়ে দিয়েছিল, আমার স্ত্রীর চুলের মুঠি চেপে ধরে আমাদের অবস্থান জানতে চেয়েছিল, সেইসব রাজাকার- আলবদররা আজ একই সাথে লাইনে দাড়িয়ে রেশন-ভাতা তুলে।
এদিকে মেহেরপুর মুক্ত দিবস উপলক্ষে জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের পক্ষ থেকে নানা কর্মসূচী গ্রহণ করা হয়েছে। এর মধ্যে সকাল সাড়ে ৯ টায় জাতীয় ও সংগঠনের পতাকা উত্তোলন, সকাল ১০ টায় শোভাযাত্রা, শোভাযাত্রা শেষেমেহেরপুর কলেজ মোড়ে বদ্যভ’মিতে নির্মিত স্মৃতি সৌধে পুষ্মাল্য অর্পন এবং এরপরই মেহেরপুর কমিউনিটি সেন্টার মিলনায়তনে দিবসটি উপলক্ষে আলোচনা সভা। আলোচনায় সভায় মেহেরপুর-১ আসনের (সদর ও মুজিবনগর) সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ফরহাদ হোসেন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গেছে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.