Templates by BIGtheme NET
Home / মিডিয়া / গাংনীতে সাংবাদিক লিটন মাহমুদের উপর পল্লী বিদ্যুতের দালাল চক্রের হামলা

গাংনীতে সাংবাদিক লিটন মাহমুদের উপর পল্লী বিদ্যুতের দালাল চক্রের হামলা

মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম, ১৬ অক্টোবর:

অনলাইন নিউজ পোর্টাল যমুনা নিউজ ডট কম ও কুষ্টিয়া থেকে প্রকাশিত আজকের সূত্রপাতের স্টাফ রিপোর্টার লিটন মাহমুদকে পিটিয়ে জখম করেছে মেহেরপুর পল্লী বিদ্যুৎ গাংনী জোনাল অফিসের দালাল চক্রের প্রধান জোবায়ের হোসেন উজ্জল হোসেন ও তার সঙ্গী ফার“ক।
আহত লিটন মাহমুদকে উদ্ধার করে প্রথমে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেছে চিকিৎসক।
বৃহস্পতিবার দুপুর দেড় টার দিকে পল­ী বিদ্যুতের গাংনী জোনাল অফিসের সামনে এ মারপিটের ঘটনা ঘটে।
পল­ী বিদ্যুতের দালাল জোবায়ের হোসেন উজ্জল গাংনী ভিটাপাড়া এলাকার জনৈক জালাল উদ্দীনের ছেলে ও গাংনী ডিগ্রী কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক বলে জানা গেছে। এছাড়া তার অপর সঙ্গী ফার“ক হোসেন গাংনী মহিলা কলেজ পাড়া এলাকার দিনমজুর মিরাজ হোসেনের ছেলে।
আহত সাংবাদিক লিটন মাহমুদ জানান, সংবাদ সংগ্রহের জন্য বেলা ১ টার দিকে পল­ী বিদ্যুতের গাংনী জোনাল অফিসে গেলে দালাল উজ্জল হোসেন ও ফারুক হোসেন কি কারনে অফিসে এসেছি তা জানতে চাই। আমি সাংবাদিক পরিচয় দিলে তারা নানা ভাবে গালি গালাজ করে। আমি তাদের গালাগালির প্রতিবাদ করলে লোহার এঙ্গেল দিয়ে পেটাতে থাকে। পরে চিৎকার দিলে স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করেন।
গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. খোকন রেজা জানান, সাংবাদিক লিটন মাহমুদের বাম চোখের নিচে গভীর জখম হয়েছে। ভাল চিকিৎসা না দিলে চোখটি নষ্ট হয়ে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান ডা. খোকন রেজা।
স্থানীয়রা জানান, জোবায়ের হোসেন উজ্জল ও ফারুক হোসেন ছাত্রলীগের নেতা পরিচয় দিয়ে গাংনী পল­ী বিদ্যুৎ অফিসে দীর্ঘদিন যাবৎ দালালী করে আসছে। বিদ্যুৎ প্রত্যাশী গ্রাহকরা পল­ী বিদ্যুৎ অফিসে কোন কাজে আসলে তাদের কাগজপত্র জোর করে কেড়ে নিয়ে টাকার বিনিময় পরে ফেরৎ দেয়।
পল­ী বিদ্যুতের মিটার লাগানো কে কেন্দ্র করে সা¤প্রতিক সময়ে স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে এ দগালাল চক্রটি লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। দালাল চক্রের হোতা উজ্জল হোসেন ও তার দোষরদের অত্যাচারে বিদ্যুৎ অফিস চত্তরে কোন লোকজন যাওয়ার সাহষ পাচ্ছেনা। তারা আরো অভিযোগ করে বলেন, উজ্জল হোসেন ছাত্রলীগের নেতা পরিচয় দিয়ে বিদ্যুৎ অফিসের দালালী করে হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা। এর ফলে বিদ্যুৎ প্রত্যাশী গ্রাহকরা এ দালালদের হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছে। ছাতিয়ান গ্রামের আওয়ামীলীগ নেতা মতিয়ার রহমান জানান, আমার নিজ ঘরের মিটার পরিবর্তন করার জন্য কিছুদিন আগে গাংনী পল­ী বিদ্যুৎ অফিসে গিয়েছিলাম। এসময় উজ্জল হোসেন নামের ঐ দালাল আমার কাছ থেকে বিদ্যুতের সকল কাগজপত্র ছিনিয়ে নিয়ে গিয়েছিল। পরে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা মহাসিন আলীর মাধ্যমে তাদের এক হাজার টাকা দিযে সে কাগজপত্র ফেরত পেয়েছি। একই উপজেলার মহম্মদপুর গ্রামের সাইফুল ইসলাম, হাড়াভাঙ্গা গ্রামের প্রবাসির স্ত্রী শিউলী খাতুন, ছাতিয়ান গ্রামের আবুল কালাম,সহ বেশ কয়েক জন বিদ্যুৎ প্রত্যাশী জানান, আমাদের মিটার নেওয়ার সিএমও হয়েছে। কিন্তু দালাল জোবায়ের হোসেন উজ্জল ও ফার“ক হোসেন আমাদের কাছ থেকে ২০ হাজার করে টাকা নিয়েছে। বিদ্যুৎ পাইয়ে দেয়ার জন্য। তাদের কাছে টাকা না দেওয়া পর্যন্ত আমাদের কোন কাজ হয়নি।
সাম্প্রতিক সময়ে গাংনী থানার সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) মিজানুর রহমান পীরতলা পুলিশ ক্যাম্প থেকে রাত ৯ টার সময় মটরসাইকেল যোগে ফেরার সময় ফার“ক হোসেন ও তার কয়েকজন সঙ্গী তাকে অজ্ঞাত কারনে তাড়া করে। দারোগা মিজানুর রহমান দ্র“তগতিতে মটরসাইকেল চালিয়ে এসে গাংনী উত্তরপাড়া দাড়িয়ে যায়। পরে সেখানে এসে ফার“ক হোসেন তাকে নানাভাবে গালাগাল শুর“ করে। এবং গাড়ি চেক করতে চাই। দারোগ মিজান নিজেকে গাংনী থানার দারোগ পরিচয় দিলেও তাকে ছাড় দেয়নি ফার“ক হোসেন। এক পর্যায়ে গাংনী থানায় খবর দিলে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ফার“ক হোসেনকে আটক করে গাংনী থানায় নেন। পরে গাংনী থানায় মুছলেকা দিয়ে গাংনী থানা থেকে ছাড়িয়ে নেন তার পরিবারের লোকজন। এএসআই মিজান জানান, অসৎ উদ্দ্যেশ্যে চোখতোলা মাঠের মাঝখানে আমাকে আটকানোর চেষ্টা করেছিল।
এলাকাবাসি জানান, ফর“ক হোসেন ও জোবায়ের হোসেন নামধারী ছাত্র হলেও বিভিন্ন সময়ে নামী দামী মটরসাইকেল ব্যবহার করে এলাকায় আতংক সৃষ্টি করে আসছে। এদিকে সাম্প্রতিক সমযে গাংনী শহরের বিভিন্ন অলিতে গলিতে বোমা বিস্ফোরণ ও বেশ কিছু দোকানের সামনে চাঁদার দাবীতে বোমা রাখা হয়। এসব বোমা রাখার বিষয়েও এ চক্রটি জড়িত বলে প্রশাসনের একটি সূত্র জানিয়েছে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.