Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / স্পট::গাংনীর শিমুলতলা গ্রাম।। এক মাসেও ফিরে আসেনি স্বাভাবিক অবস্থা

স্পট::গাংনীর শিমুলতলা গ্রাম।। এক মাসেও ফিরে আসেনি স্বাভাবিক অবস্থা

Vangchur-1মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,২৫ মে:
জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে গাংনীর  শিমুলতলা গ্রামের বুদু মন্ডল ও মিনাপাড়া গ্রামের শামসুল হক গ্রুপের মধ্যে সৃষ্ট সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ২ জন নিহত হবার পর হামলা মামলা ও লুটপাটের ঘটনায় শিমুলতলা গ্রামটি এখন অনেকটা পুরুষ শুন্য। স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসেনি এক মাসেও। আবারো হামলা ও লুটপাটের আশংকা করছেন অনেকে।
শিমুলতলা গ্রামের বুদু মন্ডলের ছেলে খায়বার হোসেন জানান, তার পৈত্রিক সম্পত্তির ১৪ বিঘা বিঘা জমি নিজেদের বলে দাবি করে আওয়ামীলীগ সমর্থিত মিনাপাড়া গ্রামের শামসুল হক জোরপুর্বক দখল নিতে চাইলে গত ২২ এপ্রিল এক সংঘর্ষে আহত শামসুল হকের ছেলে মামুন ২৪ এপ্রিল ঢাকার একটি হাসপাতালে মারা যান। এ ঘটনায় মিনাপাড়া গ্রামের লোকজন সংঘবদ্ধ হয়ে শিমুলতলা গ্রামে হামলা চালায়। তারা আমার বাড়িসহ  ১৫টি বাড়ি ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে  ও ৫ বাড়িতে আগুন দেয়। এসময় রুস্তুম (৬০) নামের এক ব্যাক্তিকে হত্যা করে তারা।Ogni
গ্রামের আবু তাহের দাবী করেন, মিনাপাড়া গ্রাম ও আশপাশ গ্রামের অন্ততঃ ২’শতাধিক লোকজন শিমুলতলা গ্রামে হামলা চালায়। আমার বাড়ি সহ তারা ডা. সিরাজুল ইসলামের বাড়ি ভাংচুর করে ৪টি গরু , ৪টি ছাগল, নগদ ৪৫ হাজার টাকা, ৩০ মন তামাক, ২০ মন গম ও কাপড় চোপড় লুট করে। পরে আমার বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দিয়ে বাড়ির সমস্ত মালামাল পুড়িয়ে দেয়। একই ভাবে আবু তাহের, শাবান, হায়দার আলী, জয়দুল, ছালাম, কালাম, হযরত, মালেক, এমদাদ, লুৎফর ও কাউছারের বাড়ি ভাংচুর করে ও আগুন লাগিয়ে দেয়।
গ্রামের সিদ্দিক মেম্বার জানান, এঘটনায় গ্রামের লোকজন আতংকিত হয়ে গ্রাম ছেড়ে চলে গেলে ২৯ এপ্রিল ভোরে আবারো মিনাপাড়ার লোকজন সম্মিলিতভাবে হামলা জালায়। তারা স্কুল শিক্ষক মদিনা , হায়দার, সালাম ও কালামের বাড়িতে ঢুকে লুটপাট করে। এতে বাধা দেয়ায় সালাম ও কালামের স্ত্রীর শ্লীলতাহানী করে। লোক লজ্বার ভয়ে তারা পর দিনই গ্রাম ছেড়েছে। এ ছাড়াও আহসান নামের একজনের লিছু বাগান কেটে তছরূপ করে এবং  খায়বার মাস্টারের বাঁশ বাগান থেকে ৫১৩ টি বাঁশ কেটে নেয়। পুলিশকে জানানো হলেও অজ্ঞাত কারণে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসেনি।
Vangchurসরেজমিনে গ্রামটিতে গিয়ে দেখা গেছে সবাই আতংকিত। অনেকেই জানালেন, উভয় গ্রুপের লোকজনে পাল্টা পাল্টি মামলা করলেও পুলিশ শিমূলতলা গ্রামের লোকজনকে আটক করার জন্য খুঁজে বেড়াচ্ছে অথচ মিনাপাড়ার লোকজনকে কিছুই বলছেন না। হেমায়েতপুর পুলিশ ক্যাম্পের ইন্চার্জ নানা অজুহাতে টাকা নিচ্ছে। বাড়ি বাড়ি গিয়ে নানা হুমকিও প্রদান করছে। কেউ কেউ জানান, গ্রেফতার এড়াতে সন্ধার আগ থেকেই পুরুষ মানুষ অন্যত্র চলে যায়। মেয়েরা ভয়ে ভয়ে থাকে।
লোকজন গ্রামে থাকতে না পারায় চাষাবাদসহ সকল কাজে নেমে এসেছে স্থবিরতা। পরবর্তী হামলায় আশংকায় অনেকেই মালামাল নিয়ে চলে গেছেন অন্যত্র।
গাংনী থানার ওসি জানান, পরিস্থিতি আগের চেয়ে অনেকটা শান্ত ও স্বাভাবিক। তবে রাতের আঁধারে চোরেরা হানা দিতে পারে। তবে বিষয়টি দেখা হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful