Templates by BIGtheme NET
Home / আইন-আদালত / গাংনীর বাহাগুন্দা গ্রামের রফিজুলের নামে ধর্ষন মামলা ।। আটক ১

গাংনীর বাহাগুন্দা গ্রামের রফিজুলের নামে ধর্ষন মামলা ।। আটক ১

মেহেরপুর নিউজ, ০৯ জুলাই:
মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার বাহাগুন্দা গ্রামের রফিজুল ইসলাম ওরফে লাল মিয়ার নামে ধর্ষণের অভিযোগে গাংনী থানায় মামলা হয়েছে। চুয়াডাঙ্গা জেলা শহরের হাসপাতাল বাজার এলাকার রমজান আলীর স্ত্রী জাহানারা খাতুন আজ সোমবার বাদী হয়ে গাংনী থানায় মামলাটি করেন।
গাংনী থানার তদন্ত কর্মকর্তা (তদন্ত ওসি) সাজেদুল ইসলাম জানান, রফিজুল ইসলাম ওরফে লাল মিয়াকে ১নং আসামী ও কালাম হোসেনের স্ত্রী হাজেরা খাতুনকে ২ নং তার মেয়ে কাকলী খাতুনকে ৩ নং আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন (সংশোধিত ২০০৩) এর ৭/৯(১)/৩০ ধারায় একটি মামলা করা হয়েছে। যার নং ১২, তারিখ ০৯/০৭/১৮ ইং। এ মামলায় কাকলী খাতুনকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। তবে প্রধান আসামী রফিজুল ইসলাম ওরফে লাল মিয়া ও ২ নং আসামী হাজেরা খাতুন পলাতক রয়েছে।
এদিকে ধর্ষিত কলেজ ছাত্রীর আগামীকাল মঙ্গলবার (১০ জুলাই) মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে ডাক্তারী পরীক্ষা সম্পন্ন করা হবে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সাজেদুল ইসলাম।
কলেজ ছাত্রী জানান, বেসরকারী একটি টিভি চ্যানেলের সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে তিন বছর আগে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে রফিজুল। রফিজুল ইসলাম নিজেকে অবিবাহিত ও এলাকার কোটিপতি পরিচয় দিয়ে বিয়ের প্রলোভন দিতে থাকে ধর্ষিতাকে। গত ৭ জুলাই সে তাকে মেহেরপুরে আসতে বলে। আমি তার ডাকে সাড়া দিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে আসি। সে আমাকে তার চাচা কালাম হোসেনের বাড়িতে রেখে প্রথম দিনে আমার ইচ্ছের বিরুদ্ধে চার বার ধর্ষণ করে। পরে গত ৮ জুলাই দিবাগত মধ্য রাতে গাংনী থানা পুলিশের একটি টীম আমাকে উদ্ধার করে।

ওসি তদন্ত সাজেদুল ইসলাম জানিয়েছেন, ওই কলেজ ছাত্রীটি চুয়াডাঙ্গার একটি ইয়াতিম খানায় থেকে লেখাপড়া করতো। এবছর সে ইন্টারমিডিয়েট পরীক্ষা দিয়েছে। তাকে প্রথম রাতে চার বার ধর্ষণ করেছে বলে প্রাথমিক ভাবে জানিয়েছেন ছাত্রীটি।
জানা গেছে, গাংনী উপজেলার জোড়পুকুরিয়া গ্রামের মুকুল হোসেনের মেয়ে কলেজ ছাত্রী রিতা খাতুন ধর্ষণের অভিযোগে একই গ্রামের কামরুজ্জামান খোকনকে প্রধান ও বাহাগুন্দা গ্রামের রফিজুল ইসলাম ওরফে লাল মিয়াকে ২ নং আসামী করে ২০১৭ সালের ২২ অক্টোবর একটি মামলা দায়ের করা হয়। যার নং জি আর ৩৩৫/১৭, বাহাগুন্দা গ্রামের জসির উদ্দীনের মেয়ে ডালিয়া নাসরিন বাদী হয়ে রফিজুল ইসলাম ওরফে লাল মিয়াকে ১ নং ও তার চাচা কালামকে ২ নং আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং ২৯৫/১৬ ইং। নারী নির্যাতন দমণ আইন ২০০০ (সংশোধিত ২০০৩) এর ৯(৪) (খ) ৩০ ধারা। একই গ্রামের আবেদ আলীরর ছেলে নুর ইসলাম বাদী হয়ে ছিনতাইয়ের অভিযোগে ২০০৮ সালে লাল মিয়াকে ১ নং আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। যার নং ০৭, তারিখ ১৪/০৪/২০০৮ ইং, ধারা ৩৪১/৩২৩/৩৭৯/দন্ডবিধি। একই ব্যাক্তি ২০১৬ সালে লাল মিয়াকে ২ নং আসামী করে একই ধারায় আরেকটি মামলা দায়ের করেন। যার নং ২৭. তারিখ ৩০/০৫/১৬ ইং। এসব মামলাগুলো বিচারাধীন রয়েছে বলে সূত্রটি জানিয়েছেন।
এলাকাবাসি জানিয়েছেন, গাংনী থানার ওসি হরেন্দ্রনাথ সরকার জানান, এ মামলার সহযোগী কাকলী খাতুনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। প্রধান আসামীসহ বাকী আসামীকেও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful