Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / গাংনীতে হোটেলের শিশু শ্রমিককে নির্যাতন, থানায় অভিযোগ

গাংনীতে হোটেলের শিশু শ্রমিককে নির্যাতন, থানায় অভিযোগ

মেহেরপুর নিউজ, ২১ এপ্রিল:
মেহেরপুরের গাংনীতে হোটেলে কাজ করতে না চাওয়ায় লিখন হোসেন (১১) নামের এক শিশুকে নির্যাতন করেছে হোটেল মালিক বিশু।
শনিবার সকাল ৭ টার সময় গাংনীর বাশবাড়িয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নির্যাতিতা লিখন বাঁশবাড়িয়া পশ্চিমপাড়ার দিনমুজুর আতিয়ার রহমানের ছেলে।
নির্যাতনের শিকার লিখনের পিতা আতিয়ার রহমার জানান, সাংসারিক অভাব অনটনের কারনে গাঁড়াডোব হাটপাড়া এলাকার বিশুর হোটেলে মাসিক ৫শত টাকা চুক্তিতে কার ছেলে কাজ শুরু করে। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় তার ছেলে লিখন শারিরিক ভাবে অসুস্থ হওয়ার কারনে বাড়ি চলে আসে। শনিবার সকালে হোটেল মালিক বিশু তার ছেলে লিখনকে নিতে বাঁশবাড়িয়া গ্রামে তার বাড়িতে আসে। লিখন অসুস্থ থাকার কারনে কাজে যেতে না চাইলে বিশু লিখনের উপর অমানবিক অত্যাচার করে। এ ঘটনায় গাংনী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। নির্যাতনের শিকার লিখনের পিতা আতিয়ার রহমার আরো জানান,লিখনকে গাংনী হাসপাতালের জরুরী বিভাগে কর্তব্যরত চিকিতসক কে দেখানো হলে এক্স-রে করাতে বলে।
গাংনী থানার ওসি (তদন্ত) সাজেদুল ইসলাম অভিযোগ দেওয়ার বিষয়টি শিকার করে জানান, বিশুকে থানায় ডেকে আনা হয়। প্রাথমিক অবস্থায় আহত লিখনের চিকিৎসা বাবদ ২ হাজার টাকা দিয়েছে অভিযুক্ত বিশু। একারনে প্রাথমিক অবস্থায় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়নী। তবে মামলা দিলে গ্রহন করা হবে।
এদিকে গাংনী তাহের ক্লিনিকে নির্যাতিত লিখনের এক্স-রে করানো হচ্ছে এমন সংবাদ স্থানীয় সাংবাদিকরা সেখানে গেলে বিশুর স্ত্রী হামিদা খাতুন সাংবাদিকদের সাথে অসৌজন্য মুলক আচরন করে সংবাদ প্রকাশ না করতে হুমকী প্রদান করেন। বিশুর স্ত্রী হামিদা খাতুন সেভ দ্যা চিলড্রেনে কর্মরত রয়েছে। সেভ দ্যা চিলড্রেনের গাংনীর এলাকা সমন্নয়কারী সুনিল জানান,হামিদা গাড়াডোব অঞ্চলের সিসিজি কমিটির সদস্য। যেহেতেু শিশু কে রক্ষার পরিবর্তে নির্যাতন করেছে তাকে কমিটি থেকে বাদ দেয়া হবে ।
শিশু নির্যাতন ও শিশু শ্রম নিষিদ্ধ হলেও কিভাবে শিশুদের দিয়ে হোটেলে কাজ করা হলো তার তদন্ত করে ব্যবস্থা দাবি নির্যাতিতার পরিবার ও স্থানীয়দের।
এদিকে নির্যাতিতার পরিবারকে এ ঘটনায় মুখ না খোলার জন্য নানা ভাবে হুমকী প্রদান করছে বলে অভিযোগ করেছে ভুক্তভুগীর পরিবার। এদিকে অভিযুক্ত বিশুর সাথে যোগাযোগ করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নী। কুস্টিয়া শিশু শ্রম অধিদপ্তরের কর্মকর্তার সাথেও যোগাযোগ করা হলে তাকেও পাওয়া যায়নী।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.