Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / গাংনীতে জোর পূর্বক পৌর মার্কেট নির্মানের অভিযোগ :: রক্ষার দাবিতে একই পরিবারের অর্ধশত সদস্যর অবস্থান

গাংনীতে জোর পূর্বক পৌর মার্কেট নির্মানের অভিযোগ :: রক্ষার দাবিতে একই পরিবারের অর্ধশত সদস্যর অবস্থান

মেহেরপুর নিউজ,১৯ ফেব্রুয়ারি:
মেহেরপুরের গাংনী পৌর এলাকায় হাট সংলগ্ম আদালতে বিচারাধীন ১৩ শতক (০.১৩ একর) জমির মালিকানা দাবি করে পৌর মার্কেট ভবন নির্মান কাজ বন্ধ করে দিয়েছে স্থানীয় আজিম উদ্দিনের (মৃত) পরিবারের সদস্যরা।
রবিবার সকাল থেকে আজিম উদ্দিনের ছেলে মেয়ে পুত্রবধু, নাতি নাতনিসহ পরিবারের প্রায় অর্ধশত সদস্য জমিতে অবস্থান করে নির্মান কাজ বন্ধ করে দেয়। পৌর মেয়র জোর পূর্বক ওই জমি পৌরসভার দাবি করে সেখানে বহুতল মার্কেট ভবন করছেন বলে তারা অভিযোগ করেছেন। পৌর মেয়র তাদের প্রকাশ্য হত্যার হমকি প্রদান করেছেন বলে তারা আভিযোগ করেছে। এদিকে পৌরসভার পক্ষ থেকে পাল্টা দাবি করা হয়েছে ওই জমি পৌর সভার।
এনিয়ে মৃত আজিম উদ্দিনের ছেলে আব্দুল গণি সম্প্রতি গাংনী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন।
এ ঘটনায় এলাকায় আইনশৃঙ্খখলা অবনতির আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা। আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির স্বাভাবিক রাখতে সকাল থেকেই ওই এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
আজিম উদ্দীনের ছেলে আব্দুল গণি তার লিখিত অভিযোগে দাবি করেছেন, গাংনী মৌজার সাবেক ২০৫৬ দাগের ০.১৩ একর (১৩ শতক) জমি বাংলা ১৩৪২ সালে বন্দোবস্ত নিয়ে স্বত্তবান ও দখলী হয়। কিন্তু এসএ রেকর্ডে ভ্রমাত্মকভাবে সরকারের নামে রেকর্ড হয়। এর বিরুদ্ধে ১৯৮২ সালে আজিম উদ্দীন মেহেরপুর মুন্সেফ আদালতে দেওয়ানী মামলা দায়ের করেন এবং ইংরেজি ১৯৮৩ সালের ৮ মার্চ তিনি ডিক্রী প্রাপ্ত হন। এর বিরুদ্ধে সরকার পুনরায় মামলা দায়ের করলেও তা নামঞ্জুর হয়। এ আদেশের বিরুদ্ধে সরকার পক্ষ চুয়াডাঙ্গা-মেহেরপুর জেলা জজ আদালতে আপিল করে। মেহেরপুর বিজ্ঞ সাব জজ আদালত শুনানি শেষে মামলাটি খারিজ করে দেন। পরবর্তীতে সরকার পক্ষ ১৯৮৮ সালের ২৯ ফেব্রæয়ারী উচ্চ আদালতে সিভিল রিভিশন মামলা দায়ের করলেও ২০০১ সালের ১২ ফেব্রুয়ারী উচ্চ আদালতের এক আদেশে মেহেরপুর সাব জজ আদালতের রায় বহাল রাখেন। আজিম উদ্দীন মন্ডল মারা গেলে আব্দুল গণিসহ তার সাত ছেলে ও দুই কন্যা ওই সম্পত্তির ওয়ারিশ (মালিকানা ) হন। এ ছাড়াও আরএস রেকর্ড ভ্রমাত্মকের সংশোধনী জন্য ২০১৫ সালে মেহেরপুর যুগ্ম জেলা ২য় আদালতে দেওয়ানী মামলা দায়ের করেন আব্দুল গণি।
আব্দুল গণির বোন মাহফুজা বলেন, পৌরমেয়র আশরা ফুল ইসলাম আমাদের জনপ্রকাশ্যে হত্যার হুমকি পদান করেছেন। তিনি আমাদের পরিবারের সকলকে পৌরসভার ড্রেনে পুতে ফেলতে চেয়েছেন।
এদিকে ওই জমিতে থাকা জেলা পরিষদের মাধ্যমে নির্মিত টিনশেড মার্কেট ভেঙে গাংনী পৌর মেয়র ওই জায়গায় মার্কেট নির্মাণ শুরু করেন। পৌর মেয়র তার নিজস্ব লোক ও পৌর কর্মকর্তা কর্মচারীগণের উপস্থিতিতে গত বৃহষ্পতিবার থেকে দিন রাত নির্মাণকাজ করায় জনমনে যেমন মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। ভবনটি পৌর কর্তৃপক্ষ নির্মাণ করছে নাকি পৌর মেয়র আশরাফুল ইসলামের ব্যক্তিগত তা নিয়ে জনমনে নানা সংশয় দেখা দিয়েছে। বৈধভাবে মার্কেট নির্মিত হলে তা কেন রাতের আঁধারে নির্মাণ করা হচ্ছে এ প্রশ্ন জনমনে?
এদিকে রোববার সকালে মার্কেট নির্মাণস্থলে আজিম উদ্দিনে ছেলে, মেয়ে, পুত্রবধুসহ পরিবারের অর্ধশত সদস্য অবস্থান নেন। তারা মাটিকাটা এক্সকাভেটর (মাটি কাটা যন্ত্র) মেশিন বন্ধ করেন ও শ্রমিকদেরকে সরিয়ে দেন। সংবাদ পেয়ে পৌর মেয়র তার লোকজন নিয়ে আজিম উদ্দিনের পরিবারের লোকজনকে সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করলে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে পিছু হটেন পৌর মেয়র।
অন্য দিকে এক্সকাভেটর দিয়ে মাটি কাটায় পার্শ¦বর্তী আশরাফুজ্জামান বদিমের বহু তলা ভবনটি ঝুকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে বলে দাবী করেছেন আশরাফুজ্জামান বদিম। এ মুহুর্তে কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ হলে ওই বিল্ডিংটি ধ্বসে পড়তে পারে বলে আশংকা করছেন তিনি সহ স্থানীয়রা।
পৌর সচিব শামীম রেজা জানান, নিয়মানুযায়ি পৌর কর্তৃপক্ষ মার্কেট নির্মাণ করছেন। গত ১২ জানুয়ারী ঢাকা খেকে প্রকাশিত আমাদের সময় ও ডেইলি সান পত্রিকায় টেন্ডার আহবান করা হয় এবং চলতি মাসের ৯ তারিখে কাজের অনুমতি পান শহিদুল ট্রেডার্স। পৌরসভার নিজস্ব তহবিল থেকে ২৮ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত হবে পৌর মার্কেট।
এ ব্যাপারে পৌর মেয়র আশরাফুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বাংলা ১৩৪২ একটি ফর্দি তৈরি করে জমির মালিক দাবি করেন তারা। জমির মালিকই যদি হবেন তবে সিএস রেকর্ড, আর এস রেকর্ডে কেনো ওদের মালিকানা উঠলো না। আমি মেয়র হওয়ার পরপরই ওই হাট সংলগ্ন সকল ব্যবসায়ীকে বলে আসছি এখানে পুরাতন শেড ভেঙে নতুন মার্কেট করা হবে। ততদিন (প্রায় এক বছর) কেউ মালিকানা দাবি করলো না। যখন শেড ভাঙা শুরু করলাম তখন থেকে বলে জমির মালিক আমরা। তবে এ বিষয়ে সোমবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কার্যালয়ে বিষয়টি নিয়ে মিমাংসার জন্য বলা হয়েছে। দেখি ওথানে কি হয়। আদালতে বিচারাধীন বিষয়ে পৌর মেয়র বলেন, আদালত থেকে তো নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়নি। আদালতের মাধ্যমে যদি তারা মালিকানা ফেরৎ পায় তবে ওই মাকের্টের মালিক তারা হয়ে যাবে অসুবিধা কি?
গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন বলেন, বাজার এলাকায় আইন শৃঙ্খখলা পরিস্থিতি অবনতির আশঙ্কায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছিল। তবে এ বিষয়ে কেউ কোন অভিযোগ করেননি।
মেহেরপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম রসুল জানান, বিতর্কিত জমিতে রাতের আঁধারে জোর পূর্বক মার্কেট নির্মাণের কথা তিনি শুনেছেন। সরকারীভাবে নির্মিত শেড কিভাবে পৌর কর্তৃপক্ষ ভেঙ্গে ফেলেছেন এবং ওই জমি কার তা দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful