Templates by BIGtheme NET
Home / কৃষি সমাচার / গাংনীর চিৎলায় বাধ দিয়ে মাছ চাষ :: ৪ শতাধিক বিঘা জমি পানিবন্দী

গাংনীর চিৎলায় বাধ দিয়ে মাছ চাষ :: ৪ শতাধিক বিঘা জমি পানিবন্দী

মেহেরপুর নিউজ,২৬ এপ্রিল:
মেহেরপুরের গাংনীর চিৎলা গ্রামের নালুয়ার বিলে বাধ দিয়ে মাছ চাষ করার কারনে জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। জলাবদ্ধতার কারনে বিলের পার্শবর্তী সমুহের অন্তত ৪ শতাধিক বিঘা জমি পতিত রয়েছে। জমিতে চাষাবাদ করতে না পেরে মানবেতর জীবন পার করছে চিৎলা এলাকার ৫ শতাধিক পরিবার। নালুয়ার খালের বাধ অপসারনে গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত আবেদন করেছে ভুক্তভুগিরা। এর আগে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও এলাকা বাসিকে বাধ অপসারনের প্রতিশ্রতি দিলেও অজ্ঞাত কারনে সেই বাধ আজও অপসারন করেনী চিৎলা গ্রামের আলিমুদ্দীনের ছেলে মহিদুল ইসলাম।
ভুক্তভুগিরা অভিযোগ করে বলেন,স্থানীয় প্রভাবশালী মহিদুল ইসলাম বেশ কয়েক বছর যাবৎ নালুয়ার বিলে বাধ দিয়ে মাছ চাষ করে আসছেন। একারনে বিলের পার্শবর্তী এলাকা পানিবন্দী থাকার কারনে অন্তত ৪ শতাধিক বিঘা জমিতে চাষাবাদ বন্ধ রয়েছে। এসব জমি চাষাবাদ না করতে পরার কারনে মানবেতর জীবন যাপন করছে এলাকাবসি। যেমনী খাদ্য সংকট দেখা দিতে পারে এলাকায়। মহিদুল ইসলাম জানান,বাধ দিয়ে মাছ চাষ অবৈধ একথা জেনে শুনে চাষ করছি। সময় মত বাধ সরিয়ে নেব।
স্থানীয়রা আরো অভিযোগ করেন বলেন, কয়েক দিনের মধ্যে বাধ অপসারন করা হবে বলে ২০১৫ সালের ২৩ অক্টোবর ধানখোলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের কাছে একটি লিখিত অঙ্গিকার নামা দিয়ে আসেন মাছচাষী মহিদুল ইসলাম। কিন্তু প্রভাবশালী হওয়ার কারনে আজও বাধ অপসারন করেনী সে। এ ঘটনায় এলাকায় চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। এদিকে বাধ অপসারনের দাবিতে বুধবার দুপর ১২ টার সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন করেছে ভুক্তভুগীরা। গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসার ভারপ্রাপ্ত এসএম জামাল আহমেদ জানান,স্থানীয় শতাধিক ভুক্তভুগীর স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ পেয়েছি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.