Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / গাঁড়াবাড়িয়া হাটের জমিতে দখলবাজের থাবা

গাঁড়াবাড়িয়া হাটের জমিতে দখলবাজের থাবা

মেহেরপুর নিউজ, ১৪ মে:
মেহেরপুরের ঐতিহ্যবাহী গ্রাম্য হাটগুলোর একটি গাঁড়াবাড়িয়া হাট। সপ্তাহে দু’দিন এলাকার কৃষকরা তাদের উৎপাদিত সব্জিসহ বিভিন্ন ধরণের ফসল সেখানে বিক্রি করেন। একই সঙ্গে সাধারণ মানুষ সেখানে থেকে পণ্য ক্রয় করে তাদের নিত্যপ্রয়োজনীয় চাহিদা পূরণ করেন। কিন্তু ঐ হাটের জমি নজরে পড়েছে স্থানীয় শুকুর আলী নামের এক দখলবাজের খপ্পড়ে। দলখবাজ শুকুর আলী সম্প্রতি হাটের ওই জমির এক তৃতিয়াংশ দখল করে সেখানে বাঁশের রেলিং (বেড়া) দিয়ে দখল করেছেন।
দখল করে বেড়া দেওয়ার কারণে প্রায় ১০জন ব্যবসায়ী তাদের ব্যবসা বন্ধ করে পথে বসেছেন। একই সঙ্গে হাট ইজারাদাররাও কোন খাজনা আদায় করতে পারছেন না।
সরেজমিন গাংনী উপজেলার কাথুলী ইউনিয়নের গাঁড়াবাড়িয়া গ্রামের ওই গ্রাম্যহাটটিতে গিয়ে খোজ খবর নেওয়ার সময় বিভিন্ন বয়সের প্রায় অর্ধশতাধিক ব্যক্তি জড়ো হয়। তাদের মধ্যে বাজারের মুদি ব্যবসায়ী মুজাম হোসেন জানান, প্রায় ৫০ বছর ধরে ঐ বাজারে ব্যবসা করছেন। কয়েকদিন আগে গাঁড়াবাড়িয়া গ্রামের মৃত জানবারের ছেলে শুকুর আলী আমাদের দোকান থেকে জোর পূর্বক বের করে দিয়ে দোকানে তালা লাগিয়ে দেয়। সেই থেকে আমরা ব্যবসা বাণিজ্য করতে পারছিনা। পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন।
বাই-সাইকেল মেকানিকস ইরফান আলী জানান, রেলিং দেওয়ার কারণে তার দোকানটিও বন্ধ হয়ে গেছে। সংসারের একমাত্র উপার্জনের ওই দোকানটি বন্ধ থাকায় তিনিও পরিবার পরিজন নিয়ে বিপদে রয়েছেন।
বয়সের ভারে নুইয়ে পড়া একটি সেলুনের দোকান মালিক আদিল হোসেন বলেন, গাঁড়াবাড়িয়া গ্রাম থেকে গাংনী উপজেলা শহর ও মেহেরপুর জেলা শহর অনেক দুরে হওয়ায় এলাকার প্রায় ৬/৭ টি গ্রামের সাধারন মানুষ সপ্তাহে দু’দিন এই হাটে কৃষিপণ্য সহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস কেনা বেচা করতে আসেন। প্রতি বছর এই হাট থেকে সরকার মোটা অংকের টাকা রাজ¯^ পেয়ে থাকে। অথচ শুকুর আলী ও তার লাঠিয়াল বাহিনী এসে হাটের সব দোকানে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে। শুধু তালা ঝুলিয়েই ক্ষ্যান্ত হননি তিনি। বাঁেশর বেড়া দিয়ে হাটের জমি ঘিরে নিয়েছে। গাঁড়াবাড়িয়া হাট অবৈধ দখল দারের কাছ থেকে দখল মুক্ত করার জোর দাবি জানাচ্ছি স্থানীয় প্রশাসনকে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শত বছর ধরে হাটের জমি জন সাধারনের দখলে থাকা সত্বেও শুকুর আলী বন্দোবস্ত নিয়েছেন বলে দাবী করেন। গাঁড়াবাড়িয়া মৌজার আরএস ৭২৮ ন¤^র খতিয়ানে হাট শ্রেণীর ৩৭৭ নং দাগে ০.০৫ একর এবং আরএস ৩৭৮ ন¤^র দাগের জমি আর এস ৬৭৮ ন¤^র খতিয়ান ভুক্ত। যার রের্কডীয় মালিক স্থানীয় কছের আলীর ছেলে নেকছার আলী। কিন্তু নেকছার আলীকে কোন পক্ষ ভুক্ত হয়নি। যার ফলে আরএস ৩৭৭ নং দাগে দাবীকৃত ০.০৭ একরের স্থলে ০.০৫ একর জমি প্রদান করা হয়। কিন্তু আর এস ৩৭৮ ন¤^র দাগে কোনো জমি প্রদান না করা সত্বেও শুকুর আলী ৩৭৮ ন¤^র দাগের জমি জোরপূর্বক দখল করে এলাকায় উত্তেজনাসহ নানা সমস্য সৃষ্টি করেছেন।
তবে এ ব্যাপারে অভিযুক্ত শুকুর আলী জানান, যেহেতু আদালতের রায় তার পক্ষে সেহেতু তিনিই ওই জমির মালিক। সেই সূত্রে তিনি দখল নিতেই বাজারের তিন পাশ দিয়ে বেড়া দিয়েছেন।
হাট ইজারাদার ইলিয়াস হোসেন জানান, বেশ কয়েক বছর ধরে তিনি এই হাটের ইজারা নিয়ে আসছেন। এবছরও ৫২ হাজার ৬শ টাকা সরকারি রাজস্ব প্রদান করে বাৎসরিক ইজারা (বন্দোবস্ত) নিয়েছেন। প্রায় ১৭ শতাংশ জমির উপর হাট বসে। কিন্তু শুকুর আলী তার লাঠিয়াল বাহিনী দিয়ে নিজের দাবী করে জোর পূর্বক হাটের এক-তৃতীয়াংশ জমি বাঁশের বেড়া দিয়ে দখল নিয়েছেন। ফলে হাটে আর ক্রেতা বিক্রেতারা আসছেন না। কোন খাজনাও আদায় করতে পারছেন না।
ইজারাদার ইলিয়াস হোসেন আরো জানান, অভিযোগ করার পর ইউএনও স্যার হাট পরিদর্শন করে তিনি শুকুর আলীকে রেলিং সরাণোর নির্দেশ দিয়ে গেছেন তারপরও ক্ষমতা দেখিয়ে তিনি এখনো রেলিং সরাননি।
কাথুলী ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান রানা জানান, এলাকায় একটি মাত্র হাট। এ হাটে কৃষকরা তাদের উৎপাদিত ফসলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র বিক্রি করে থাকেন। তিনি আরো জানান, হাটের পাশে শুকুর আলীর জমি থাকতে পারে। তবে তিনি যে জমি দখল করেছেন তা হাটের জমি। জনস্বার্থে হাটের জমি দখল মুক্ত করার দাবি জানান তিনি।
গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) বিষ্ণুপদ পাল বলেন, হাটের জমি দখল মুক্ত করার লক্ষ্যে একটি আবেদন করেছেন গ্রামবাসীরা। আবেদনের প্রেক্ষিতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে অভিযুক্ত শুকুর আলীকে দখল মুক্ত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তিনি দখল মুক্ত না করলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.