Templates by BIGtheme NET
Home / ইতিহাস ও ঐতিহ্য / আজ ৪৩ তম মেহেরপুর মুক্ত দিবস

আজ ৪৩ তম মেহেরপুর মুক্ত দিবস

pic-91মিজানুর রহমান/ইয়াদুল মোমিন:
আজ ৬ ডিসেম্বর ৪৩ তম মেহেরপুর মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের আজকের দিনে পাক হানাদার বাহিনীর কবল থেকে মেহেরপুর জেলাকে মুক্ত করা হয়। দীর্ঘ ৯ মাস মুক্তিযুদ্ধ চলার পর ৫ ডিসেম্বর দিবাগত রাত থেকে পাক বাহিনীর প্রায় দেড় হাজার সদস্য তল্পী -তল্পা  নিয়ে মেহেরপুর-চুয়াডাঙ্গা সড়ক বেয়ে ঢাকার দিকে রওনা দেয়। পাক হানাদার বাহিনী মেহেরপুর ত্যাগ করার পূর্বে ৬ ডিসেম্বর মধ্যরাতে মেহেরপুর আমঝুপি এবং রাজনগরের দিনদত্ত সেতু বোমা মেরে গুড়িয়ে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়। এর পরপরই দিনদত্ত ব্রিজের কাছে মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে তুমূল গুলি বিনিময়ের ঘটনায় কোন হতাহতের ঘটনা না ঘটলেও পাকবাহিনী বিপুল পরিমান অস্ত্র-গোলাবারুদ ফেলে রেখে যায়্ তবে ক্যাপ্টেন তালাত আহত হয়। এর পূর্বে আমঝুপিতে এক সড়ক দূর্ঘনায় এক মেজরের মৃত্যু হয়। ওই সময় পাক বাহিনীর ব্যবহারিক ২ টি জীপ অকোজো হয়ে আমঝুপিতে দীর্ঘ দিন পড়ে থাকতে দেখা যায়।
ফ্লাশ ব্যাক:

১৯৭১ সালের ১৭ নভেম্বর পবিত্র রমজান মাসের শেষ সপ্তাহে প্রচন্ড শীত। এরই মাঝে মেহেরপুরের একদল উদ্যোমি তরুন জাতীয় ও বিশ্ব কবির কবিতার ছন্দে পাক বাহিনীকে দেশ ছাড়ার কথা লিখে শহরময় পোস্টারিং করা হয়। এসময় পাক বাহিনীর সদস্যরা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে এবং শহরের কাঁশারিপাড়ার শাফায়েত হোসেন, আবু সুফিয়ান হাবু, সফিউদ্দিন, নতুনপাড়ার মোহর মুক্তারসহ প্রায় ১০/১২ জন যুবককে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে যায়। ওইসময় তাদের বর্তমান ভকেশনাল ইন্সটিটিউটে আটকে রাখে। এখানে অপরিচিত কয়েকজনকে আটক করে নির্যাতন করা হয়। ওই সময়ে আটক সাফায়েত হোসেন এবং আটক ব্যক্তিদের মধ্যে সর্ব কনিষ্ঠ আবু সুফিয়ান হাবুর কাছ থেকে জানা গেছে, ঈদের পূর্বে তাদের আটক করা হলেও পোস্টারিং করার ব্যাপরে স্বীকৃতি আদায়ে ব্যর্থ হয়ে তাদের সাময়িক মুক্তি দেয়া হয়। ঈদের পর পরই শহরে সেল নিক্ষেপের ঘটনায় তাদের আবারও আটক করে নিয়ে যায়। ওই সময় কাঁশারীপাড়ার হামিদ পাক বাহিনীর আমানবিক  নির্যাতনের ফলে মৃত্যু বরন করেন। নভেম্বরের শেষ সপ্তাহে সারা দেশে পাক বাহিনীর বেগতিক আবস্থা বুঝতে পেরে ৫ ডিসেম্বর সন্ধ্যা থেকে মেহেরপুরের পাকবাহিনী ওই রাতেই মেহেরপুর ত্যাগ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন এবং তাদের হাতে সাফায়েত, আবু সুফিয়ান হাবু, মোহর মোক্তার,সফি, ইমানুর, বজলুর রহমান, রমজানসহ বেশ কয়েক যুবককে তাদের মালামাল বহন করার কাজে ব্যবহার করে। রাতের আঁধারে চুয়াডাঙ্গার পথে মেহেরপুর ত্যাগ করে। মাঠ-ঘাট পার হয়ে পাক বাহিনীরা প্রথমে আমঝুপি এবং পরে রাজনগর দিনদত্ত ব্রীজজ গুড়িয়ে দেয়। এসময় সেখানে পূর্ব থেকে আবস্থানরত মুক্তি বাহিনীর বাধার মুখে পড়ে। শুরু হয় প্রচন্ড গোলাগুল্ এক পর্যায়ে পাক সেনারা চুয়াডাঙ্গার সেনাদের সাহায্য নিয়ে সূর্য ওঠার আগেই মেহেরপুরে সীমানা পেরিয়ে যায়। পাকবাহিনীর হাতে আটক যুবকরা ভোরের দিকে মেহেরপুর পৌছে পাক বাহিনীর কবলমুক্ত মেহেরপুরের কথা প্রচার করে। এঘটনার ২ দিন পর ভারতে অবস্থান গ্রহণকারী মুক্তি যোদ্ধারা মেহেরপুর শহরে প্রবেশ করে। পরে ১৬ ডিসেম্বর মুক্তি যুদ্ধের বিজয় ঘোষনা করা হয়।
কর্মসূচী:

আজ ৪৩ তম মেহেরপুর মুক্ত দিবস উপলক্ষে মেহেরপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের উদ্যোগে  র‌্যালির আয়োজন করা হয়েছে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful