Templates by BIGtheme NET
Home / অতিথী কলাম / আমার অবশ্যই স্বপ্ন আছে

আমার অবশ্যই স্বপ্ন আছে

Nishan 2নিশান সাবের:

১৯৬৩ সাল। আড়াই লাখেরও বেশি মানুষের সামনে দাঁড়িয়ে জোরালো গলায় যুক্তরাষ্ট্রের কিংবদন্তী নেতা মার্টির লুথার কিং বলেছিলেন ,আই হ্যাভ অ্যা ড্রিম। পরো বিশ্বকাপানো সেই বক্তৃতা নানা ক্ষেত্রে আজো সম্পূর্নভাবেই প্রাসঙ্গিক। স্বপ্ন  থাকা  এবং স্বপ্ন দেখা মানুষের সংখ্যা বাড়লেই পাল্টে যাবে জীবন, পরিবার, সমাজ, রাষ্ট্র কিংবা পৃথিবী। সেই অনুপ্রাণিত শব্দমালার একটু পরিবর্তিত শিরোনাম আমার অবশ্যই স্বপ্ন আছে।

প্রথমত স্বপ্ন নিশ্চয়ই নিজেকে ঘিরে। নিজের নিয়ে কল্যাণকর, নবসৃজন ভাবনা স্বপ্নে এলেই সমাজ আসবে, রাষ্ট্র আসবে। সহজ কথায় মানুষ আসবে। মানুষ না থাকলে কি কোনো কিছু থাকবে? আমার জন্ম মেহেরপুরে। তাই সার্বক্ষনিক সুস্বপ্ন ও সম্ভাবনার কল্যানমুখি অনুপ্রেরণা মেহেরপুর কে ঘিরে সর্বদা অনুরণিত হবে এটাই প্রকৃতিগতভাবে স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। আর এই স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় ভাল মন্দ, সফলতা-ব্যার্থতা, সৃষ্টি-ধ্বংস, উদ্যোগ ও উদ্যমহীনতা হাত ধরাধরি করে পাশাপাশি চলবে এইতো অভিজ্ঞতার শিক্ষা। সে কারণে বলতে পারি অভিজ্ঞতার সাঁকোতে পা রেখে পার হবে চলমান সময়কাল। এ তো মানুষের জন্যা তাহলে প্রতিষ্ঠান ? প্রশ্নটির উত্তর খুঁজতে হয়-কেননা আমাদের যেতে হয় প্রশ্নের পর প্রশ্নের উত্তর খুঁজে খুঁজে। মেহেরপুর নিউজ সে প্রশ্নের উত্তর খুঁজে সামনে এগুচ্ছে কি? আমার বিশ্বাস অবশ্যই উত্তর সে খোঁজে। কারণ মেহেরপুর নিউজের মানুষেরা খুজতে বাধ্য। তা না হলে সামনে এগুনোর প্রেরণা কোথায়? রসদ কোথায়? উদ্যোগ কোথায়? আমার ব্যাক্তিগত ধারণা সৃজনশীল প্রায় সৃষ্টি শুরুতে অগোছালো এবং ভবিষ্যতহীন থাকে। মেহেরপুর নিউজ সেরকম একটি সময় পার করছে । খন্দকার পলাশ শুধুমাত্র অর্থ প্রাপ্তির সূত্রে একটি অনলাইন পত্রিকার জনক হয়েছেন – আমি এমনটি ভাবতে পারিনা। বরং এভাবে আনন্দিত হতে পারিনা আমার একজন বন্ধু বর্তমান সময়কে বুঝতে পারে। নিজস্ব চিন্তার বহি:প্রকাশ ঘটাতে সক্ষম হয়েছেন। সফলতার সঠিকতা আসলে প্রতিমূহূর্তের বিশ্বেষন। তাই ও বিতর্ক নয়। আমি এভাবে চিন্তা বরি যে মেহেরপুরের ব্যাপক সংখ্যাক জনগোষ্ঠী প্রতিদিন কোন না কোনভাবে মেহেরপুর নিউজের সাথে সম্পৃক্ত হয়। খোজ নেয় এবং দেয়। ভালবাসার এবটি অবস্থান যদি মেহেরপুর নিউজ সৃষ্টি করে থাকে তবে এ কথা নিশ্চিত শত্রুরও খোজ পাওয়া কঠিন হবে না। ভালবাসা-শত্রুতা পরস্পর সম্পর্কযুক্ত। সুনির্দিষ্ট নৈতিক ভিত্তি ও সম্পাদনা নীতিমালা যদি বিশেষ উদ্দেশে প্রণীত না হয় হয়ে থাকে তবে শত্রুর সংখ্যাধিকতা স্বাভাবিক। মেহেরপুর নিউজ কতৃপক্ষ কি শত্রুর সংখ্যা নিরুপণ করতে চেণ্টা করেেছ? যদি না করে থাকে তাহলে প্রস্তাবনা হল সেটি করা যেতে পারে। নিজেদের সাংবাদিকতার আদর্শগত অবস্থানটি সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে। আচ্ছা এমনকী হতে পারে না যে মেহেরপুর নিউজ শত্ত্রু মনে করে ব্যাক্তি, প্রতিষ্ঠান কিংবা সম্প্রদায়কে? পেশাগত দায়িত্বপালনের দোহায়দিয়ে চোখের সামনে একজন চাপাতির আঘাতে ক্ষতবিক্ষত হয়ে মৃত্যুবরণ করবে আর আমি ছবি তুলতে থাকবো? একটি শিশু একফোটা পানির জন্য মৃত্যুর মুথে অদূরে শকুনের তীখ্ম দৃষ্টি আমি ছবি তুলছি এবং অপেক্ষা করছি শিশুটির মৃত্যুর জন্য- তাকি মানুষের জন্য সত্যিক্যারের আচরণ হবে? আচ্ছা মানলাম সাংবাদিকত হিসেবে আমি মানবিক হব না। আবেগ থাকতে পারবে না! তাহলে অবশ্যই লোভ থাকাটাও তো অনুচিত। মেহেরপুর নিউজকি নির্লোভ থাকতে পেরেছে? সুবিধা প্রাপ্তির প্রত্যাশামুক্ত থাকতে পেরেছে। যদি কতৃপক্স নিজেদের কাছে যথাযথ উত্তর খুজে পায় তবে আমার মত একচন নগন্য সমর্থক অহংকারী হবে বৈকি। এ প্রসঙ্গে ১৯৫৭ সালের ১৭ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের একটি ব্যাপটিষ্ট চার্চে অবিসংবাদিকত নেতা মার্টিন লুথার কিং শত্রুর জন্য ভালবাসা” এই বিষয়ে আজ আমি তোমাদের মনোযোগ আকর্ষন করতে চাই। প্রথমে খুবই বাস্তবিক একটা প্রশ্নের মুখোমুখি দাড়ানো যাক। কীভাবে তুমি তোমার শত্রুকে ভালবাসবে? আমি মনে করি শত্রুকে ভালবাসতে হলে আগে নিজেকে কাঠগড়ায় দাড়াতে হবে। … শত্রুকে ভালবাসার প্রক্রিয়ায় এটাই প্রথম এবং সর্বোত্তম উপায়। আমি জানি কিছু মানুষ তোমাকে পছন্দ করে না। ব্যাপারটা এমন নয় যে, তুমি তার কোনো ক্ষতি করেছ। তবুও তুমি তার কাছে স্রেফ অপছন্দের মানুষ। তোমার হাটা চলা, কথাবার্তা অনেকের কাছেই ভালো লাগবেনা। কেউ হয়ত তোমাকে অপছন্দ করে, কারন তুমি তাঁর চেয়ে ভাল কাজ জানো। তুমি জনপ্রিয় ,তোমাকে লোকে পছন্দ করে, সেটাও অপছন্দীয়  হওয়ার কারন হতে পারে। ….. কেবল কারও কোন ক্ষতি  করলেই তুমি তার অপছন্দের পাত্র  হবে তা নয়। অপছন্দ ব্যাপারটা  ঈষা কাতরতা থেকে। মানুষের সহজাত চরিত্রেই এই  অনুভূতির প্রভাব আছে। ”…. আমাদের সবার মধ্যেই এমন কিছু আছে, যার কারনে আমরা  লাতিন  কবি ওভেদের  সাথে কন্ঠ মিলিয়ে বলি,  “আমি দেখি এবং সমর্থন করি ভাল কজ, কিন্তু করি খারাপ কাজ।  আমাদের সবার মধ্যেই এমন কিছু আছে যার কারনে আমরা প্লেটোর সঙ্গে  কন্ঠ মিলিয়ে বলি,“ মানুষের চরিত্র হলো একটা রথের মতো। রথটা টেনে নেয় দুটো শক্তিশালী ঘোড়া। দুটোই  একে অপরের বিপরীত দিক যেতে চায়”। আমরা গেটের সঙ্গে কন্ঠ মিলিয়ে বলি আমার মধ্যে  ভদ্র এবং অভদ্র দুটো হওয়ার মতোই যথেষ্ট রসদ আছে”। ঠিক তেমনি ভাবে আমি মনে করি মেহেরপুর নিউজের সফল হওয়ার, দীর্ঘস্থায়ী হয় মানুষের কল্যণ ও অকল্যাণ করার সব রসদই আছে। পেছনের ছয়  বছরের অভিজ্ঞতাও আছে।  সামনে এগিয়ে যাওয়ার উদ্যোগী মনোভাব আছে, সত্য এবং অসত্য  দুটো পথ আছে।  কোন দিক যাওয়া যাবে বা উচিৎ, ভাববার গভীর সংকটাপন্ন  দায়ীত্ব মেহেরপুর নিউজ কর্তৃপক্ষের নিকট  অর্পন করলাম। আপেক্ষায় থাকলাম এই প্রত্যাশা নিয়ে অবশ্যই অহংকারী ও গর্বিত হতে পারবো।

মেহেরপুর নিউজের সপ্তম বছরে পদার্পনে বলতে চাই শিরোনামের  কথাটা  মেহেরপুরের জন্য আমি স্বপ্ন দেখিম আমার স্বপ্ন আছে।  সবার মঙ্গল হোক- কল্যাণ হোক।  সপ্তম    বছরে পদার্পন সফল হোক। মেহেরপুর নিউজের সাথে সংশ্লিষ্ট সবার সফলতা এবং মেহেরপুরের সার্বিক কল্যাণ কামনা করছি।

লেখক: সাংস্কৃতিক কর্মী, মেহেরপুর।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful