Templates by BIGtheme NET
Home / ইতিহাস ও ঐতিহ্য / গাংনীর সাহারবাটিতে বর্ষবরণ উদযাপন

গাংনীর সাহারবাটিতে বর্ষবরণ উদযাপন

মেহেরপুর নিউজ,১৪ এপ্রিল:
বর্ণঢ্য আয়োজনের মধ্যদিয়ে গাংনী উপজেলার সাহারবাটিতে পহেলা বৈশাখ ১৪২৪ উদযাপিত হয়েছে।

শুক্রবার সকাল ৬ টা ৩০ মিনিটের সময় সুরে সুরে সুর্যোদয়,নব আনন্দে জাগো। সকাল সাড়ে ৮ টায় উনেস্কোঘোষিত সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের স্মারক ‘মঙ্গল শোভাযাত্রা’র মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সুচনা হয়।
সকাল ১০ টার সময় সাহরাবটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে উদ্বোধন ও আলোচনা সভা। মেহেরপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গোলাম রসুল ২ দিন ব্যাপী বৈশাখী মেলার উদ্ধোধন করেন। এসময় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মেহেরপুর-২ গাংনী আসনের সংসদ সদস্য মকবুল হোসেন।

বিশেষ অতিথি হিসাবে উস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) এসএম জামাল আহমেদ, গাংনী থানা অফিসার ইন্চার্জ আনোয়ার হোসেন,মেহেরপুর জেলাপুরষদের প্যানেল চেয়ারম্যান তৌহিদ মুর্শেদ অতুল, সাহারবাটি ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম ফারুক,কাথুলী ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান রানা,রাইপুর ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম সাকলায়েন সেপু,মটমুড়া ইউপি চেয়ারম্যান সোহেল আহম্দে, জেলা পরিষদের সদস্য মজিরুল ইসলাম, কৃষিবিদ আশরাফুল আলম স্বপন, গাংনী উপজেলা যুবমহিলালীগের সাধারণ সম্পাদিকা ফারহানা ইয়াসমিন।

তামজিদুর রহমান মুক্তির সভাপতিত্বে প্রধান আলোচক হিসেবে আলোচনা করেন কথাসাহিত্যিক রফিকুর রশিদ রিজভী ও আব্দুল্লাহ আল আমীন ধুমকেতু।

প্রধান আলোচক রফিকুর রশিদ রিজভি বলেন, আমরা বাঙ্গালী,আমরা বাংলাভাষায় কথা বলি। বাংলা নববর্ষ আমাদের সকলের। সম্রাট আকবরের শাসন আমল থেকে বাংলা নববর্ষ উদযাপন করে আসছে বাংলার প্রতিটি মানুষ। তাই বাংলাকে যেন আমরা না ভুলি, যেন না ভুলি বাংলা নববর্ষকে।

আব্দুল্লাহ আল আমীন ধুমকেতু বলেন, ১৯৭৩ সাল থেকে সাহারবাটির সকল শ্রেনী পেশার মানুষ একে একাকার হয়ে বাংলা নর্ববর্ষকে বাঙ্গালীর একটি পরিচয়ের অনুষ্ঠানিকতার দিন হিসাবে উদযাপন করে আসছে। অনেক চড়াই উৎরাই পার হতে হয়েছে আয়োজক কমিটিকে। তবুও সকল রক্ত চক্ষুকে উপেক্ষা করে আজো বাঙগালীর ঐতিহ্য বাংলা বর্ষবরণ উৎসবটি প্রতিবছর পালিত হয়ে আসছে। আমরা যেন এ ঐতিহ্যকে ভুলে না যায়।
এসময় সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা মমতাজ কাকলী,সাবেক চেয়ারম্যান আঃ গনি বিশ্বাস,মোখলেসুর রহমান।

আয়োজক কমিটির সদস্য সচিব হাফিজুর রহমান জানান, সর্ব প্রথম ১৯৭৩ সালে আমাদেও সাহারবাটিতে বর্ষবরণ উৎসব পালণ করি। তার পর ১৯৭৮ সাল থেকে নিয়মিতভাবে মেহেরপুর জেলার সবচেয়ে বড় অনুষ্ঠান হিসেবে সাহারবাটির মানুষ বর্ষবরণ উৎসব পালন করে থাকে । জেলার সর্বোচ্চ কর্তাব্যাক্তিদেও উপস্থিতে আয়োজিত উৎসব প্রানোজ্জল হযে ওঠে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful