Templates by BIGtheme NET
Home / নির্বাচন / গাংনীতে নির্বাচনী অফিস ভাংচুরে মিশ্র প্রতিক্রিয়া

গাংনীতে নির্বাচনী অফিস ভাংচুরে মিশ্র প্রতিক্রিয়া

মেহেরপুর নিউজ, ১২ মার্চ:
মেহেরপুরের গাংনী উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রাথী ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের দুটি অফিস ভাংচুর নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।
সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার বেতবাড়িয়া গ্রামে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক এম এ খালেক ও পোড়াপাড়া গ্রামে স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক ওয়াসিম সাজ্জাদ লিখন ও উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মজিরুল ইসলামের নির্বচনী অফিস ভাংচুর করা হয়।
জানতে চাইলে নৌকা প্রার্থী এম এ খালেক বলেন আমরা বিগত দিন থেকে শান্তি পূর্ণভাবে নির্বচনী প্রচারণা করে আসছি, আমরা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে রাজনীতি করি আমরা সন্ত্রাস জঙ্গীবাদে বিশ্বাস করিনা। আমরা জনগনের ভালবাসা নিয়ে নির্বাচনে জয়লাভ করতে চাই। এবং আমাদের উন্নয়নেই জনগন আমাদের নৌকা প্রতীকে ভোট দিবে।
এম এ খালেক বলেন, আমার প্রতিদ্বন্দী প্রার্থীরা আওয়ামী লীগের পরিচয় দিয়ে রাজনীতি করে আবার আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ভোট করছেন এ বিষয়টি জনগন মেনে নিচ্ছেনা যে কারণে নিশ্চিৎ পরাজয় দেখে আজ আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করে জনগণের মন জয় করার চেষ্টা করছে। তিনি বলেন বেতবাড়িয়া গামে আমাদের নৌকা প্রতীকের নির্বচনী অফিস ভাংচুর করেছে স্বতন্ত্র প্রার্থী মজিরুল ইসলামের লোকজন। আমরা এর জবাব ব্যালটের মাধ্যমে দেব।
স্বতন্ত্র প্রার্থীদের অভিযোগ আওয়ামী লীগের প্রার্থী এম এ খালেকের লোকজন নির্বাচনী অফিস ভাংচুর করেছে। তারা জানান, আমাদের নির্বাচনী অফিসে নেতা কর্মী সহ স্থানীয় লোকজন বসে ছিল হঠাৎ রাতে ১০ থেকে ১৫ জন নৌকা প্রার্থীর সমর্থক মটরসাইকেল যোগে এসে আমাদের নির্বচনী অফিসে হামলা চালিয়ে চেয়ার টেবিল ব্যানার ফেস্টুন ত্রিপল ও মাইক ভেঙ্গে দেয় এবং নেতা কর্মীদের চড় থাপ্পড় মারে।
এদিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী ওয়াসিম সাজ্জাদ লিখন বলেন আমরা বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি করি জননেত্রী শেখ হাসিনার আদর্শে রাজনীতি করি আমরা জোর করে কারোর সাথে ভোট ছিনিয়ে নেওয়ার রাজনীতি শিখিনাই।
অপর স্বতন্ত্র প্রার্থী মজিরুল ইসলাম বলেন, জনগনের সমর্থনে আমি ভোটে দাড়িয়েছি । আমি জননত্রেী শেখ হাসিনার আদর্শে রাজনীতি করি আমি জনগনের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে চাই। তিনি বলেন ,আমি বিশ্বাস করি জনগণ আমাকে চাই এবং ভোট ছিনতাই বা জোর করে ভোট নেওয়ার রাজনীতি আমি করিনা। আজ যারা আমাদের নির্বাচনী অফিস ভাংচুর করেছে তারা জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে এ কাজ করেছে।
হামলা ভাংচুরের সাথে যারা জড়িত স্থানীয়রা তাদের বিচার দাবি করেছেন। এ ঘটনার পর এলাকায় মিশ্র পতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। সাধারণ ভোটারদের মাঝে এক ধরণের আতংক বিরাজ করছে এবং ভোটের প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলছে। সাধারন জনগণ সুষ্ঠ ও সুন্দর পরিবেশে তারা তাদের ভোট প্রয়োগ করতে চান এজন্য তারা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন।
গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হরেন্দ্রনাথ সরকার বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে, বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। নির্বাচনী অফিস ভাংচুরের বিষয়ে অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.