Templates by BIGtheme NET
Home / জাতীয় ও আন্তর্জাতিক / ওসির শাস্তি হবে কি হবেনা আদেশ ১৪ জুলাই

ওসির শাস্তি হবে কি হবেনা আদেশ ১৪ জুলাই

আপডেট

OC Shek Atiar Rah(1)মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,০২ জুলাইঃ

মেহেরপুর সদর থানার ওসি শেখ আতিয়ার রহমানের বিরুদ্ধে আদালত অমাননার মামলায় কেন তাকে শাস্তি দেওয়া হবেনা এ ব্যাপারে আগামী ১৪ জুলাই আদেশ দিতে পারে আদালত। কারণ আদালতের আদেশ অমান্য করার দায়ে পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে হওয়া এই সর্বপ্রথম মামলায় (মামলা নং- ক্রিমিনাল মিস-০১/১৪) আদালত আগামী  ১৪ জুলাই ওসিকে স্বশরীরে হাজির হয়ে কেন তাঁর বিরুদ্ধে আদালত অমাননার দায়ে শাস্তি প্রদান করা হবে না তার কারণ দর্শানোর জবাব দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন। মঙ্গলবার মেহেরপুর আমলী আদালতের জ্যেষ্ট বিচারিক হাকিম মো: মতিউর রহমান স্বপ্রণোদিত হয়ে (সুয়ো-মটো) এই মামলা আমলে নেন।

আদালতের আদেশে বলা হয়েছে- সদর থানার ওসি (তদন্ত) তরিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে ঘুষ গ্রহনের অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় আদালত দন্ডবিধির ১৬১ ধারায় ওসি সদরকে মামলা রুজুর জন্য ১৫ জুন নির্দেশ দিয়েছিল। এবং আদেশ প্রাপ্তির পরপরই মামলাটি রুজু করে তা তদন্তের জন্য এজাহার উপপরিচালক- দুনীতি দমন কমিশন (দুদক) সমন্বিত কার্যক্রম কুষ্টিয়ায় পাঠানো ও ১৮ জুনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ওসি সদরকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল।
অথচ, সদর থানার ওসি মামলা গ্রহন না করে ১৮ জুন এক প্রতিবেদনে মামলা গ্রহন না করার আইনী ব্যাখ্যা তুলে ধরে জানায়- প্যানেল কোডের ১৬১ ধারাটি অআমলযোগ্য অপরাধ। তাই মামলাটি রুজু করার সুযোগ নেই। এ ক্ষেত্রে আদালত আদেশে উল্লেখ করেছে- ওই ধারাটি দুনীতি দমন কমিশন আইনের তফসীলভুক্ত আমলযোগ এবং জামিন অযোগ্য একটি অপরাধ। যা- দুনীতি দমন কমিশন আইন ২০০৪ (সংশোধিত ২০১৩ সনের ৬০ নং আইন) এর ২৮ (ক) ধারায় বলা হয়েছে। অথচ, ওসি সদর সরকারী কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) কর্তৃক ঘুষ গ্রহনের অপরাধকে তুচ্ছ গণ্য করে অধর্তব্য ও অআমলযোগ্য বলেছেন।
আদালত বলেছে – মামলা গ্রহন না করে ওসি শুধু আদালতের আদেশই অমান্য করেননি, তিনি পুলিশ প্রবিধানমালা বেঙ্গল (পিআরবি) ১৯৪৩ এর ২৪৪ ও ২৪৫ (ক) লংঘন করেছেন। কেননা- ২৪৪ (ক) ধারায় বলা আছে- পুলিশের নিকট পেশকৃত প্রতিটি অভিযোগ প্রাথমিক দৃষ্টিতে সত্য মিথ্যা, গুরুতর বা সামান্য যাই হোক না কেন, তা প্রাথমিক তথ্য হিসাবে লিপিবদ্ধ করতে হবে। ২৪৫ (ক) বিধান মতে “যখন পুলিশের নিকট ইতিপূর্বে তথ্য দেওয়া হয়নি এমন কোন আমলযোগ্য অপরাধের অভিযোগ সম্পর্কে ম্যাজিস্ট্রেট পুলিশকে তদন্তের নির্দেশ প্রদান করেন” তখন ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক পুলিশের নিকট প্রেরিত লিখিত অভিযোগ প্রাথমিক তথ্য হিসাবে গন্য হবে। ফলে, আইনের ভুল ব্যাখ্যা প্রদান করে ওসি সদর আদালতের আদেশের বিরুদ্ধাচারণ ও অবজ্ঞা করার মানষে চ্যালেঞ্জ সহ উচ্চ আদালতের (৩-এডিসি) নির্দেশনা লক্সঘন করেছেন।
এক্ষেত্রে আদালত মনে করে যে, ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি সদর) শেখ আতিয়ার রহমান ওসি (তদন্ত) বিরুদ্ধে ঘুষ গ্রহনের মামলা রুজু না করে আদালতের সুস্পষ্ট আদেশ ইচ্ছাকৃতভাবে অমান্য করেছেন। যা ফৌজদারী কার্যবিধির ৪৮৫ ধাররা বিধান মতে শাস্তিযোগ্য অপরাধ এবং সংক্ষিপ্তভাবে বিচার্য্য। সঙ্গতকারণে ওসি শেখ আতিয়ার রহমানের বিরুদ্ধে ৪৮৫ ধারার অপরাধ আমলে গ্রহণ করা হল এবং তাকে পৃথক ক্রিমিনাল মিস মামলার একমাত্র আসামী হিসাবে গন্য করা হল।
উল্লেখ্য, গত ১৪ জুন আসামী সাহেব আলী (১৯) পিতা উইসুফ নবী ওরফে গোলে, ক্যাশবপাড়া, ৬ নং ওয়ার্ড, মেহেরপুর শহর কে পুলিশ আদালতে সপোর্দ করলে সে স্বেচ্ছায় আদালতকে জানায়- জিআর- ৭৮৯/১৩ মামলার সন্দিগ্ধ হিসাবে পুলিশ তাকে সহ চারজনকে গ্রেপ্তার করে। সেই মামলায় জামিন পেলে পুলিশ জেলগেট থেকে তাদের আবার আটক করে। এদের দুইজনকে পুলিশ ছেড়ে দেয়। এ সময় তাকেও ছেড়ে দিতে ওসি (তদন্ত) তার পিতার কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা ঘুষ নেয়। কিন্তু ঘুষ গ্রহন সত্বেও অজ্ঞাত ফোনের নির্দেশে তাকে না ছেড়ে সন্দিগ্ধ হিসাবে আরও তিনটি মামলায় আদালতে চালান দিয়েছে। তখন আদালত তার জবানবন্দি লিপিবদ্ধ করে ওসি (তদন্ত’র) বিরুদ্ধে ঘুষ গ্রহনের অভিযোগে মামলা রুজু করার জন্য ১৫ জুন নির্দেশ দিয়েছিল। কিন্তু ওসি সদর সেই মামলা রুজু না করে উল্টো আদালতে আইনী যুক্তি উপস্থাপন করেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.