Templates by BIGtheme NET
Home / ফিচার / আশার সবটুকুনই পূরণ হয়েছে :: বাসিরনের প্রতিক্রিয়া
meherpur-basiron-pic-02-29-12-16

আশার সবটুকুনই পূরণ হয়েছে :: বাসিরনের প্রতিক্রিয়া

meherpur-basiron-pic-01-29-12-16ইয়াদুল মোমিন,২৮ ডিসেম্বর:
আমার খুব ভালো লাগছে। আশা যা কইরুনু সবটুকুনই পূরণ হয়েছে। মনে খুব আরাম লাগছে। আমার সাথে যারা পরীক্ষা দিয়েছিল তারাও সবাই পাশ করেছে শুনে খুব শান্তি লাগছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াইটার দিকে নিজ স্কুল মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার হোগলবাড়িয়া পূর্বপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় চত্বরে পিইসি পরীক্ষার ফলাফল জানার পর কালের কণ্ঠের’র এ প্রতিবেদকের কাছে ৬৩ বছরের বাসিরন খাতুন এ প্রতিক্রিয়া জানান।
বাসিরন বলেন, গ্রামের গার্লস স্কুলে ক্লাস সিক্সে ভর্তি হবো। ওই স্কুলে যে পোশাক লাগে তাও তৈরি করে ফেলেছি। কতদিন চলবে লেখাপড়া? এ প্রশ্নের জবাবে বাসিরন বলেন, একটা স্কুলতো পাশ করে ফেললাম। যতদিন বেঁচি থাকবো ততদিনই লেখাপড়া করবু। আমার দেখাদেখি যাতে এলাকার ছেলিপিলিরা লেখাপড়াই মন দেয় সেজন্য হলেও লেখাপড়া করবু।

বাড়ি থেকে তো র্গালস স্কুল অনেকদিন দুরে সেখানে কিভাবে যাবেন? উত্তরে তিনি বলেন, এই স্কুলে যেভাবে এসেছি ওই স্কুলেই ওইভাবেই যাব। কিছুই তো করার নাই। আমাকে তো স্কুলে যেতেই হবে। বাড়ি থেকে যদি বৌমা তাড়িয়ে দেয় তাহলে কি করবেন? রশিকতার এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তাড়িয়ে দিলে দেবে তাও লেখাপড়া করবো। তারপর তিনি বলেন, বউ মা ভালো আমাকে কিছু বলেনা।
পরীক্ষার পর থেকে সময়গুলো কেমন করে কাটালেন উত্তরে বাসিরন বলেন, চেষ্টা করেছি কুরআন শরিফ পড়ার। কিন্তু খুব বেশী পারিনি। ছেলে পিঁযাজ তুলেছে তাই কাজ করা লেগেছে বলে তিনি জানান। বাসিরনের স্কুলের ফলাফল শিট থেকে জানা যায়, ৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে বাসিরন জিপিএ ৩.০০ পেয়ে ওই স্কুলে প্রথম হয়েছে।

meherpur-basiron-pic-3-29-12-16দুপুর ১টার দিকে হোগলবাড়িয়া পূর্বপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় স্কুলের শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা অপেক্ষা করছেন ফলাফলের জন্য। প্রধান শিক্ষক হেলাল উদ্দিন ফলাফল শিট নিয়ে কখন স্কুলে পৌছাবেন সে অপেক্ষায় সময় কাটকে থাকে সবার। প্রধান শিক্ষক ফলাফল হাতে পেয়ে মোবাইলের মাধ্যমে স্কুলে জানিয়ে দিলে শুরু হয় উল্লাস। বাসিরন বনে যান স্টারে। আগুন্তক সকলেই বাসিরনের সাথে সেলফি ও ছবি তুলতে ব্যাস্ত হয়ে পড়েন। বাসিরনও তাদের সাথে ছবিতে হাশিখুমি মুখে পোজ দিতে থাকেন।

এরপরই বাসিরনকে অভিনন্দন জানাতে স্কুলে ছুটি যান সংরক্ষিত নারী সংসদ সদস্য (মেহেরপুর ও চুয়াডাঙ্গা আসনের ) সেলিনা আখতার বানু, মেহেরপুর জেলা পরিষদের ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত সদস্য মোহাম্মদ আলী, স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আহসানুল্লাহ মোহনসহ গ্রামের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গরা।
সংসদ সদস্য সেলিনা আখতার বানু বাসিরনের মুখে মিষ্টি তুলে দিয়ে তাঁর প্রতিক্রিয়ায় বলেন, বাসিরন মেহেরপুরের গর্ব। তাকে দেখে বয়স্ক মানুষ লেখাপড়াই আগ্রহি হবে। বাসিরন ৬৩ বছরে পেরেছে। তাকে দেখে যাতে বয়স্করাও লেখাপড়া শিখে বলবে পারে আমরাও পারি। সংসদ সদস্য বলেন, তার ফলাফল হবে জানতে পেরে আমি তার কাছে ছুটে এসেছি। এর আগে পরীক্ষার সময় একদিন এসেছিলাম। তখন সে তার স্কুলের ভবনের জন্য আমাকে বলেছিল। আমি ইতিমধ্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীকে বিষয়টি জানিয়েছি। খুব শিঘ্রই স্কুলের ভবন তৈরি হবে।

স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আহসান উল্লাহ মোহন বলেন, বাসিরন পাশ করায় আমি খুবই আনন্দিত।
স্কুলের প্রধান শিক্ষক হেলাল উদ্দিন বলেন, আমার মত খুশি আর কে হবে। এত বয়স্ক একজনকে মানুষকে আমার স্কুলে ভর্তি করেছিলাম। পারে কি পারেনা। এ ভয়েই কেটেছে ৫টি বছর। তার একাগ্রতা আর নিষ্ঠাই আজ সে পিইসি পরীক্ষায় ভালো ফলাফল করেছে।
meherpur-basiron-pic-04-29-12-16স্কুলের সহকারী শিক্ষক আনারকলি বলেন, আজ সত্যিই আমাদের গর্বের দিন। তাকে শেখাতে পেরেছি। লেখাপড়ার কাছে বয়স কিছুই না সেটা আজ বাসিরনের মাধ্যমে আমরা সবার সামনে তুলে ধরতে পেরেছি।
বাসিরনের সাথে পাশ করা সিয়াম উদ্দিন জানায়, বাসিরন খুব মনোযোগী ছাত্রী ছিল। তাকে লেখাপড়া দেখে আমাদেরও লেখাপড়ার প্রতি মনোযোগ দিয়েছি।
বাসিরনের পাশের খবর শুনে তার ভাই, ছেলে মহির উদ্দিন, নাতিছেলে জাহিদ হোসেন, জসিম উদ্দিন মিষ্টি নিয়ে স্কুলে যান সকলকে মিষ্টি মুখ করাতে।
ছেলে মহির উদ্দিন বলেন, মা পাশ করেছে এতে আমর খুব আনন্দ লাগছে। সেই খুশিতে স্কুলের সবাইকে মিষ্টি খাওয়াতে এসেছি। মা যতদুর ইচ্ছা লেখাপড়া করবে । আমরা তার লেখাপড়ার জন্য সাহায্য করবো। কিভাবে তিনি লেখাপড়ায় আগ্রহী উঠলেন এ প্রশ্নের জবাবে মহির উদ্দিন বলেন, আমার ছোট ছেলেকে প্রতিদিন স্কুলে নিয়ে যেতেন মা। তার স্কুলের লেখাপড়া দেখে আরবি পড়ার অর্থ বুঝার জন্য লেখাপড়ায় আগ্রহী হয়ে ওঠে। প্রথমদিকে চেষ্টা করতো । কিন্তু লেখাপড়া না জাানাই সেটা পারতো না। স্কুলের আসার প্রথমদিকে কেমন কেমন লাগতো। এখন ভালোই লাগে।
নাতিছেলে জাহিদ হোসেন বলেন, দাদি আমাদের পরিবারের গর্ব। সে ৬৩ বছরে পিইসি পরীক্ষায় পাস করে দেশের মধ্যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। তার এ আগ্রহ দেখে আমাদের লেখাপড়ার প্রতি আগ্রহ বেড়েছে।
মেহেরপুর জেলা শহর থেকে ৩৫ কিলোমিটার পূর্বদিকে গাংনী উপজেলার হোগলবাড়িয়া গ্রামের মাঠপাড়ার রহিল উদ্দিনের ( মৃত) স্ত্রী বাসিরন খাতুন। একছেলে ও দুই মেয়ের মা এই বাসিরনের বয়স ৬৩ বছর। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের তথ্য মতে দেশের এবছরের সবচেয়ে বেশি বয়সের পিইসি পরীক্ষার্থী ছিল বাসিরন। গত ২০ নভেম্বর তার পরীক্ষা শুরু হয়েছিল।
বাসিরনকে নিয়ে এর আগে কালের মেহেরপুর নিউজ ও কালেরকণ্ঠ পত্রিকায় একাধিক সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। বিভিন্ন শিরোনামে ধারাবাহিক সংবাদ প্রকাশ হলে দেশ ও বিদেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে স্থান করে অদম্য এই বাসিরন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful