Templates by BIGtheme NET
Home / জাতীয় ও আন্তর্জাতিক / ঈদের ছুটি এখনও শেষ হয়নি যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের

ঈদের ছুটি এখনও শেষ হয়নি যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের

মেহেরপুর নিউজ, ২৩ জুন:
সময় দুপুর ১২:২০। মেহেরপুর সদর উপজেলাধীন যাদবপুর সরকারি প্রা: বি:।স্কুল বন্ধ। ৭/৮ জন ছাত্র ছাত্রী। কোন শিক্ষক নেই। জানা গেল এসেই চলে গিয়েছেন। পরিচ্ছন্নতার অভাব। ডিপিওকে ফোনে জানালাম। দেখি কি ব্যবস্থা নেয়া হয়। মেহেরপুরের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন আকস্মিকভাবে যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন শেষে তার ফেসবুক পেইজে  ছবিসহ এই পোস্টটি দিয়েছেন আজ শনিবার।

ঈদুল ফিতরের ছুটি কাটিয়ে বিদ্যালয়ে ইউনিয়ন পর্যায়ে শুরু হওয়া বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা ফুটবল টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণের পাশাপাশি ছাত্রছাত্রীদের ক্লাশ নেওয়ার কথা রয়েছে যাদবপুর সকোরি প্রাথমিক বিদ্যালয় সহ জেলার সবকয়টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। কিন্তু জেলার অন্যান্য স্কুলে ক্লাশ ও খেলা চললেও ব্যতিক্রম শুধুমাত্র যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি।

দীর্ঘ ১ মাসেরও বেশি সময় ধরে বন্ধ থাকার পর ১৯ জনু মেহেরপুর সকল প্রাথমিক বিদ্যালয় খোলা হয়েছে। সে অনুযায়ী ক্লাশও শুরু হয়েছে। কিন্তু মেহেরপুর সদর উপজেলার যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ২৩ জুন শনিবারও খোলা হয়নি। ছাত্রছাত্রীরা যথা সময়ে স্কুল এসেছে। ক্লাসরুম বন্ধ থাকায় তারা তাদের মতো খেলাধুলা আর হৈ-হল্লোড় করে ঘুরে বেড়িয়েছে। কেউ কেউ বেলা ১২টা বাজায় বাড়ি ফিরে গেছে।
মেহেরপুর জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন আকষ্মিকভাবে শনিবার বেলা ১২টার দিকে পরিদর্শনে আসেন যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। কিন্তু কোন শিক্ষক পেলেন না। পেলেন না কোন ক্লাসরুম খোলা। পেলেন কেবল জন্য কয়েকজন শিক্ষার্থী। তারাও খেলায় ব্যস্ত।

পরিস্থিতি দেখে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন তাৎক্ষনিক ফোন দিলেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার জেসের আলীকে। কি কারণে বিদ্যালয় বন্ধ তা তিনি প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে দেখার নির্দেশও দেন।
বিদ্যালয়ে উপস্থিত শিক্ষার্থীরা জানান, প্রধান শিক্ষক হানিফা সুলতানা বিদ্যালয়ে এসেই কাউকে কিছু না জানিয়ে চলে গেছেন।
জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বলেন আমি স্কুল পরিদর্শনে গিয়ে দেখি বিদ্যালয়ে নোংরা পরিবেশ। এরই মাঝে ছাত্রছাত্রীরা খেলাধুলা করছে। ছাত্ররা জানায় ম্যাডাম কাউকে কিছু না জানিয়ে চলে গেছে। তিনি বলেন আমি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার’কে জানিয়েছি দেখি তিনি কি ব্যবস্থা নেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.