Templates by BIGtheme NET
Home / সম্পাদকীয় ও উপ সম্পাদকীয় / ইভটিজিং একটি অসুস্থ সমাজের চেহারা

ইভটিজিং একটি অসুস্থ সমাজের চেহারা

উপসম্পাদকীয়

মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,২৪

রফিক-উল -আলম

নানাবিধ সমস্যার দেশ আমাদের বিশাল জনসংখ্যায় সমৃদ্ধ ছোট্ট এই বাংলাদেশ। সম্প্রতিকালে আরেক সমস্যা মহামারি আকারে আক্রমণ করেছে তার নাম ’ইভটিজিং”। মহিলা আইনজীবি সমিতির এক পরিসংখ্যান বলে ২০০৮ সালে রেকর্ড হয় ১২টি ইভটিজিং ঘটনা।  এর মধ্যে আত্মহননের পথ বেছে নেয় ৯জন। ২০০৯ সালে ইভটিজিং ভয়াবহ আকার ধারণ করে এবং প্রায় ৫গুণ বৃদ্ধি পায়। চলতি বছর ১ জানুয়ারী থেকে ১৬ মে পর্যন্ত  সংবাদ পত্রের রিপোর্ট অনুযায়ী সারাদেশে কমপক্ষে ১৪কিশোরী  যারা অধিকাংশই স্কুলগামী ছাত্রী দিয়েছে আত্মাহুতি। আর স্কুল ছেড়েছে অনেক ছাত্রী এবং অনেককে বসতে হয়েছে বিয়ের পিড়িতে।

গত ৪ মে শিক্ষা মন্ত্রনালয় আয়োজিত ইভটিজিং বন্ধে মতবিনিময় সভায় শিক্ষামন্ত্রী তাঁর বক্তব্যে বলেন আমরা আমাদের মেয়েদের নিরাপত্তা দিতে পারছিনা। বখাটেদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনী পদক্ষেপের পাশাপাশি সর্বত্র প্রতিরোধ গড়ে তোলার ঘোষনা দিয়েছেন। গণজাগরণ সৃষ্টি করতে আহবান জানিয়েছেন গনমাধ্যম, সামাজিক সংগঠণ, মানবাধিকার ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের প্রতিনিধিদের।

সমাজ পরিচালনার নির্দেশনা না মানলে বা সমাজে তার বাস্তবায়ন না ঘটলে ঐ সমাজটা কতটুকু অসুস্থ হলে শিশু ধর্ষন হয়, মেয়েরা তথা নারীরা ইভটিজিং এর শিকার হয়, ধর্মীয় বিদ্যাপীঠে ঘটে বলৎকারের মত জঘন্যতম ঘটনা, প্রতারিত হয়ে একটি মেয়েকে বিষের বোতল হাতে করে প্রেমিকের বাড়ীতে যেতে হয়, অথবা প্রেমিক প্রেমিকার বাড়ী যেয়ে খুন করে তার পিতা মাতাকে, সেল ফোনে প্রেমের অভিনয় করে মেয়েদের পড়তে হয় মরন ফাঁদে, অশ্লীল ছবি তুলে ডিজিটাল যুগে  ওয়েব সাইটে দিয়ে কুরুচি পূর্ণ আনন্দ উপভোগ করে।

এখন আমরা ইভটিজিং কি তা নিয়ে আলোচনা করব। ইভটিজিং হলো ইংরাজী শব্দ। ইভ মানে বাইবেল অনুসারে প্রথম নারীর নাম অর্থাৎ ইভ নামে নারীকেই বোঝায়। আর টিজ এর আভিধানিক অর্থ হচ্ছে উত্যক্ত করা, খেপান ইত্যাদি। এখানে ইভটিজিং বোঝায় চলার পথে মেয়েদের প্রতি কটু কথা বলা, অশালীন অঙ্গভঙ্গী করা, শিশ দেয়া, সিটি বাজানো, নানা প্রশ্ন করে উত্যক্ত করা, পথ আগলিয়ে ধরা, ইশারা করা, জোর করে প্রেম নিবেদন করা, শাড়ী বা ওড়না ধরে টানাটানি করা, প্রেম পত্র গুজে দেয়া ইত্যাদি হলো ইভটিজিং’র সাধারণ রুপ। এসব ঘটনাকে নির্দোষ অপরাধ বা মজা কিংবা এ বয়সে এমন এক আধটু হয়ে থাকে বলে বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়ার কোনই অবকাশ নেই। কারণ এটি এখন সামাজিক ব্যাধি হয়ে দাঁড়িয়েছে।  মনে রাখা দরকার কিশোরীদের মধ্যে অপমান সহ্য করার ক্ষমতা কম থাকায় ইভটিজিং’র শিকার হয়ে সুস্থ মানসিক বিকাশ বিঘ্নিত হয়। তাদের মধ্যে নিরাপত্তাহীনতার জন্ম হয় এবং আস্তে আস্তে লজ্জিত ও দূর্বলচিত্ত হয়ে ওঠে। ইভটিজিং’র শিকার হয়ে তারা অনেক সময় পরিবারের কাছ থেকে সহযোগিতা পায়না উপরোন্ত কোন কোন ক্ষেত্রে তিরস্কৃত হয়ে থাকে। ফলে তারা হীনমন্যতায় ভুগতে শুরু করে এবং সামাজিকভাবে হেয় হওয়ার ভয়ে প্রতিবাদ করতে পারেনা। এক সময় তারা আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়।

ইভটিজিং’র কারণ কি হতে পারে এবং কারা কারা এহেন গর্হিত কাজ করে থাকে আমরা সে বিষয়ে একটু খতিয়ে দেখি। আসলে ইভটিজিং আমাদের সমাজে নতুন কোন ঘটনা নয়। আগেও এই ইভটিজিং’র শিকার হতো নারীরা। মেয়েরা স্কুলে বা কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কিংবা সংসারের কাজে বেশী বাইরে বের হওয়ায় এরকম নির্যাতন। ধর্মীয় মূল্যবোধ হারিয়ে ফেলা, ভিন দেশের সাংস্কৃতিকে আঁকড়িয়ে ধরা, নারীরা তাদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে দাবী আদায়ে বর্তমানে সোচ্চার হয়েও নিজেদের পণ্যে পরিণত করা, আত্মমর্যাদার অভাব, পারিবারিক অশান্তি, পরিবারের ভাঙন তথা বাবা মায়ের অসমপ্রীতি ও বিবাহ বিচ্ছেদ, মাদকাসক্তি, বেকারত্ব, নৈতিকতার অভাব ইত্যাদি। এত কিছুকে উস্কে দিচ্ছে আকাশ সাংস্কৃতি তথা ডিশ এন্টিনা  এবং তাদের পরিচালিত ভিডিও চ্যানেলে গভীর রাতে পর্ণো ছবি দেখানোর মাধ্যমে। তাছাড়া ফিল্টার বিহীন অনিয়ন্ত্রিত ভাবে যৌন ওয়েব সাইটগুলি ভিজিট করা এবং সেল ফোনের যথেচ্ছাচার ব্যবহার ইভটিজিং বৃদ্ধিতে সীমাহীন ভুমিকা রাখছে।

ইভটিজিং করার জন্য আরো অনেক কারণই আছে। আমার মনে হয় ইভটিজিং করার জন্য সবচেয়ে বেশী যে মাধ্যম কিশোর যুবদের মনে সুড়সুড়ি দেয় তাহলো আকাশ সাংস্কৃতি। যেমন আমরা দেখি কোন সিনেমায় একটি ছেলে ও মেয়ে প্রেম শুরু করে ইভটিজিং এর মাধ্যমে। যা কিশোর যুবদের মাঝে উৎসুক্য জন্ম দেয় এবং একসময় ইভটিজিং শুরু করে।

ইভটিজিং প্রতিরোধ  করার জন্য সভা সেমিনার র‌্যালি টকশো প্রভৃতি কর্মকান্ড বিভিন্ন পর্যায় থেকে আমাদের দেশে শুরু হয়েছে। আইনী ব্যবস্থা আছে তবে তা যথেষ্ঠ নয় । আর যা আছে তার প্রয়োগ খুব একটা দেখা যায়না। স্থানীয় একটি কাগজে গত ১৯ মে দেখলাম মেহেরপুর জেলা প্রশাসক ইভটিজিং রোধে এবং নিরাপদে স্কুলে যাতায়াত করতে পারে সে জন্য মেয়েদের হাতে বাঁশী তুলে দিয়েছেন। উদ্দেশ্য হলো স্কুলগামী মেয়েরা ইভটিজিং’র শিকার হলে বাঁশী বাজাবে এবং আশে পাশের সচেতন জনতা তাকে সাহায্যের জন্য এগিয়ে যাবে। অবশ্যই এটা ভাল উদ্যোগ এর জন্য জেলা প্রশাসককে সাধুবাদ জানায় । সাথে সাথে ভয়ও থাকছে কারণ বাঁশীও ইভটিজিং এর একটি নিয়ামক। আর যদি এর অপব্যাবহার হয় তাহলে পরিকল্পনাটি ব্যর্থ হয়ে যাবে। সমাজের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার সচেতন মানুষের সাথে আলাপ করে বুঝতে পেরেছি যে ইভটিজিং বন্ধে বা প্রতিরোধে নিম্নবর্ণিত ব্যবস্থাদি গ্রহণ করা যেতে পারে।

০১। মেয়েরা আমাদের মায়ের জাতি হিসাবে কিশোর যুবদের মনে ধর্মীয় মূল্যবোধ জাগ্রত করা;

০২। মেয়েদের কোথাও অমর্যাদাকর অবস্থায় উপস্থাপন বা পণ্য না করা;

০৩। আইন শৃঙ্খলা রক্ষা ও প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যদের পেশাগত দক্ষতা ও দায়িত্বের সাথে ভূমিকা রাখতে হবে;

০৪। কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির কর্মকান্ডকে আবার সক্রিয় করতে হবে;

০৫। রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ বা প্রভাবশালীদের রাঙা চোখকে প্রশমিত করতে হবে;

০৬। পারিবারিক ও সামাজিক ভাবে বখাটেদের প্রতিরোধ করতে হবে, প্রয়োজনে তাদের আইনের হাতে সোপর্দ করতে হবে;

০৭। আকাশ সাংস্কৃতি যা আমাদের সামাজিক অবক্ষয়ে সহায়ক ভূমিকা রাখছে তার উপর নিয়মের কাঁইচি ধরতে হবে;

০৮। বাবা মাকে দেখতে হবে তার সন্তান কেন গভীর রাতে টিভির সামনে অথবা ইন্টারনেটে কি কাজ করছে  কারন কেন আমাদের যুব/কিশোর সন্তানটি অপরাধ প্রবণতায় জড়িয়ে পড়ছে;

০৯। সমাজপতি ও কমিউনিটি প্রধানদের সততার সাথে দায়িত্ব নিয়ে কাজ করতে হবে যাতে সমাজ সুস্থ রাখা যায়;

১০। পুলিশের উপস্থিতি বিদ্যালয়ের আশে পাশে থাকতে হবে যাতে পুলিশি সহযোগিতা তাৎক্ষনিক ভাবে পাওয়া যায়;

১১। নৈতিক শিক্ষার প্রতি জোর দিতে হবে এবং সম্ভব হলে পাঠ্য পুস্তকেও বিষয় ভিত্তিক প্রবন্ধ অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে;

১২। ধর্মীয় নেতাদের এব্যাপারে সম্পৃক্ত করা যেতে পারে। ইমাম সাহেবারে হাদিস কোরানের আলোকে বিষয়টির উপর কথা বললে ভাল ফল পাওয়া যেতে পারে;

১৩। আমাদের মেয়েদেরও সচেতন হতে হবে এবং তাদের চলা ফেরা ও পোশাক পরিচ্ছদে যথেষ্ঠ মার্জিত হতে হবে;

১৪। ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠায় ইভটিজার সে যত বড় প্রভাবশালী ক্ষমতাসীন পরিবার থেকে আসুক না কেন তার অপকর্মের সাজা সামাজিক ভাবে প্রকাশ্যে দিতে হবে (যেমন প্রকাশ্যে কান ধরে উঠবস করা);

১৫। ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে অভিযোগ সেল গঠন  করতে হবে এবং

১৬। অনেকের সাথে সর্বজন শ্রদ্ধেয় কিছুর ব্যক্তিবর্গ সমন্বয়প্রতিরোধ কমিটি গঠন করতে হবে।

সব শেষে বলি আসলে মানুষ জানে কি করতে হবে। এখন প্রয়োজন কাজ শুরু করা। আমরা আর আত্মহত্যা দেখতে চাইনা। আমরা দেখতে চাই এক সুস্থ সমাজ।

লেখকঃ

সদস্য সচিব,

মেহেরপুর জেলা কমিউনিটি পুলিশিং সমন্বয় কমিটি।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful