Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / একটি মানবিক সংবাদ ।। এক পল্লী চিকিৎসকের বাঁচার আকুতি

একটি মানবিক সংবাদ ।। এক পল্লী চিকিৎসকের বাঁচার আকুতি

বিশেষ প্রতিবেদন

সাহারুল ইসলাম

সাহারুল ইসলাম

মেহেরপুর নিউজ,০৭ জুলাই: 

জীবন যুদ্ধের লড়াইয়ে পরাজিত হয়ে মুত্যু যন্ত্রনায় কাতরাচ্ছে সাহারুল নামের এক পল্লি চিকিৎসক। মেহেরপুর সদর উপজেলার উজুলপুর হাজিপাড়ার কছিম উদ্দিনের ছেলে সাহারুল ইসলাম। গ্রামে সবাই সাহারুল ডাক্তার হিসেবেই চেনেন। স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়ের ছোট সংসার সাহারুলের। জমি জমা না থাকলেও আর পাঁচটি পরিবারের মত সুখে শান্তিতে দিনগুলো ভালই যাচ্ছিল তার। গ্রামের লোকজনের আঁধার ঘরের বাতি হয়ে কাজ করছিলো সে। কিন্তু বিধির অমায়িক বিধানে আজ তার জীবনে আঁধার নেমে এসেছে। তার শরিরে বাসা বেধেছে মরণ নামক এক ব্যাধী ক্যান্সার। যে মানুষটি সারাদিন ছুটোছুটি করে মানুষের বিপদে আপদে ছুটে যেত। আজ সে সারাদিন বিছানাই শুয়ে দিন কাটাই। ছলছল করে তাকিয়ে থাকে কেউ তাকে দেখতে গেলে। আর আকুতি করতে থাকে আমি বাঁচতে চাই বলে।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারির ১০ তারিখ। হঠাৎ পেটের ডান দিকে হালকা ব্যাথা শুরু করে। তখন রাজশাহীর একটি হাসপাতালে কিছু ডায়াগনসিস করে চিকিৎসক জানান যক্ষা হয়েছে। অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় পরে রাজধানীর আনোয়ার হাসপাতালে আরেকবার শরনাপন্ন হন তিনি। সেখানে ডায়গনসিস করার পর তার শরীরে ধরা পড়ে লিভার ক্যান্সার। যার মেডিকেল নাম-মেটাসটিক এডিনেসারডিনোমিয়া । জীবনের প্রদীপ নিভু নিভু হয়ে যায় তার। হতবিহ্বল হয়ে পড়েন এই গ্রাম্য চিকিৎসক। শুরু হয় জীবনের নতুন অধ্যায়। ক্যান্সারের সাথে যুদ্ধ করে চলতে থাকে তার জীবন। পরবর্তিতে এক বন্ধুর কথা শুনে সে চিকিৎসা শুরু করে ভারতের কলকাতা ঠাকুর পুকুরের সরোজগুপ্ত ক্যান্সার সেন্টার ও রিসার্চ ইনষ্টিটিউটে। ডা. রাকেশ রাই চৌধুরীর তত্বাবধানে চলতে থাকে তার চিকিৎসা। ইতি মধ্যে সাড়ে ৩ লক্ষ টাকা চিকিৎসায় খরচ হয়ে গেছে। থাকার মধ্যে আছে শুধু মাথা গোঁজার এক টুকরো বাড়িটি। এ অবস্থায় তার চিকিৎসা ভার বইতে অক্ষম তার পরিবারের সদস্যরা।

বাবা, স্ত্রী ও সন্তানের সাথে সাহারুল ইসলাম

বাবা, স্ত্রী ও সন্তানের সাথে সাহারুল ইসলাম

তার পিতা কছিম উদ্দিন জানান, ছেলের এই মরণব্যাধীতে পরিবারের সকলেই কাতর। জমানো টাকা পয়সা দিয়ে এ পর্য়ন্ত চিকিৎসা করানো হয়েছে তিনি জানান। সমাজের সহৃদয়বান ব্যাক্তিরা যদি তার চিকিৎসার সাহায্যার্থে এগিয়ে আসে তবে হয়তো তাকে সারিয়ে তোলা সম্ভব হবে। এদিকে, স্বামীর এ যন্ত্রনা সইনে না পেরে শোকে কাতর তার স্ত্রী শ্যামলী খাতুন। ছলছল করে স্বামীর দিকে তাকিয়ে থাকা ছাড়া আর কিছুই বলতে পারলো না সে। শুধু ছোট ছেলেটিকে কোলে তুলে নিয়ে চোখটি মুছলো সবার অগোচরে।

প্রতিবেশী আব্দুস সাত্তার জানান, গ্রামের সকলের বিপদ আপদে ছুটে যাওয়া সাহারুলের আজ বড় বিপদ। হৃদয়বান ব্যাক্তিদের সহয়োগীতায় সে আবার সুস্থ হয়ে আবারো মানুষের বিপদ আপদে ছুটে চলুক সাহারুল এ প্রত্যাশা তারও।

প্রতিবেশী সাত্তারের মত সকলেই চাই সাহারুল আবার সুস্থ হয়ে উঠুক। ফিরে পাক তার কর্মচাঞ্চল্য। কিন্তু এর জন্য প্রয়োজন অনেক অর্থ। আসুন না আমাদের সকলের সহযোগীতায় একটি জীবন ফিরে আসে কিনা একটু চেষ্টা করে দেখি? বাড়িয়ে দিই সহযোগীতার হাত। তাকে সহযোগীতার করতে চাইলে মেহেরপুর পূবালী ব্যাংক লি: এর শাখায় সঞ্চয়ী হিসাব খোলা আছে। মো: সাহারুল ইসলাম, যার নং-১৮৫৭১০১০৬৬৭৯১ । আবেদনমূলক সেই গানের কথাটি দিয়েই শেষ করি “মানুষ মানুষের জন্য, একটু সহানুভতি কি মানুষ পেতে পারে না” ।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful