Templates by BIGtheme NET
Home / ফিচার / গাংনী হাসপাতালে ছুটি ছাড়াই ৮দিন অনুপস্থিত আরএমও

গাংনী হাসপাতালে ছুটি ছাড়াই ৮দিন অনুপস্থিত আরএমও

মেহেরপুর নিউজ, ২২ জুন:
আবাসিক মেডিক্যাল কর্মকর্তা (আরএমও) হাসপাতালের জন্য এটি একটি গুরত্বপূর্ণ পদ। যেখানে ২৪ ঘন্টা হাসপাতালের দায়িত্ব পালন করার কথা। তিন বেলা খাবারের মানসহ হাসপাতালের অভ্যন্তরে যাবতীয় কার্যসম্পাদনা করার দায়িত্ব এই পদ মর্যাদার কর্মকর্তার। অথচ কাউকে কোন দায়িত্ব না দিয়ে মেহেরপুরের গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের (৫০ শয্যা হাসপাতাল) আরএমও ডা. এম কে রেজা গত ১৪ জুন থেকে ২১ জুন (৮দিন) রয়েছেন হাসপাতালের বাইরে। এ জন্য তিনি কোন ছুটিও নেননি এবং কাউকে কোন দায়িত্বও দেননি। উর্ধতন কোন কর্মকর্তা বিষয়টি জানেনও না। আর এভাবেই দিনের পর দিন গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি চলছে দায়িত্ব অবহেলা করা এই কর্মকর্তার অধিনেই।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চিকিৎসক এম কে রেজা ২০১২ সালের ৮ ডিসেম্বর গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জুনিয়র কনসালটেন্ট মেডিসিন পদের বিপরীতে যোগদান করেন। এর পর তৎকালীন আরএমও আনোয়ারুল ইসলাম বদলি হওয়ার পর থেকে জৌষ্ঠ চিকিৎসক কর্মকর্তা হিসেবে তিনি ভারপ্রাপ্ত আরএমও হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর মাসে। তার পর থেকে ভোগ করছেন সরকারি বাসভবন। সেখানে প্রতিদিন তিনি দুপুর ২ টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত প্রাইভেট চেম্বার হিসেবে রোগীর চিকিৎসা করে আসছেন। অভিযোগ রয়েছে, হাসপাতালে নির্ধারিত সময়েও তিনি মাঝে মাঝে প্রাইভেট রোগীর চিকিৎসা করেন।
সরকারি বাসভবনে টাঙানো নেমপ্লেটে তিনি শিশু ও মেডিসিন বিশেষজ্ঞ হিসেবে নিজেকে পরিচয় দিয়েছেন। অ্যাডহক ভিত্তিতে একটি প্রকল্পের মাধ্যমে তিনি চাকরিতে যোগদান করলেও পরবর্তিতে রাজস্ব খাতে অন্তর্ভুক্ত হোন। অথচ বিসিএস ক্যাডার না হয়েও তিনি নেমপ্লেটে বিসিএস (স্বাস্থ্য) লিখে রোগীদের সাথে প্রতারণা করে চলেছেন।
গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিসংখ্যানবিদ মনিরুল ইসলাম জানান, গত ১৪ তারিখ থেকে ২০ জুন পর্যন্ত জরুরী বিভাগে চিকিৎসা নিয়েছেন ৪৩৬ জন, বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিয়েছেন ৫২৩ জন (এর মধ্যে তিন দিন ছুটি ছিল), ভর্তি হয়েছেন ২৭৫ জন তার মধ্যে ৭৭ জন ডায়রিয়া রোগী ছিলেন।
এদিকে আরএমও টানা ৮দিন অনুপস্থিত থাকায় চিকিৎসকদের মাঝে সমালোচনা শুরু হয়েছে। পাশাপাশি মাতৃ মৃত্যুর ঘটনায় একটি তদন্ত কমিটির প্রধান আরএমওকে করায় তদন্ত কমিটির অন্য সদস্যরাও তদন্ত সম্পন্ন করতে পারছেন না। অথচ গত ১২ জুন তদন্ত কমিটি করে পরবর্তি পাঁচ কার্য দিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন সিভিল সার্জন।
ওই তদন্ত কমিটির সদস্য ডা. আশরাফি ইয়াসমিন জানান, আরএমও স্যার না থাকায় তদন্তটি করা যাচ্ছে না।
গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মাহবুবুর রহমান জানান, আর এমও ডা.এম কে রেজা একটি প্রকপ্লে যোগদান করে পরবর্তিতে তিনি রাজস্ব খাতে অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন। তিনি বিসিএস ক্যাডর নন। তিনি নিজেকে বিসিএস ক্যাডার হিসেবে পরিচয় দিয়ে থাকলে তা প্রতারণার শামিল। হাসপাতালে না থাকা নিয়ে তিনি জানান, আমি ছুটিতে ছিলাম। অন্য একজন কর্মকর্তা দায়িত্বে ছিলেন। বৃহস্পতিবার (আজ) সকালে যোগদান করে জানতে পারলাম তিনি দির্ঘদিন কাউকে না বলে হাসপাতালে অনুপস্থিত রয়েছেন। তার মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় যোগাযোগ করতে পারিনি। বিষয়টি উর্ধতন কতৃপক্ষকে জানিয়েছি।
ডা. মাহবুবুর রহমান আরো জানান, একজন আরএমও’র উপর হাসপাতালে সকল দায়িত্ব। ২৪ ঘন্টা তাকে সেই দায়িত্ব পালন করার বিধান রয়েছে। এ কারণে একজন উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্ত বাসভবন না পেলেও আরএমও’র জন্য বাসভবন বরাদ্দ রয়েছে।
এ ব্যাপারে মেহেরপুরের সিভিল সার্জন ডা. জিকেএম সামসুজ্জামান বলেন, আমি বুধবার গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করে আর এমও ডা. এম কে রেজার অনুপস্থিতির বিষয়টি জানতে পেরেছি। তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিয়েছি।
তবে আরএমও ডা. এম কে রেজার সাথে বৃহস্পতিবার সকাল থেৃকে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তাঁর মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। দুপুরের দিকে এ রিপোর্ট লেখার সময় ( দুপুর আড়াইটায়) পুনরায় যোগাযোগ করলে মোবাইল খোলা থাকলেও তিনি রিসিভ করেননি।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.