Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / আলোর মুখ দেখছেন নির্যাতিতা নারীরা

আলোর মুখ দেখছেন নির্যাতিতা নারীরা

মেহেরপুর নিউজ, ০৫ নভেম্বর:
ঘটনা-১: শিউলি খাতুন। মেহেরপুর শহরের গড়পাড়ার আবু বকরের ছেলে রবিউল হোসেনের স্ত্রী। বছর দুয়েক আগে তাদের বিয়ে হয়। পারিবারিক কলহের কারণে বাবার ভাড়া বাড়িতে থাকেন তারা। কোলে চার মাস বয়সের সন্তান। অভাবের সংসার পরিচালনা করতে গিয়ে ঋণগ্রস্থ হয়ে পড়েন স্বামী রবিউল। পাওনাদারদের চাপে তিন দিনের সন্তানসহ স্ত্রী শিউলি খাতুনকে ভাড়া বাড়িতে রেখে চলে যান অন্যত্র। তিন মাসের বাড়ি ভাড়া বাকি হয়ে গেলে বাড়ির মালিক তাঁকে বাড়ি ছেড়ে দেওয়ার চাপ দেন। অন্যদিকে শশুর বাড়িতেও স্থান হয় না শিউলি খাতুনের। পরবর্তিতে প্রতিবেশীদের মাধ্যমে মেহেপুর পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন হেল্প ডেস্কে অভিযোগ দায়ের করেন। বিষয়টি পুলিশ সুপারের নির্দেশে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তার শশুর বাড়ির লোকজনের সাথে কথা বলে ওই দিনই তাঁকে শ্বশুড় বাড়িতে ফিরিয়ে নেওয়ার ব্যবস্থা করেন। এখন সে স্বামী সন্তান ও শ্বশুর বাড়ির লোকজন নিয়ে সুখে শান্তিতে সংসার করছেন।

ঘটনা-২: শাহানাজ খাতুন। সদর উপজেলার সুবিধপুর গ্রামে তাঁর বাড়ি। ছোটকালেই বাবা-মা দুজনকেই হারিয়েছেন। এতিম খানায় বড় হয়েছেন। গ্রামের লোকজন চাঁদা তুলে বিয়ে দিয়েছিলেন। পরবর্তিতে দাম্পত্য কলহের কারণে ভুল বুঝিয়ে তাকে তালাক নামায় স্বাক্ষর করিয়ে নেন। পরে বিষয়টি মেহেরপুর পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর পলি খাতুনকে জানালে তাঁর পরামর্শে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে নারী ও শিশু হেল্প ডেস্কে একটি অভিযোগ করেন। পুলিশ তাঁর স্বামীর নিকট থেকে শাহানাজের জন্য ১লাখ টাকার ব্যবস্থা করে অভিযোগটি নিস্পত্তি করে দেয়। ওই টাকা ব্যাংকে রেখে শাহানাজ এখন নিজের মত বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখছে।

শিউলি বা শাহানাজ শুধু নয় মেহেরপুর জেলায় গত চার মাস ধরে এ ধরণের পারিবারিক নির্যাতন নিয়ে ১২৩ টি পরিবারের মুখে হাসি ফুটিয়েছে পুলিশের নারী ও শিশু হেল্প ডেস্ক। গত চার মাসে ১৫৩টি অভিযোগের মধ্যে ২৬টি অভিযোগ নিষ্পত্তি করতে না পেরে আদালতে মামলার পরামর্শ দেওয়া হয়। বাকি ৪টি অভিযোগ প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।

পুলিশ সুপার আনিছুর রহমানের নেতৃত্বে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ আল মাহমুদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্কেল) মোস্তাফিজুর রহমান সার্বক্ষনিক দায়িত্বপ্রাপ্ত কাজের পাশাপাশি ওই হেল্প ডেস্কের অভিযোগ গুলো নিয়ে করে যাচ্ছেন।

এর পাশাপাশি বিদেশে পাঠানোর নামে টাকা আত্মসাৎ ও আদম ব্যবসায়ীদের হয়রানি থেকে মুক্তি পেতে প্রবাসী কল্যান হেল্প ডেস্ক নামের আর একটি হেল্প ডেস্ক চালু করা হয়েছে। যার মাধ্যমে ২২টি অভিযোগ নিস্পত্তি করা হয়েছে।

এ উপলক্ষে মঙ্গলবার সকালে মেহেরপুর পুলিশ লাইন মিলনায়তনে নারী ও শিশু এবং প্রবাসী কল্যান হেল্প ডেক্স থেকে সুবিধাভোগীদের নিয়ে মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়। মতবিনিয়ম সভায় সুবিধাভোগীরা এসব কথা বলেন।

পুলিশ সুপার আনিছুর রহমানের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন অতিরিক্ত পুলিশ আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্কেল) মোস্তাফিজুর রহমান, মেহেরপুর প্রেসক্লাবের উপদেষ্টা তুহিন আরন্য, সভাপতি আলামিন হোসেন, সাবেক কাউন্সিলর পলি খাতুন প্রমুখ।

পুলিশ সুপার আনিছুর রহমান বলেন, মানুষকে যেন অল্প সময়ে সঠিক বিচার প্রদান করতে পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, নারী ও শিশু হেল্প ডেক্স ও প্রবাসী কল্যান হেল্প ডেক্স চালু করে খুব অল্প সময়ে অনেককেই সহযোগিতা করা হয়েছে। এই দুটি বিভাগ পরিচালনা করার জন্য দুই বিভাগে দুই অফিসার দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, সুন্দর আগামীর জন্য পুলিশ কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি ভালো কাজে সকলকে সহযোগিতা করার আহবান জানান।

মেহেরপুর প্রেসক্লাবের উপদেষ্টা তুহিন আরন্য বলেন, কোর্টে বর্তমানে যে মামলা হয় তার অধিকাংশই পারিবারিক মামলা। যার ফলে কোর্টে মামলা জট পড়ে যায়। যে কারণে অনেক সময় ভুক্তভোগীরা সঠিক বিচার পেতে অনেক সময় লাগে। তিনি বলেন, পুলিশ সুপার এ ধরণের ব্যবস্থা গ্রহণের ফলে পারিবারিক নির্যাতনের শিকার নারীরা অল্প সময়ের মধ্যে ভাল সমাধান পাবেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বলেন, মানুষের সেবার জন্যই পুলিশ কাজ করে। কোন মানুষ যেন প্রতারিত না হয় সেই লক্ষে পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে এ ধরণের বিশেষ উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে। তিনি মানব সেবাই পুলিশকে সহযোগিতা করার আহবান জানান।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.