Templates by BIGtheme NET
Home / ফিচার / ঈদকে সামনে রেখে ব্যাস্ত সময় কাটাচ্ছে মেহেরপুরের পাদুকা শিল্পিরা

ঈদকে সামনে রেখে ব্যাস্ত সময় কাটাচ্ছে মেহেরপুরের পাদুকা শিল্পিরা

22মুজাহিদ মুন্না, ০৩ জুলাই:
এখন চলছে শেষ সময়ের ঈদ কেনাকাটা। শেষ সময়ে মানুষ সেরে নিচ্ছে জুতা স্যান্ডেল কেনার কাজ। তাই ঈদকে রঙ্গিন করে তুলতে মানুষ এখন ভিড় করছে জুতা স্যান্ডেলের দোকানে। কিন্তু সেখানে জুতা স্যান্ডেলের দাম শুনে ঈদ উৎসব পালনের কথা ভুলে যাচ্ছে তারা।
এদিকে সু-হাউজের পাশাপাশি মেহেরপুর শহরের পাদুকা শিল্পের দোকানগুলোতে ভিড় করছে ক্রেতারা। পোষাকের সাথে মিল রেখে জুতা স্যান্ডেল কিনতে এক দোকান থেকে অন্য দোকানে ছুটছে ক্রেতারা।
কিন্তু শহরের বড় বড় সু প্যালেস গুলোতে জুতা স্যান্ডেলের দাম শুণে ঈদ উৎসব পালনের কথা ভুল হয়ে যাচ্ছে বলে ক্রেতাদের অভিযোগ। এই সুযোগে জেলায় পাদুকা শিল্পিদের সু-দিন আসতে শুরু করেছে। সকলের রুচি ও পোষাকের সাথে মিল রেখে সুন্দর জুতা স্যান্ডেল বানিয়ে নিচ্ছেন তারা।
মেহেরপুর জেলার তিন উপজেলায় প্রায় অর্ধশতাধিক দোকানে প্রায় দেড় শতাধিক পাদুকা শিল্পি কাজ করছে। তবে তারা অভিযোগ করে বলেন, চামড়ার দাম দ্বিগুণ হওয়ার কারনে দিনরাত কাজ করেও কাক্সিখত লাভ করতে পারছে না।
11সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিটি দোকানে পাদুকা শিল্পিরা এখন ব্যাস্ত ভিন্ন ডিজাইনের জুতা স্যান্ডেল প্রস্তুত করার কাজে। সেখানে যেয়ে দেখা যায় কেউ চামড়া কাটছে, কেই স্যান্ডেলের সোল্ড তৈরি করছে, কেও পায়ের মাপ নিচ্ছেন, কেও সেলাই করছে আবার কেও কেও কালি করে জুতা স্যান্ডেল চুড়ান্তভাবে প্রস্তুত করছে।
শহরের চন্ডিতলায় ঈদের জুতা কিনতে আসা রাহিম হোসেন নামের এক ক্রেতা জানান, এবার ঈদে সব মার্কেট করা হয়ে গেছে শুধুমাত্র পয়ের জুতা বাদে। বাজারে বড় বড় সু-প্যালেসে গুলোতে জুতা কিনতে গিয়ে বিপদে পড়ে গেছি। সারা বাজার ঘুরে জুতা পছন্দ হয়না। শেষে দোকানে একটি স্যান্ডেল পছন্দ হলেও দাম বলেছে ২৮ শ টাকা। তাই মোবাইলে ছবি তুলে এনে সেই ডিজাইনে মাত্র ৫০০ টাকায় স্যান্ডেল তৈরি করে নিলাম।
হোটেল বাজারে এলাকায় স্যান্ডেল কিনতে আসা সাদিক সজিব নামের এক যুবক বলেন, ভাই বাজার ঘুরে পাঞ্জাবির সাথে ম্যাচিং করে স্যান্ডেল খুজে পেলাম না। যদিও দুই একটা দোকানে পছন্দ হলো কিন্তু মান অনুযায়ী দাম শুনে ঈদ করার কথা ভুলে যাচ্ছি। তাই নিজের মনের মত করে একটি স্যান্ডেল তৈরি করে নিলাম। তাতে দাম ও মান দুটই ঠিক হলো।
শহরের চন্ডিতালার পাদুকা শিল্পি নয়ন দাস বলেন, বাজারে প্রচুর ক্রেতা রয়েছে এখন নতুন করে আর কোন অর্ডার নিচ্ছিনা। যে পরিমান অর্ডার নেওয়া আছে সেটাই প্রস্তুত করতে হবে চাঁদ রাতের আগে। তবে তিনি অভিযোগ করে বলেন দিন দিন চামড়ার দাম যে ভাবে বাড়ছে তাতে সারারাত দিন কাজ করেও আমার কাক্সিখত লাভ করতে পারছিনা। তবে যেহেতু প্রচুর সেল হচ্ছে তাই লাভটা পুশিয়ে নিতে পারছি।
হোটেল বাজার এলাকার পাদুকা শিল্পি ঘটন দাস বলেন, প্রচুর জুতা স্যান্ডেলের অর্ডার পাচ্ছি তবে হটাৎ করে চামড়ার দাম বেশি হয়ে গেছে। যদি আগে থেকে চামড়া কিনে রাখতে পারতাম তবে ভালো ব্যাবসা করতে পারতাম। কিন্তু পুজি না থাকায় সেটা সম্ভব হয়না। তবে তিনি বিনা সুধে আমাদের ঋণের ব্যাবস্থা করতে পারলে এ শিল্পটাকে বাঁচিয়ে রাখার কথা বলেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.