Templates by BIGtheme NET
Home / অতিথী কলাম / এগিয়ে যাও মেহেরপুর নিউজ, মেহেরপুরবাসী সাথে আছে

এগিয়ে যাও মেহেরপুর নিউজ, মেহেরপুরবাসী সাথে আছে

12596069_1235877379773577_218587410_nমুহম্মদ রবীউল আলম:
এগিয়ে যাও মেহেরপুর নিউজ, মেহেরপুরবাসী তোমাদের সাথে আছে। মেহেরপুর নিউজ হলো আমাদের অবহেলিত মেহেরপুরে মুখপত্র। অবহেলিত মেহেরপুরে কোন নিয়মিত পত্রিকা নেই। নেই কোন দৈনিক কিংবা সাপ্তাহিক। সরকারি খাতায় পত্রিকার নাম থাকলেও মেহেরপুরবাসী পত্রিকা চোখে দেখে না। মেহেরপুর থেকে দু‘একটি পত্রিকা বের হোক এই প্রত্যাশা আমার এবং মেহেরপুরের সর্বস্তরের মানুষের। জানি না এই প্রত্যাশা কবে পূরণ হয়। কুষ্টিয়া থেকে আন্দোলনের বাজার ও বাংলাদেশ বার্তাসহ নিয়মিত ১২টি দৈনিক বের হয় এবং সাপ্তাহিক পত্রিকার সংখ্যা অনেক বেশি। চুয়াডাঙ্গা থেকে মাথাভাঙ্গাসহ বেশ কয়টা পত্রিকা বের হয়। আমরা এক্ষেত্রে অনেক পিছিয়ে। অথচ আমাদের আছে ইতিহাস, আছে ঐতিহ্য। আমরা মেহেরপুরবাসী মুক্তিযুদ্ধে সবচেয়ে বেশি অবদান রেখেছি। স্বাধীনতাকালে দেশের রাজধানী মুজিবনগর আমাদের বুকে। অবিভক্ত বাংলার দ্বিতীয় পৌরসভা আমাদের মেহেরপুর। শিল্প-সংস্কৃতিতে আমাদের রয়েছে বিশাল ইতিহাস।
এই অঞ্চলে নবাব আলীবর্দী খান এসেছেন। মানসিংহ রাজা বিক্রমাদিত্যকে দমন করতে এই পথে এসেছেন। নদীয়া রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা ভবনন্দ মজুমদারের জন্মস্থান বাগোয়ানে। ভৈরব নদে একসময়ে বিশাল নৌ-জাহাজ চলতো। বন্দর গ্রামে এই নৌ-জাহাজ ভিড়তো। মেহেরপুর ছিল একসময়ে নদীয়া জেলার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মহকুমা। ৪৭‘এর পর থেকে মেহেরপুরের দুর্দশা শুরু হয়েছে। এখনো সেই দুর্দশা কাটেনি।
মেহেরপুর সীমান্ত এলাকা হওয়ায় সময়ের বিবর্তনে বিভিন্ন সরকার এঅঞ্চলের বিভিন্ন সমস্যার দিকে তেমন গুরুত্ব দেয় নি। অথচ এই ভুখন্ডের বিভিন্ন রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে এ অঞ্চলের মানুষ সব সময়ে অগ্রণী ভুমিকা রেখেছে। আমাদের আছে ইসলামী চিন্তাবিদ মুন্সী শেখ জমিরউদ্দিন, প্রখ্যাত রহস্য লেখক দীনেন্দ্র কুমার রায়, স্বামী নিগমানন্দ পরমহংস, কর্তাভজা সস্প্রদায়ের প্রবক্তা বলরাম হাড়ি, রাজনীতিবিদ সহিউদ্দিন ও আহম্মদ আলী। আমাদের আছে ভারত কাঁপানো সুপার মডেল আসিফ আজিম, ক্রিকেট তারকা ইমরুল কায়েস, কথাসাহিত্যিক রফিকুর রশীদ, হাবিব আনিসুর রহমান, সৈকত রুশদী, কাজী হাফিজ, তারিক-উল ইসলাম,মনির হায়দার, পলাশ খন্দকার ও তুহিন অরণ্য। আমাদের বিশাল ইতিহাসের প্রেক্ষাপটে আমরা কেন পিছিয়ে থাকবো? আমাদেরকে এগিয়ে যেতে হবে।
মেহেরপুর নিউজ আমাদের এগিয়ে যাওয়ার সাহস দিচ্ছে। বিগত অর্ধযুগ ধরে মেহেরপুর নিউজ মেহেরপুরবাসীর কথা বলছে। মেহেরপুরের মানুষের দাবি-দাওয়ার কথা বলেছে। মেহেরপুরে প্রধান দাবি চেকপোস্টের কথা বলেছে। মেহেরপুরে অবিলম্বে রেললাইন বাস্তবায়ন করতে হবে। করতে হবে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়। মুক্তিযুদ্ধে এ অঞ্চলের মানুষের অবদানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে মেহেরপুর, কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা, ঝিনাইদহ,মাগুরা ও রাজবাড়ী নিয়ে করতে হবে মুজিবনগর বিভাগ এবং সেইসাথে মুজিবনগরে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র স্থাপন করতে হবে। মুজিবনগরে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক জাদুঘর বাস্তবায়ন করতে হবে । ভৈরব নদে সবসময়ে নদীতে যাতে পানি থাকে তার ব্যবস্থা করতে হবে। মেহেরপুর হাসপাতালকে মুজিবনগর মেডিকেল কলেজে রূপান্তর করতে হবে। ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর দিবস নয় চাই জাতীয় শপথ দিবসসহ বিভিন্ন দাবি এসেছে মেহেরপুর নিউজের পাতায়। এজন্য আমি অভিনন্দন জানাচ্ছি মেহেরপুর নিউজের চেয়ারম্যান ও প্রধান সম্পাদক পলাশ খন্দকারকে। সাথে সাথে সুভেচ্ছা জানাচ্ছি উপদেষ্টা তুহিন অরণ্য, বার্তা সম্পাদক ইয়াদুল মমিন, প্রধান প্রতিবেদক মিজানুর রহমান, মাহবুবুল হক পোলেন, মুজাহিদ মুন্না, শহিদুল ইসলাম, ডি এম মুকিদ ও সাঈদ হোসেনসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে। মেহেরপুরের মতো পরিবেশে একটি অনলাইন পত্রিকা নিয়মিত করা সত্যিই কঠিন কাজ। এই কঠিন পথ ধরেই মেহেরপুর নিউজ দীর্ঘ অর্ধশতাব্দী ধরে মেহেরপুরবাসীর মনের কথা প্রকাশ করে আসছে। ‘আমরা সকলের কথা বলি’ এই শ্লোগান কে সামনে রেখে মেহেরপুর নিউজ যাত্রা শুরু করেছিল ২০১০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে। দেখতে দেখতে তারা সপ্তম বছরে পদার্পন করলো।
মেহেরপুর নিউজ আমি নিয়মিত পড়ে থাকি। প্রিয়জনদের ছবিসহ নিউজ দেখে বেশ ভাল লাগে। সমসাময়িক সংবাদের প্রতি বেশি গুরুত্ব দেয় মেহেরপুর নিউজ। তবে আমি মনে করি সমসাময়িক সংবাদের পাশাপাশি আমাদের ইতিহাস-ঐতিহ্য, দর্শনীয় স্থান পরিচিতি, আগের দিনের সাহিত্য-সংস্কৃতি, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, দেশ-বিদেশে মেহেরপুরে কৃতি সন্তানদের বিভিন্ন অবদানসহ বিভিন্ন ফিচার নিয়মিত প্রকাশ করা উচিৎ। তবে আমি আশাবাদী। মেহেরপুরের প্রতিভাবান সাংবাদিকরা এব্যাপারে ভুমিকা রাখতে পারবেন।
মেহেরপুরের সাংবাদিকরা সকলেই আমার পরিচিত আপনজন। তারা বিভিন্ন মিডিয়াতে বেশ ভালই নিউজ করে। তবে আমার মনের ইচ্ছা মেহেরপুরের উন্নয়নের স্বার্থে একটি প্লাটফর্মে এসে তাদের কাজ করা উচিৎ। এতে তাদের নিজেদের যেমন সুবিধা হবে। তেমনি মেহেরপুরের মানুষের উপকার হবে। সাংবাদিকদের পথ ও মতের ভিন্নতা থাকায় স্বাভাবিক। কিন্তু মেহেরপুরের কল্যাণে তারা এক হয়ে কাজ করা উচিৎ। এই মিলনের স্থল হতে পারে মেহেরপুর প্রেসক্লাব। মেহেরপুরবাসী এমনটিই আশা করে।
আমরা যারা মেহেরপুরের বাইরে থাকি, আমাদের মন যেন মেহেরপুরে পড়ে থাকে । আমরা তাকিয়ে থাকি মেহেরপুর নিউজ -এর দিকে। তাকিয়ে থাকি মেহেরপুরের সাংবাদিকদের লেখার দিকে।মেহেরপুরের ভাল সংবাদ পেলে খুশি হই। খারাপ সংবাদ পেলে কষ্ট পায়। আমার চাই মেহেরপুর এগিয়ে যাক। মেহেরপুরের উন্নতি হোক। মেহেরপুর নিউজ আমাদের এই সব প্রত্যাশা বাস্তবায়নে ভুমিকা রাখুক। মেহেরপুর নিউজ হোক বিশ্বের সর্বত্র ছড়িয়ে থাকা মেহেরপুরবাসীর প্রাণের নিউজ পেপার। সবাইকে শুভেচ্ছা।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful