Templates by BIGtheme NET
Home / ফিচার / গাংনীতে চিকিৎসক তৈরির ফাঁদ :: তদন্ত কমিটি গঠন

গাংনীতে চিকিৎসক তৈরির ফাঁদ :: তদন্ত কমিটি গঠন

মেহেরপুর নিউজ, ৩১ জানুয়ারি:
মেহেরপুরের গাংনীতে হাটবোয়ালিয়া সড়কে র‌্যাব ক্যাম্পের অদূরে ‘প্যারামেডিকেল ও নার্সিং প্রশিক্ষণ ইনষ্টিটিউট’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান খুলে সেখানে চিকিৎসক ও নার্স তৈরি করছেন ইউসুফ আলী নামের এক ব্যক্তি। তবে প্রতিষ্ঠানটির সরকারি কোন অনুমোদন না থাকলেও সে সম্পর্কে কিছুই জানেন না স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা।
এদিকে বিষয়টি নিয়ে কালের কণ্ঠসহসহ কয়েকটি জাতীয় পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হলে কতৃপক্ষের টনক নড়ে। এ ঘটনায় ওই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে চার সদস্যর একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।
১৯৯৬ সালে চুয়াডাঙ্গার দামুরহুদা পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করেছিলেন ইউসুফ আলী। ডাক নাম তার সাজ্জাদ। চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার জয়রামপুর গ্রামের মৃত নজির আহমেদ বিশ্বাসের ছেলে তিনি। এসএসসি পাশ করার পর দির্ঘদিন ধরে চাষাবাদসহ বিভিন্ন পেশায় থাকার পর গ্রামে পল্লী চিকিৎসক হিসেবেও কাজ করেছেন। পরবর্তিতে ২০১৬ সালে বাংলাদেশ টেকনোলজী ফাউন্ডেশন নামের একটি সংস্থার আশুলিয়া প্রশিক্ষন শাখা থেকে ডিএমএফ (ডিপ্লোমা ইন ফ্যাকাল্টি) নামক একটি প্রশিক্ষণ সমাপ্ত করেন।
গত এক বছর ধরে গাংনীতে ‘প্যারামেডিকেল এন্ড নার্সিং প্রশিক্ষণ ইনষ্টিউট’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান খুলে চিকিৎসক তৈরির ফাঁদ পেতে বসেছেন ই্উসুফ আলী। চিকিৎসক পেশায় সম্মান ও আয় দুটি বেশি । অল্প খরচ ও কম সময়ে হয়ে যাবেন চিকিৎসক, এই লোভে পড়ে তার পাতা ফাঁদে পা দিচ্ছেন এলাকার বিভিন্ন বয়সের মানুষেরা। মনকাড়ানো লিফলেট প্রকাশ করে আকৃষ্ট করছেন তিনি। লিফলেটের প্রথমে লিখেছেন ‘ডিগ্রির চেয়ে কর্মের গুরত্ব অনেক বেশি’। লিফলেট দেখে ও বিভিন্ন প্রশিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলা জানাগেলে নিম্মরুপ কোর্স করানো হচ্ছে এখানে।
ডিএমএফ (ডিপ্লোমা ইন মেডিকেল ফ্যাকাল্টি) তিন বছর, ডিএমএলটি (ডিপ্লোমা ইন ল্যাবরেটরী) তিন বছর, ডিএনটি (ডিপ্লোমা ইন নার্সিং ট্রেনিং) তন বছর, ডিএমএ (ডিপ্লোমা ইন মেডিকেল এসিসট্যান্ট) দুই বছর, ডিএনএ (ডিপ্লোমা ইন নার্সিং টেনিং) দুই বছর, ডিপিটি (ডিপ্লোমা ইন ফিজিওথেরাপি) এক বছর, ডিএমসিএইচ (ডিপ্লোমা ইন মাদার এন্ড চাইল্ড হেলথ) এক বছর, বিডিএ(বাংলাদেশ ডেন্টাল এসিসট্যান্ট) এক বছর, এলএমএএফপি (পল্লী চিকিৎসক) এক বছর, এলডিসি (ডেন্টাল) ছয় মাস, বিআরএমপি (রেজিষ্টার চিকিৎসক) ছয় মাস, এলভিপি (পশু চিকিৎসক) চার মাস।
তিন বছর ও দুই বছরের প্রতিটি কোর্সে ভর্তি ফিস তিন হাজার একশ টাকা এবং এক বছরের কম সময়ের কোর্স গুলোতে ভর্তি হতে লাগে এক হাজার সাতশ টাকা । তবে প্রতিটি কোর্সে মাসে এক হাজার টাকা করে ক্লাসের জন্য দেওয়া লাগে।
এ ধরণের অভিযোগ পেয়ে সরেজমিনে সম্প্রতি এক বৃহস্পতিবার গিয়ে জানা গেলো প্রতি শুক্র ও শনিবার এখানে প্রশিক্ষণ হয়। বাকিদিনগুলো বন্ধ থাকে। পরবর্তিতে গত শনিবার সকাল ১১টার দিকে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেল ট্রেণিং সেন্টার পরিচালক ইউসুফ আলী ৮ জন শিক্ষার্থীকে প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন। এর মধ্যে একজন ডিএমএফ কোর্সে, ২ জন ডিএমএলটি কোর্সে, একজন বয়স্ক মানুষ এলএমএএফপি কোর্সে, দুইজন এখনো ভর্তি হননি (পর্যবেক্ষণ করতে গিয়েছেন)। বাকিরা বিভিন্ন কোর্সে ভর্তি হয়েছেন।
ক্লাসের এক ফাঁকে তিনি শরীরের বিভিন্ন অংশের সাধারণ নাম ও চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় সেই অংশ কি বলা হয় সেভাবে বোঝানোর চেষ্টা করছেন। যেমন: মাাথার পিছনের নিচের অংশে হাত দিয়ে বোঝালেন সাধারণ ভাষায় এটিকে ঘাড় বলা হলেও মেডিক্যালা সাইন্সের ভাষায় এটিকে সার্ভিক্যাল। এভাবেই শরীরের বিভিন্ন অংশের ক্লাস নিয়ে তিনি শিক্ষার্থীদের বোঝাচ্ছিলেন। যেটিকে চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় এনাটমি বলা হয়।
বিভিন্ন জন বিভিন্ন কোর্সের হলেও একই সঙ্গে তাদের প্রশিক্ষন দেওয়া হচ্ছে। একটি মাত্র প্রশিক্ষণ ক্লাসেই পুরো একটি ইনষ্টিউট দেদারছে চালানো হচ্ছে। আর এখান তৈরি হচ্ছে বিভিন্ন ধরণের চিকিৎসক।
উপজেলার ধানখোলা গ্রাম থেকে তিন বছর মেয়াদি ডিএমএফ কোর্সে ভর্তি হয়েছেন সনিয়া আক্তার। ২০১৫ সালে এসএসসি পাশ করেছেন। এবছর তিনি এইচএসসি পরীক্ষা দিবেন। একই সঙ্গে তিন বছর মেয়াদি এই কোর্স করছেন তিনি। তিনি জানান, ৯মাস ধরে প্রতি সপ্তাহের শুক্র ও শনিবার এ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে আসেন। প্রতিদিন দুই ঘন্টা করে ক্লাস হয়। প্রশিক্ষন ক্লাস করান ইউসুফ আলী। তবে দু একদিন দুজন ডাক্তার ক্লাস নিয়েছেন তিন জানান। ভর্তির সময় তিন হাজার টাকা দিয়ে ভর্তি হয়েছেন । এখন প্রতিমাসে এক হাজার টাকা ফিস দেওয়া লাগে। ২ বছর ক্লাস করার পর এক বছর ইন্টার্নি করতে হবে বলে সে জানায়।
আসমা খাতুন এসেছেন উপজেলার ভাটপাড়া থেকে। তিনি ভর্তি হয়েছেন ডিএমএলটি কোর্সে। তিন হাজার একশ টাকা দিয়ে ভর্তি হয়েছেন। প্রতি মাসে দেওয়া লাগে এক হাজার টাকা করে।
উপজেলার চিৎলা গ্রাম থেকে ভর্তি হয়েছেন আবু হাসান নামের ষাটোর্ধ এক ব্যক্তি। তিনি এক বছর মেয়াদি এলএমএএফপি কোর্সে। এক হাজার সাতশ টাকা দিয়ে ভর্তি হয়েছেন। তিনিও প্রতিমাসে এক হাজার টাকা করে দিচ্ছেন।
চিকিৎসক নির্মাতা ইউসুফ আলী বলেন, এখানে প্রথম পর্যায়ে ৩৩ জন প্রশিক্ষনার্থী বিভিন্ন কোর্সে ভর্তি হয়েছিল। প্রথম পর্বের পরীক্ষায় ১৮ জন অংশ নিয়েছিল। এখন ১৫ জন মত আছে। তিনি জানান, এখানে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মেডিক্যাল অফিসার সাদিয়া সুলতানা সুমি ক্লাস নেন। তাকে প্রতি ক্লাসে সাতশ টাকা দেওয়া লাগে।
সরকারি কোন অনুমোদন আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বিভিন্ন দপ্তরে দেওয়া অবগতি পত্রগুলো দেখান। তিনি জানান এটি বিটিএফ (বাংলাদেশ টেকনোলজি ফাউন্ডেশন) পরিচালিত একটি শাখা অফিস। সারাদেশে এর ৭৮টি শাখা রয়েছে। তবে কোন সরকারি অনুমোদনের কাগজ দেখাতে পারেননি। বিভিন্ন কোর্সের শিক্ষার্থী একই ক্লাসে কিভাবে শেখানো হয় এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি ভিন্ন কোর্স হলেও দুএকটি ছাড়া সব কোর্সের বিষয়গুলো একই রকম তাই সমস্যা হয় না।
পরে তার দেওয়া তথ্য মতে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে মেডিক্যাল অফিসার সাদিয়া সুলতানা সুমির সাথে যোগাযোগ করে হলে জানা যায় তিনি বিডিএস পাশ করা। তিনি ডেন্টিষ্ট হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। তিনি প্যারামেডিক্যাল ও নার্সিং ট্রেণিং ইনষ্টি্িটউট এ ক্লাস নেওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন। আমি শুধু মাত্র একদিন ডেন্টিষ্টের ক্লাস নিয়েছি। তবে ওই প্রশ্ক্ষিন সেন্টারের ব্যাপারে সাফাই গেয়ে তিনি বলেন, আমি আগ্রহী তাদের ওখানে ক্লাস নেওয়ার জন্য।
গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্ত ডা. মাহবুবুর রহমান বলেন, প্যারামেডিকেল ও নার্সিং ইনষ্টিটিউট সম্পর্কে কোন তথ্য তাঁর জানা নায়। সিভিল সার্জন অফিস থেকে এগুলো তদারকি করা হয়। এ্কজন মেডিক্যাল অফিসার প্রাইভেট প্রাকটিসের মত যে কোন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ক্লাস নিতে পারেন। তবে দেখার বিষয় সেটি অনুমোদিত কিনা ?
এ ব্যাপারে মেহেরপুরের সিভিল সার্জন ডা. জিকেএম সামসুজ্জামানের কার্যালয়ে গিয়ে কথা বললে তিনি জানান, এ ধরণের কোন প্রশিক্ষন সেন্টারের অনুমোদন নেই। আমরা বিষয়টি তদন্ত করে ওই প্রশিক্ষণ সেন্টারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।
তিনি আরো বলেন, স্বাস্থ্য সেবা মানুষের দোড়গোড়ায় পৌছে দিতে সরকার কিছু শর্ট কোর্সের অনুমোদন দিয়েছে। সেটাকে পুঁজি করে কিছু অসাধু ব্যক্তির কাছে সাধারণ মানুষকে প্রতারিত হচ্ছে ও অপচিকিৎসার শিকার হচ্ছে।
তদন্ত কমিটি গঠন:
গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল অফিসার মো: সজিব উদ্দীন কে সভাপতি করে চার সদস্যর তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্যদের মধ্যে সদস্য সচিব স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান সহকারী মো: আসাদুল ইসলাম, সদস্য এমটিএসআই মো: মসীউর রহমান, স্টোর কিপার মো: দবির উদ্দীন আহমাদ।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান স্বাক্ষরিত আদেশ পত্রটি তদন্ত কমিটির সভাপতি মো: সজিব উদ্দীন হাতে পেয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন।
তিনি জানান, তদন্তের আদেশ পেয়ে ইতিমধ্যে প্যারামেডিকেল ও নার্সিং প্রশিক্ষণ ইনষ্টিউটের পরিচালক ইউসুফ আলী কে চিঠি পাঠানো হয়েছে। আগামি ৩ ফেব্রয়ারি শনিবার দুপুর ১২ টার সময় ওই প্রশিক্ষন কেন্দ্র পরিদর্শন ও তদন্ত করা হবে। প্রতিষ্ঠানের সকল কার্যক্রমের কাগজপত্র নিয়ে তাঁকে উপস্থিত থাকার জন্য বলা হয়েছে।

 

 

 

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.