Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / কুতুবপুর স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ সুন্নত আলীর অনিয়ম যেন থামছে না…. খুটির জোর কোথায় প্রশ্ন ভুক্তভোগীদের

কুতুবপুর স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ সুন্নত আলীর অনিয়ম যেন থামছে না…. খুটির জোর কোথায় প্রশ্ন ভুক্তভোগীদের

665544মেহেরপুর নিউজ, ৩১ জুলাই:
মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার কুতুবপুর স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে কলেজ শিক্ষকদের বেতন না দিয়ে অর্থ আত্মসাতের চেষ্টা ও শিক্ষকদের ফাঁসানোর চেষ্টায় বিদ্যালয়ের মুল ফটকসহ শ্রেণী কক্ষে তালা দিয়ে পাঠদান বন্ধ করার অভিযোগ উঠেছে।
খোজ নিয়ে জানা গেছে, রবিবার সকালে বিদ্যালয় মুল ফটক বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীরা প্রায় ঘন্টাখানেক বিদ্যালয়ের বাইরে অবস্থান করে। পরে তালা ভেঙ্গে শিক্ষার্থীরা ভিতরে প্রবেশ করলেও ৫/৬টি শেণী কক্ষে তালা দেয়া থাকলে তারা ক্লাসে প্রবেশ করতে পারেনি। খবর পেয়ে গাংনী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফ উজ্জামান, গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্ত আনোয়ার হোসেন বিদ্যালয়ে গিয়ে তালা ভেঙ্গে শিক্ষার্থী শ্রেণী কক্ষে যাওয়ার ব্যবস্থা করে দেন। এদিকে দুপুর ১২ টাতেও অভিযুক্ত অধ্যক্ষ কর্মস্থলে না পেয়ে ওসি ফোন করলে তিনি বিদ্যালয়ে উপস্থিত হন।
বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর ছাত্র দেলোয়ার হোসেন জানায়, সকাল সাড়ে ৯টায় এসে বিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে তালা দেয়া দেখে বিদ্যালয়ের বাইরে অবস্থান করতে থাকে । তার সাথে অন্যান্য শিক্ষার্থীরাও একই সমস্যায় বিদ্যালয়ে বাইরে অবস্থান করে। একই শ্রেণীর মমতাজ খাতুন জানাই একই অভিযোগ করে।
eeee66666কলেজ শাখার ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, তিনি ২০১৫ সালে জুলাই মাসে নিয়োগ পান। নিয়োগপত্রে স্থাণীয়ভাবে বেতন দেয়ার কথা আছে। তাদের বেতন দেয়ার জন্য গত ১৭ জুলাই বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভায় কমিটির সভাপতি বেতন বাবদ এক লাখ ২০ হাজার টাকা অনুমোদন করেন এবং চেক স্বাক্ষর করেন। অথচ বেতনের অর্থ তুলেও তিনি শিক্ষকদের বেতন দেননি। সেই বেতনের জন্য গত শনিবার অধ্যক্ষের কাছে গেলে তিনি তার কক্ষ ভাংচুর করেছি বলে স্থানীয়দের কাছে অভিযোগ করেছেন।
প্রভাষক রেজাউর রহমান বলেন, কলেজ শাখার শিক্ষক ও স্টাফদের নিয়োগ বাবদ অর্থ দিয়ে কলেজের উন্নয়ন করার বদলে তিনি ১২ লাখ আত্মসাত করে ধরা পড়েন। সে ঘটনায় তার বিরুদ্ধে দুটি মামলা চলমান রয়েছে এবং তিনি প্রায় ১বছর ৩মাস বহি:স্কার ছিলেন। পরে কোরআন শরিফ ছুয়ে ক্ষমা করে আর অনিয়ম করবেন না বলে প্রতিজ্ঞা করলে তাকে স্বপদে বহাল করেন ম্যানেজিং কমিটি।
বিদ্যালয় শাখার সহকারী শিক্ষক আখতারুজ্জামান বলেন, মাস খানেক আগে ল্যাপটপ ও ফ্যান কেনার জন্য দু’দফায় ১ লাখ ২৭ হাজার টাকা উত্তোলন করলেও এখন পর্যন্ত তিনি কিছুই কেনেননি। বিদ্যলয়ে তালার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, অধ্যক্ষ তার লোক দিয়ে তালা মেরে নাটক সাজিয়েছেন।
প্রভাষক ববিতা রানি সাহা বলেন, ২০১৪ সাল থেকে এখন পর্যন্ত একটি টাকাও বেতন পায়নি। কয়েকদিন আগে ব্যবস্থাপনা কমিটি বেতনের চেক অধ্যক্ষকে দিলেও তিনি আমাদের বেতন না দিয়ে প্রতিষ্ঠানের তালা মারার অভিযোগ তুলেছেন।
453535454অভিযুক্ত অধ্যক্ষ সুন্নত আলীর কাছে জানতে চাইলে তিনি ক্ষুব্ধ হয়ে বলেন টাকার কথা আপনি কিরে জানলেন? বিদ্যালয়ের তালা দেয়ার প্রশ্নে অধ্যক্ষ সুন্নত আলী পাল্টা শিক্ষকদের উপর দোষ চাপিয়ে বলেন, কলেজ শিক্ষকরা যোগসাজশ করে তালা দিয়েছেন। অথচ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও গাংনী থানার ওসির প্রশ্নের সঠিক জবাব তিনি দিতে পারেননি।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মীর হাবিবুল বাশার বলেন, এ ধরনের ঘটনা শুনেছি। তবে ওই বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষের সাথে তার কোনো কথা হয়নি বা তিনি ছুটি নেননি। ছুটি না নিয়ে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকা বা বারবার অনিয়ম করলে কি শাস্তি হতে পারে এ ব্যাপারে তিনি বলেন, বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটি যে কোনো ধরনের ব্যবস্থা নিতে পারবেন।
বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আমিনুল ইসলাম বলেন, অধ্যক্ষ সুন্নত আলীর বড় গুন কোরআন ছুয়ে শপথ আর পা ধরে মাফ চাওয়া। এর আগেও তিনি একই কাজ করে মাফ চেয়েছেন। এবারের ঘটনা কি ব্যবস্থা নেয়া হবে এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমার দায়িত্বকাল এপ্রিলে শেষ হয়েছে। হাইকোর্টের আদেশে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দায়িত্ব বাড়ানো হয়েছে। তবে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে নিতেই দায়িত্বকাল শেষ হয়ে যাবে। প্রশাসনিকভাবেই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থ্য নেয়ার আহবান জানান তিনি।
গাংনী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফউজ্জমান বলেন, শিক্ষার্থীদর পাঠদান যাতে ব্যহত নাা হয় সেকারণে তালা খোলার ব্যবস্থা করা হয়েছে। অভিযুক্ত অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এদিকে অধ্যক্ষ সুন্নত আলীর বার বার অনিয়ম করে পার পেয়ে যাওয়ায় ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী ও অভিভাবকরা। তাদের প্রশ্ন অধ্যক্ষ সুন্নত আলীর আসলে খুটির জোর কোথায়?

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.