Templates by BIGtheme NET
Home / অতিথী কলাম / কোর্ট ম্যারেজের ব্যাবস্থা আছে কি?

কোর্ট ম্যারেজের ব্যাবস্থা আছে কি?

Tuhin Ahmedঅ্যাডভোকেট তুহিন আহমেদ:
কোর্ট ম্যারেজের কথা প্রায়ই শোনা যায়। কোন প্রেমিক-প্রেমিকা পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করলে অনেক ক্ষেত্রে বলা হয় তারা কোর্ট ম্যারেজ করেছে। কিন্তু আদৌ কোর্ট ম্যারেজের কোন ব্যাবস্থা আছে কি? আমাদের দেশে প্রচলিত আইনে কোর্ট ম্যারেজের কোন ব্যাবস্থা নেই। স্বাভাবিক অর্থে কোর্ট ম্যারেজ বলতে কোর্টে গিয়ে বিয়ে করা বোঝানো হয়ে থাকে। কিন্তু কোন কোর্টকে বিয়ে পড়ানোর অধিকার দেয়া হয়নি। এক্ষেত্রে বিয়ের ঘোষনা দিয়ে প্রথম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বা নোটারি পাবলিকের কাছে এ্যাফিডেভিট  বা হলফনামাকে কোর্ট ম্যারেজ বুঝায় না। কোন মুসলমান ছেলে-মেয়ে বিয়ে করতে চাইলে দুইজন পুরুস বা একজন পুরুস ও দুইজন মহিলা স্বাক্ষীর উপস্থিতিতে বিয়ে করতে হবে। বিয়ের দেনমোহর ধার্য্য করতে হবে। পাত্র-পাত্রীকে কবুল বলে বিয়ে স্বীকার করে নিতে হবে। এরপর নিকাহ রেজিস্ট্রার বা কাজী অফিসে গিয়ে বিয়ে রেজিস্ট্রি করতে হবে। নিকাহনামায় পাত্র-পাত্রী এবং স্বাক্ষীদের স্বাক্ষর থাকবে। নিকাহ রেজিস্ট্রার বা কাজী অফিসে বিয়ে পড়ানোর ব্যাবস্থা থাকে। কোর্ট কোন বিয়ে পড়ানোর হয় না বা কোর্টে কোন বিয়ে পড়ানোর ব্যাবস্থা নেই। কেবল মামলা আশাক্সখা থাকলে পাত্র-পাত্রী স্বেচ্ছায়, স্বজ্ঞানে সাবালক-সাবালিকা হিসাবে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছে এই মর্মে ঘোষনা দিয়ে প্রথম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট বা নোটারি পাবলিকের কাছে এফিডেভিট বা হলফনামা দিয়ে থাকে। বৈধ বিয়ের জন্য এই ধরনের এফিডেভিট বা হলফনামার কোন প্রয়োজন পড়ে না। অভিভাবকদের অসম্মতিতে বিয়ে করা হলে আদালতের মামলা হতে রেহাই পাওয়ার উদ্দেশ্যেই এ ধরনের এফিডেভিট করা হয়ে থাকে। তবে তাকে কোনক্রমেই কোর্ট ম্যারেজ হিসাবে গন্য করা যায় না। সুতরাং বিদ্যমান আইনে কোর্ট ম্যারেজের কোন ব্যাবস্থা নেই।
বি:দ্র:-কোর্ট প্রাঙ্গনে অবস্থিত কাজীগন সরকারিভাবে নিয়োগপ্রাপ্ত কোর্টের কোন কাজী নন।
লেখক পরিচিতি:- প্রভাষক, আইন বিভাগ, ফার্স্ট ক্যাপিটাল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, চুয়াডাঙ্গা।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.