Templates by BIGtheme NET
Home / ফিচার / কিশোর যোদ্ধা আমিরুল ইসলাম :: বঙ্গবন্ধুর ভাষণ শুনে আর থেমে থাকতে পারিনি

কিশোর যোদ্ধা আমিরুল ইসলাম :: বঙ্গবন্ধুর ভাষণ শুনে আর থেমে থাকতে পারিনি

ইয়াদুল মোমিন, ১৩ ডিসেম্বর:
ফরম পূরন করার পর এসএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন কিশোর আমিরুল ইসলাম। ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ভাষন শুরু হওয়ার পর থেকে যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ার প্রবল ইচ্ছা তৈরি হয়। বাবাকে রাজি করাতে পারলেও একমাত্র পুত্র সন্তান হওয়ায় মাকে রাজি করাতে একটু দেরি হয়ে যায় আমিরুল ইসলামের। একটু দেরি হলেও মার্চ মাসের শেষ সপ্তাহে এসএসসি পরীক্ষা না দিয়ে যুদ্ধে চলে যান তিনি। একান্ত আলাপকালে মুক্তিযুদ্ধকালীন স্মৃতি চারণে এসব কথা বলেন আমিরুল ইসলাম।
মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার মহাম্মদপুর গ্রামের মৃত দৌলত হোসেনের একমাত্র পুত্র সন্তান। হোগলবাড়িযা ভরস উদ্দিন মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে যুদ্ধের বছর এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার কথা ছিল।
আমিরুল ইসলাম বলেন, স্কুল জীবন থেকেই বাবার সাথে রাজনীতির বিভিন্ন গল্প শুনেছি। পাকিস্তানীদের অত্যাচার নিপিড়নের বিভিন্ন খবর শুনতে পেতাম। তখন থেকেই আওয়ামীলীগের রাজনীতির প্রতি একটা দুর্বলতা তৈরি হয়। ১৯৭১ এর ৭ মার্চ রেডিওতে বঙ্গবন্ধুর ভাষন শোনার পর আর থেমে থাকতে পারিনি। বাবাকে বললাম যুদ্ধে যাব। দেশকে বাঁচাব। বাবা এক কথাতেই রাজি হয়ে গেলেন। কিন্তু বাঁধ সাধলেন মা। ৭ ছেলেমেয়ের মধ্যে একমাত্র পুত্র সন্তান আমি। একমাত্র পুত্র সন্তানকে যুদ্ধে দিতে রাজি হলেন না মা। অবশেষে অনেক বোঝানোর পর রাজি হলেন। মার্চের শেষ সপ্তাহে ওই গ্রামের আরো ৮জন সহ তিনি চলে যান ভারতে শিকারপুর ইয়ুথ ক্যাম্পে। শিকারপুর ক্যাম্পে ৩/৪ দিন থাকার সেখান থেকে করিমপুর এবং পরে কড়–ইগাছী প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে পাঠানো হয়। কড়–ই গাছি প্রশিক্ষন ক্যাম্পে কেএম আতাউল হাকিম লাল মিয়া, ছহি উদ্দিন, নুরুল হকের তত্তাবধানে তাদের প্রশিক্ষন শুরু হয়। সেখানে এক মাস প্রশিক্ষন দেওয়ার পর আমিরুল ইসলামসহ প্রায় দুই শতাধিক মুক্তিযোদ্ধাকে অস্ত্র ও গেরিলা প্রশিক্ষণের জন্য পাঠানো হয় ভারতের বীরভুম রাজ্যের রামপুরহাট সেনানিবাসে।
রামপুরহাট সেনানিবাসে ২৮ দিন ধরে তাদের বিভিন্ন অস্ত্রের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় পাশাপাশি গেরিলা প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। সেখান থেকে তাদের রাইফেল, থ্রি নট থ্রি, এসএলআর, স্টেইন গান, এলএমজি, টুইন্স মোটর, থ্রিইন্স মোটর, সাব মেশিন গানসহ বাড়িঘর ও ব্রীজ ধ্বংস করার প্রশিক্ষন দেওয়া হয়।
প্রশিক্ষণ শেষে তাদের আবারও পাঠানো হয় শিকারপুর ক্যাম্পে। কয়েকদিন পরে খবর আসে শিকারপুরে নিকটবর্তী কুষ্টিয়া উপজেলার দৌলতপুর উপজেলার ধর্মদহ ব্যাঙগাড়ির মোড়ের একটি আখক্ষেতে পাকসেনারা ট্যাঙ্ক ও সেল নিয়ে অ্যাম্বুশ পেতে অবস্থান করছে শিকারপুর ক্যাম্প গুড়িয়ে দেওয়ার জন্য।
খবর পেয়ে তৎকালীন মেহেরপুরের মহাকুমা প্রশসক(এসডিও) তৌফিক ইলাহি চৌধুরী গোপনে ওই স্খান রেকি করেন এবং কিভাবে তাদের উপর পাল্টা আক্রমন করা যাবে তার ছক তৈরি করেন। সেই ছক অনুযায়ী তারা প্রায় তিন শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা বিভিন্ন ধরণের আগ্নেয়াস্ত্র, গ্রেনেড নিয়ে পাকসেনাদের তিন দিকে দিয়ে ঘিরে ফেলেন। এসময় পাকসেনারা বুঝতে পরে তাদের উপর আত্রমন শুরু করে। শুরু হয় সন্মুখ যুদ্ধ । সেই যুদ্ধে ১০/১২ জন পাক সেনা মারা যায় আর ৪জন পাকসেনাকে জীবিত আটক করে ট্রাকের পিছনে রশি দিয়ে বেধে টেনে হেঁচড়ে শিকারপুর ক্যাম্পে নিয়ে যাওয়া হয়। যুদ্ধে ৪ জন মুক্তিযোদ্ধাও শহীদ হয়। বর্তমানে সেখানে একটি বধ্যভুমি হিসেবে চিহিৃত করা হয়েছে।
আমিরুল ইসলাম বলেন, পরবর্তিতে তিনি সহ ৯ জনকে জেলার নিজ উপজেলার সহড়াবাড়িয়া পাঠানো হলে সেখানে তারা গোপনে আশ্রয় নেন। নভে¤^রের শেষ দিকে খবর পান গাংনী উপজেলার পলাশীপাড়া এলাকায় পা কসেনারা বাঙালীর ঘর বাড়ি পুড়িয়ে দিচ্ছে এবং নানা রকম অত্যাচার চালাচ্ছে। তখন তারা ওই ৯জন সহ আরো ৫০/৬০ জনের একটি দল পলাশিপাড়া ব্রীজের কাছে অ্যাম্বুশ পাতেন। ভোরের দিকে পলাশিপাড়া ব্রীজের নিকট পাকসেনাদের উপর অতর্কিত হামলা চালানা তারা। এসময় পাক সেনারা পাল্টা হামলা চালায় সেল ছুড়ে। সেল ছুড়তে ছুড়তে পাকসেনারা এলাকা ত্যাগ করে পালিয়ে যায়। পাকসেনাদের ছোড়া সেলের একটি টুকরা আঘাত কিশোর আমিরুল ইসলামের বুকের ডান পাশে। আজো সেই টুকরা সেখানে বিধে আছে বলে তিনি প্রতিবেদককে ক্ষত চিহৃ দেখান। সেলের টুকরায় তিনিসহ বেশ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা আহত হন। মোশাররফ হোসেন ও আনোয়ার হোসেন নামের দুই জন পল্লী চিকিৎসক তাদের চিকিৎসা করেন। সেখান থেকে তারা আবারও সহড়াবাড়িয়া আশ্রয় কেন্দ্রে চলে যান।
আমিরুল ইসলাম বলেন, ডিসেম্বর ৪ তারিখ ভোর বেলা মেহেরপুর-কুষ্টিয়া সংযোগ সেতু। কুষ্টিয়া প্রান্তে পাকসেনারা ঘঁািট করেছে। খবর পেয়ে তিনটি এন্টি ট্যাঙ্ক মাইন নিয়ে খলিসাকুন্ডি ব্রীজের কাছে যান তারা। গোপনে ব্রীজের দুই ধারে দুটি মাইন পুততে পারলেও ব্রীজের মাঝখানে মাইন সেট করতে গেলে শব্দে পাক সেনারা টের পায়। তখন তারা বৃষ্টির মত গুলিবর্ষন করতে থাকে। এসময় তারা হামাগুড়ি দিয়ে পার্শ্ববর্তি শুকুর কান্দি গ্রামের নদীর তীরে অবস্থান নেন। এসময় পাকসেনা ভর্তি একটি জীপ এবং সাধারণ মানুষের ঠ্যাসারি (এক প্রকার ডাল) বোঝাই একটি ঘোড়া গাড়ি ব্রীজের দুই দিক থেকে একই স্থানে গিয়ে পৌছালে এক গাড়ি আরেক গাড়িকে সাইড দিতে গিয়ে তাদের পোতা মাইনে বিকট শব্দে দুটি গাড়িই বিষ্ফোরিত হয়। সেখানে প্রায় ৮/৯ জন পাক সেনা নিহত হয়।
তিনি বলেন, যুদ্ধচলাকালীন সময়ে প্রশিক্ষন শেষে যখন সহড়াবাড়িয়া আশ্রয় কেন্দ্রে অবস্থান করছিলেন তখন সেখান থেকে গোপনে দুই বার বাবা মায়ের সাথে দেখা করতে গিয়েছিলেন। একবার পাকসেনারা খবর পেয়ে গেয়েছিলেন। সেদিনই রাতের আঁধারেই বাড়ির পাশের একটি খড়ের মাঠে হামাগুড়ি দিয়ে আবার সেই গোপন আশ্রয়ে চলে গিয়েছিলেন।
যুদ্ধাহত আমিরুল ইসলাম আক্ষেপ করে বলেন, অধেক চাল অর্ধেক পাথরের ভাত খেয়ে অস্ত্র হাতে যুদ্ধ করে এদেশ স্বাধীন করেছি। কিন্তু যারা যুদ্ধতো দুরের কথা কখনো অস্ত্র হাতেও ধরেননি বা প্রশিক্ষনও নেননি তারাও আজ আমার সমান মুক্তিযোদ্ধা হয়ে গেছেন। তিনি বলেন, এভাবে জেলায় প্রায় তিন শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা যারা যুদ্ধ করেননি তারাও মুক্তিযোদ্ধা গেজেটে ঢুকে পড়েছেন।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি করে জানান, সঠিক তথ্য উপাত্ত যাচাই বাছাই করে সত্যিকারের মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকায় রেখে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা থেকে বাদ দিন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful