Templates by BIGtheme NET
Home / কৃষি সমাচার / কাঁচা মরিচের দাম নেই, হতাশা চাষীদের মাঝে

কাঁচা মরিচের দাম নেই, হতাশা চাষীদের মাঝে

মেহেরপুর নিউজ, ০৯ ডিসেম্বর:

এক কেজি কাঁচা মরিচে কৃষক দাম পাচ্ছেন ১২ টাকা। এর মধ্যে জমি থেকে তোলার জন্য শ্রমিক খরচ হয় সাড়ে ৭ টাকা। যানবাহন খরচ, আড়তদারের কমিশন সব বাদ দিলেই কেজিতে আর কিছুই থাকছে না। কাচামরিচ এমন একটি ফসল যা জমিতে রেখে দেওয়ায় যাবে না। ফলে লাভ না পেলেও বাধ্য হয়ে মরিচ তুলে বাজারে বিক্রি করতে হচ্ছে।

আজ রবিবার বিকেলে মেহেরপুরের বড়বাজার সবজি আড়তে মরিচ বিক্রি করতে এসে এভাবেই প্রতিক্রিয়া জানালেন মরিচ চাষী আব্দুল গফুর।

আব্দুল গফুর মেহেরপুর সদর উপজেলার রঘুনাথপুরের একজন মরিচ চাষী। তিনি এ বছর দেড় বিঘা জমিতে মরিচ চাষ করেছেন। তিনি জানান, বিঘা প্রতি মরিচ চাষ করতে খরচ হয় ৩০ হাজার টাকা। কেজি প্রতি অন্তত ২৫ থেকে ৩০ টাকা দাম পেলেও ভাল লাভ হয় বলে তিনি জানান।

একই উপজেলার উজুলপুর গ্রামের মরিচ চাষী আলামিন হোসেন জানান, তিনি ১২ কাঠা জমিতে মরিচ চাষ করেছেন। তিনি জানান, মরিচ থেকে প্রতিবছর লাভ হলেও এ বছর ক্ষতির সন্মুখীন হয়েছেন।

আব্দুল গফুর, আলামিনের মতো মেহেরপুর জেলার সকল মরিচ চাষীর মুখে হাসি নেই, মনে সুখ নেই। তাদের আশা মরিচের মূল্য বৃদ্ধি হলে দুটি টাকার মুখ দেখতে পাবেন। সংসারে স্বচ্ছলতা ফিরে আসবে।

বড়বাজারের সবজি আড়ৎ পট্টিতে গিয়ে দেখা যায়, বিভিন্ন ধরণের শীতকালীন সবজিতে ভরপুর আড়তগুলো। সেই সবজিকে টপকিয়ে কাচামরিচের খামালগুলো চোখে পড়ার মত। ঝাঁঝালো গন্ধে সেখানে টিকে থাকায় মুশকিল।

আড়ত মালিক মিজু আহমেদ জানান, মেহেরপুর থেকে প্রতিদিন গড়ে ১৪ থেকে ১৫টি ট্রাকে করে ঢাকা, চট্টাগ্রাম, বরিশাল, রংপুরসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে মরিচ পাঠানো হচ্ছে। দাম কম পাওয়াতে চাষীরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।

মেহেরপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক ড. আখতারুজ্জামান জানান, জেলায় এ বছর ৫ হাজার ১৬৫ হেক্টর জমিতে মরিচের চাষ হয়েছে। বাজার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা থাকলে চাষীরা ক্ষতিগ্রস্ত হতো না।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.