Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / গাংনীতে ক্লিনিকে প্রসুতি মৃত্যুর অভিযোগ:: অপারেশনের কথা স্বীকার করছেন না কেউ

গাংনীতে ক্লিনিকে প্রসুতি মৃত্যুর অভিযোগ:: অপারেশনের কথা স্বীকার করছেন না কেউ

মাহাবুব চান্দু, বিশেষ প্রতিবেদক, ০২ আগষ্ট:
মেহেরপুরের গাংনীতে রবিউল ইসলাম মেমোরিয়াল হাসপাতালে অপারেশন জটিলতায় শুকজান খাতুন (৩০) নামের এক প্রসুতির মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। গত শুক্রবার দুপুরে তার মৃত্যু হয়। নিহত শুকজান খাতুন উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের বাবুল হোসেনের স্ত্রী। তবে প্রসব হওয়া সন্তানটি বেঁচে আছে। এ নিয়ে তিনটি সন্তান মা কে হারালো।
তবে এনেসথেসিয়া ও অপারেশন কে করেছেন এ নিয়ে ধ্রæমজাল সৃষ্টি হয়েছে। ক্লিনিক মালিক তরিকুল ইসলাম প্রথমে বলেন, এনেসথেসিয়া করেছেন ডা. এমকে রেজা এবং অপারেশন করেছে ডা. বিডিদাস। পরক্ষনে আবার বলেন, বিডি দাস পরে এসেছেন ডা. এমকে রেজা দুটোই করেছেন। তবে এম কে রেজা ও বিডিদাস দুজনেই অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন,তারা কোনটায় করেননি। রোগীর অবস্থা খারাপ হলে তাদেরকে ডেকে নেওয়া হয়।
যদিও এমকেরেজা নিজেকে এনেসথেসিয়ার ৬ মাসের প্রশিক্ষন নিয়েছেন বলে দাবি করে গাংনীর বিভিন্ন ক্লিনিকে এনেসথেসিয়া করে থাকেন। তার নামের পাশে কোথাও (পিজিটি) এনেসথেসিয়া আবার কোথাও (ইওসি) এনেসথেসিয়া উল্লেখ করেছেন। তবে তার সাথে প্রশিক্ষণের সনদ চাইলে তিনি দেখাতে পারেননি।
এনিয়ে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ বুধবার তিন সদস্যর একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। দ্রুত এর তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।
পরবর্তিতে সরেজমিনে গেলে ক্লিনিক মালিক তরিকুল ইসলাম বলেন, শুক্রবার সাড়ে ১২ টার দিকে গাংনী হাসপাতাল থেকে একটি সিজারিয়ান রোগী তার ক্লিনিকে ভর্তি হয়। প্রসূতি রোগীটির ডেলিভারী পেইন দেখে তাৎক্ষনিক ভাবে আরএমও এমকে রেজা স্যারকে ফোন করি। তিনি ফোন পেয়ে ক্লিনিকে চলে আসেন। এদিকে সিজারিয়ান অপারেশ করানোর জন্য ডা. বিডি দাস স্যারকেও ফোন করি। কিন্তু বিডি দাস স্যার আলমডাঙ্গা উপজেলার হারদিতে প্রাইভেট প্রাকটিসে থাকাতে তার আসতে দেরি। ডা. বিডি দাসের দেরি হওয়ার কথা শুনে এমকে রেজা নিজেই এনেসথেসিয়া ইনজেকশন দিয়ে কিছুক্ষন বসে ছিলেন।
তরিকুল ইসলাম বলেন, বিডিদাসের দেরি হওয়াতে এমকে রেজা বলেন আমার হাসপাতালে উিউটি আছে তাই তাড়াতাড়ি করতে হবে বলে আমাকে অপারেশন করতে বলেন। আমি বলি আমি সেকমো আমি কখনোই এটি পারবো না। এ কথা শুনে তিনি নিজেই অপারেশন শুরু করেন। এরপর থেকেই রোগীর অক্স্রিজেনের মাত্রা কমতে থাকতে।
তরিকুল বলেন, সাধারণত অক্সিজেনের মাত্রা ৯০পিওম(পালস অক্সি মিটার) থেকে ১০০ এর মধ্যে থাকলে রোগী স্বাভাবিক থাকে। কিন্তু ৮৯ হওয়ার পর থেকে স্যারকে বলি অক্সিজেন কমতে শুরু করেছে। উনি বলেন কিছু হবে না। এর পর পুনরায় অক্সিজেন মেপে দেখি ৭০ এ কমে এসেছে। তখন নিেেজকে আর ঠিক রাখতে না পেরে এমকে রেজাকে বলি স্যার রোগীর অক্স্রিজেন অনেক কমে গেছে, রোগীকে বাঁচানো সম্ভব হবে না। তখনও এমকে রেজা বলেন কোন সমস্যা হবে না বলে তিনি বাচ্চা বের করেন। সর্বশেষ রোগীর পিওম ৬৬ পাওয়া গেছে। এসময় ডা.বিডিদাসকে ফোন করলে তিনি বলেন কোন ভাবে মাউথ টু মাউথ অক্সিজেন দিযে রোগীকে বাচিয়ে রাখো। আমি আসছি। উনি যখন আসলেন তখন কৃত্রিমভাবে শ্বাস প্রশাস দিয়ে রোগীকে তার (তরিকুল ইসলামের) প্রাইভেট কারে নিয়ে কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে তার মৃত্যু হয়। এর পর থেকে ডা. এম কে রেজা অস্বীকার করতে থাকেন। তিনি কোনভাবেই স্বীকার করছেন না যে অপারেশন তিনি করছেন। উল্টাআমার উপর দোষ চাপাচ্ছেন।
এ ব্যাপারে ডা. বিডি দাস বলেন, আমাকে যখন ফোন করে তখন আমি হারদিতে ছিলাম। রোগীর অবস্থা খারাপ শুনে আমি গাংনীতে ফিরে আসি। এসে দেখি অপারেশন শেষ হয়ে গিয়েছে এবং রোগী আর কোন শ্বাস প্রশ্বাস নিচ্ছে না। তাৎক্ষনিক কৃত্রিমভাবে শ্বাস প্রশ্বাসের ব্যবস্থা করে রোগীকে কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। তবে অপারেশনটি কে করেছেন আমি পরিস্কার জানি না।
অভিযুক্ত ডা. এম কে রেজা বলেন, অন্যসময় আমি শুধু এনেসথেসিয়া করলেও শুকজান খাতুন নামের কোন রোগীর এনেসথেসিয়া ও অপরাশেন কোনটাই আমি করিনি। রোগীর অবস্থা খারাপ দেখে আমাকে তরিকুল ইসলাম ফোন করে ডাকলে আমি গিয়ে দেখি অপারেশন করা হয়ে গেছে। এ নিয়ে কিছু হলে আমি প্রয়োজনে হাইকোর্টে যাব বলে হুশিয়ারি দেন।
মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালের সিনিয়র এনেসথেসিষ্ট ডা. তাপস কুমার সরকার জানান, এনেসথেসিয়া ভুলের কারণে রোগীর পিওএম কমে যায়। কোন কারণে পিওএম ৭০ এর নিচে নেমে গেলে রোগীকে বাঁচানো সম্ভব হয় না। এক্ষেত্রে সে ঘটনাই ঘটেছে।
নিহত শুকজান খাতুনের মা জামেরুন নেছা তার মেয়ের মৃত্যু কোনভাবেই মেনে নিতে পারছেন। তিনি বলেন, যে কোন ভাবে তার মেয়ে হত্যার বিচার চান।
তবে এনেসথেসিয়া বা অপারেশন কে করেছেন তা কেউ স্বীকার করছেন। ড. এম কে রেজা, নাকি বিডি দাস না ক্লিনিক মালিক তরিকুল ইসলাম। একে অপরের উপর দায় চাপিয়ে নিজেরা বাচার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এমন অবস্থায় স্বাস্থ্য বিভাগীয় তদন্ত ছাড়া এর সুরাহা করা সম্ভব হবে না।
এ ব্যাপারে মেহেরপুরের সিভিল সার্জন ডা. জিকেএম সামসুজ্জামান বলেন, বিষয়টি আমাদের নজরে এলে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালের গাইনি বিশেষজ্ঞ ডা. বিপুল কুমার দাসকে প্রধান করে তিন সদস্যর একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন সিভিল সার্জন অফিসের মেডিক্যাল অফিসার ফয়সাল কবির এবং গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল অফিসার সজিব উদ্দীন স্বাধীন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.