Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / গাংনীতে আরআরএফ’র কার্যক্রম নিষিদ্ধ করলো প্রশাসন

গাংনীতে আরআরএফ’র কার্যক্রম নিষিদ্ধ করলো প্রশাসন

মেহেরপুর নিউজ, ৩০ এপ্রিল:
এনজিও সংস্থা রুরাল রিকনস্ট্রাকশন ফাউন্ডেশন ( আরআরএফ) এর গাংনী শাখা অফিসের সকল কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিষ্ণুপদ পাল।
সোমবার বেলা ২ টার সময় তার নিজ অফিসে আরআরএফ এর গাংনী ব্রাঞ্চ অফিসের ব্যাবস্থাপক হাবিবুর রহমানকে ডেকে নিয়ে এ নির্দেশনা দেন।
জানা গেছে, এ উপজেলার সাহারবাটি গ্রামের ইদ্রিস আলীর স্ত্রী শাহানারা খাতুন এনজিও থেকে ষোল হাজার টাকা কৃষি লোন নেন। লোনের কিস্তি পরিশোধ করতে না পারায় সুদে আসলে বিশ হাজার টাকা হয়েছে। এ লোনের কিস্তি আদায় করার জন্য গাংনী ব্রাঞ্চের ম্যানেজার হাবিবুর রহমানের নেতৃত্বে ১০/১২ জন কর্মী চলতি মাসের ২২ তারিখে শাহানার খাতুনের মায়ের বাড়ি জেলার শ্রেষ্ঠ জয়িতা সাহারবাটি গ্রামের প্রতিবন্ধী স্বামী পরিত্যাক্তা নুরজাহান খাতুন ওরফে নুরীর বাড়িতে যায়। ছাগল পালনকারী নুরীর দুই টা ছাগল জোর করে ধরে নিয়ে আসতে চাই। পরে নুরী তাদের বাধা দিলে এক পর্যায়ে ম্যানেজার হাবিবুর রহমানের নেতৃত্বে এনজিও কর্মীরা ওই প্রতিবন্ধী নারীর পরনের শাড়ী দিয়ে খুটির সাথে বেধে রেখে ২ টি ছাগল খুলে নিয়ে অফিসে চলে আসে। পরে নুরী ছাগল দুটি উদ্ধার ও ম্যানেজার হাবিবুর রহমানের বিচার দাবী করে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এ দাবির প্রেক্ষিতে সোমবার ওই নারী এবং ম্যানেজার হাবিবুর রহমানকে অফিসে আসতে বলেন। বিষয়টি শুনতে চাইলে ম্যানেজার হাবিবুর রহমান ইউএন এর সাথে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে ম্যানেজার হাবিবুর রহমান বলেন আমরা ট্যাক্স দিয়ে এনজিও কার্যক্রম চালাচ্ছি। এসময় ইউএনও জানতে চান আপনারা কি এখনও আদিম যুগে বাস করছেন। পরে ইউএনও বিষ্ণুপদ পাল গাংনী উপজেলা থেকে এনজিও টির সকল কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ দেন। এনজিও টির প্রধান কার্যালয়ের নির্বাহী পরিচালক বরাবর কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশনা পাঠানোর আদেশ দেন।
স্থানীয়দের অভিযোগে জানা গেছে, সা¤প্রতিক সময়ে একই ব্রাঞ্চের ম্যানেজার জাকির হোসেন জুগিরগোফা গ্রামের জনৈক এক নারীকে লোন প্রদানের নাম করে অফিসে ডেকে এনে যৌন হয়রানী করে। পরে ওই নারী ধর্ষণের অভিযোগ এনে গাংনী থানায় মামলা করেন। মামলায় ওই ম্যানেজার জাকির হোসেন গ্রেফতার হন। কয়েক বছর আগে এ উপজেলার মহাম্মদপুর গ্রামের একজন নারী লোনের টাকা পরিশোধ করতে না পারায় ঘরের টিন খুলে নিয়ে এসেছিল বলে অভিযোগ উঠেছিল। সাম্প্রতিক সময়ে আরআরএফ এর আরেক অফিসার ঝিনাইদাহ থেকে এক নারীকে নিয়ে এসে তার স্ত্রী পরিচয় দিয়ে বাসাতে রেখেছিল। পরে ওই নারীকে অসুস্থ্য অবস্থায় গাংনী উপজেলা হাসপতালে ভর্তি করে। হাসপতালে বিভিন্ন কর্মচারীদের কাছে রহস্যজনকভাবে কথা বার্তা বলায় স্থানীয়রা গাংনী থানা পুলিশকে খবর দেন। পরে পুলিশের একটি টীম হাসপতাল চত্তর থেকে এনজি আর আর এফ এর ওই কর্মীকে তুলে নিয়ে যায়। একের পর এক অপকর্মের অভিযোগ উঠায় এনজিওটির সকল কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ দেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিষ্ণুপদ পাল। তবে ব্রাঞ্চ ম্যানেজার হাবিবুর রহমান জানান, অভিযোগকারী নুরীর মেয়ের লোনের টাকা দিতে চেয়ে না দেওয়ায় তাকে বেধে রেখে জোর করে ছাগল তুলে আনা হয়েছিল। তবে গ্রামের মেম্বরের মধ্যস্থতায় একদিন পর ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে ছাগল দুটি।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.