Templates by BIGtheme NET
Home / ফিচার / গুজবে কান :: মেহেরপুরে ‘ছেলেধরা’ আতঙ্ক

গুজবে কান :: মেহেরপুরে ‘ছেলেধরা’ আতঙ্ক

মেহেরপুর নিউজ,২৩ জুন:
সাইয়ান সামিল (৮) ও ইউসুফ সায়ান (২) দুই সহদর। মেহেপুর শহরের স্টেডিয়ামপাড়ায় তাদের বসবাস। অনেকটা গৃহবন্দি তারা দুই ভাই। শিশু বয়সের দুরন্তপনায় বাঁধ সেধেছেন তাদের মা সুখি ইসলাম। শিশুবয়সের মানসিক বিকাশে চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে তাদের। কিন্তু কেন তাদের মা শিশু দুটিকে এভাবে রেখেছেন ?
উত্তর খুজতে গিয়ে তাদের মা সুখি ইসলাম  প্রতিবেদককে বললেন, সন্তানের বাবা ব্যবসায়িক কাজে থাকেন চট্রগ্রামে। সন্তানদের দেখাশুনা থেকে সকল কাজ করতে হয় তাকে। রোযা শুরু হওয়ার কয়েকদিন পর থেকে মেহেরপুর শহর সহ জেলার বিভিন্ন স্থানে ছেলেধরা আতঙ্ক শুরু হয়। বিভিন্ন স্থানে ছেলেধরা সন্দেহে পুরুষ ও মহিলা আটক করে পুলিশে দিয়ে জনগণ এধরণের বিভিন্নœ খবরে আতঙ্কিত হয়ে ছেলেদের আর বাইরে যেতে দিতে ভয় লাগছে।
তিনি বলেন, মানসিক বিকাশে তারা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে জেনেও সন্তানদের বাইরে ছাড়তে পারছি না। ছেলেধরা আতঙ্ক না কাটলে শিশুরা এভাবে মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবে এবং অভিভাবকরাও আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছে।
শুধু সুখি ইসলাম নয়। এই আতঙ্কের চিত্র এখন সকল অভিভাবকদের মাঝে বিরাজ করছে।
তবে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে এটি গুজব ছাড়া আর কিছুই না। বিভিন্ন ভাবে তদন্ত করে এর কোন সত্যাতা মেলাতে পারেনি বলে পুলিশ জানিয়েছে। অভিভাবকদের আতঙ্ক কাটাতে পুলিশ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে সচেতনাতুলক কর্মসূচী হাতে নিয়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত শুক্রবার রাত ৯টার দিকে আমঝুপি জোয়ার্দার পাড়ার মুসলিম হোসেনের স্ত্রী রিনা খাতুন তার তিন বছর বয়সি কণ্যা সন্তান রাহাকে নিয়ে বাড়িতে বসে ছিলেন। এসময় তিন জনের একটি ছেলেধরা দল শিশুটিকে কোল থেকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। এসময় শিশুটির মায়ের সাথে ছেলেধরা দলের ধস্তাধস্তির ঘটনা ঘটে। এক পযার্য়ে ছেলেধরা দলের কাছে থাকে লোহার রড দিয়ে রিনা খাতুনকে এলোপাতাড়ি আঘাত করে। রিনা খাতুনের চিৎকারে এলাকাবাসী ছুটে আসলে ছেলেধরা দল শিশুটিকে ফেলে পালিয়ে যায়। পরে রিনা খাতুনকে উদ্ধার করে স্থানীয় ক্লিনিকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। তবে এটি ছেলেধরা নাকি অন্য কোন সূত্রতা তা এখনো পরিস্কার হওয়া যায়নি।
এছাড়া, সোমবার সকালে গাংনী উপজেলার চেংগাড়া এলাকা থেকে রহিদুল ইসলাম ও ইমাদুল ইসলাম নামের দুই জনকে সন্দেহমুলক আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দিয়ে জনতা। আটককৃতরা নিজেদের নির্দোষ দাবি করে এলাকায় খড় কাটার জন্য এসেছিলেন। তবে স্থানীয়রা জানান,চেংগাড়া মাঠে কোন খড় না থাকলেও তারা সন্দেহ মুলক ভাবে গত দুদিন যাবৎ চলাচল করছিল। তাদের গতিবিধি সন্দেহ মনে হলে ‘ছেলেধরা’ সন্দেহে আটক করে পুলিশে দেওয়া হয়েছে।

এদিকে,গত মঙ্গলবার দুপুরে মেহেরপুর সদর উপজেলার রাধাকান্তপুর গ্রাম থেকে বিলকিস খাতুন, মর্জিনা খাতুন ও মালেকা খাতুন নামের তিন মহিলাকে ছেলে ধরা সন্দহে আটক করা হয়েছে। তাদের তিনজনের বাড়ি চুয়াডাঙ্গা জেলায়। স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার দুপুরের দিকে রাধাকান্তপুর গ্রামে তারা প্রবেশ করে। তাদের চলাফেরা ও কথাবার্তায় সন্দেহ হলে তাদের আটক করে সদর থানায় খবর দেওয়া হয়। পরে সদর খানা পুলিশের একটি টিম তাদের আটক করে।
এছাড়াও সম্প্রতি মেহেরপুর শহরের স্টেডিয়ামপাড়ায় ছেলেধরা সন্দেহে এক মানসিক প্রতিবন্ধিকে গনপিটুনিয়ে দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে। একই ধরণের ঘটনা ঘটে গাংনী উপজেলার ধানখোলা গ্রামে।
এসকল বিভিন্ন কারণে অভিভাবকদের মাঝে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। শহরের একটি স্কুলও ছেলেধরা আতঙ্কের কারণে দুই দিন আগেই ছুটি ঘোষনা করেছে।
ছেলেধরা আতঙ্ক নিয়ে কথা হয় মেহেরপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল বাহার চৌধুরীর সাথে। তিনি জানান, ছেলেধরা বিষয়টি গুজবে পরিণত হয়েছে। কোন একটি চক্র এই গুজব ছড়াচ্ছে। আমাদের সন্দেহমুলক আটকদের জিজ্ঞাসাবাদ কর বিভিন্ন ভাবে তদন্ত করে ছেলেধরা’র কোন সত্যাতা পায়নি। অভিভাবকদেও মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে গ্রামে গ্রামে জনসচেতনতা বাড়ানোর চেষ্টা করছি।
সুজনের জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক শামিম জাহাঙ্গীর বলেন, বর্তমান প্রেক্ষিতে ‘ছেলেধরা’ শব্দটি গুজব ছাড়া আর কিছুই না। কোন একটি মহল জুজুর ভয় দেখিয়ে শিশুদের ঘরের মধ্যে রাখতে চাইছেন। যা শিশুর মানসিক বিকাশে অন্তরায়। এ অবস্থায় মুক্তি পেতে হলে সচেতনতা ছাড়া কোন উপায় নেই। সেই সাথে পুলিশকে সহযোগীতার হাত বাড়াতে হবে।
মেহেরপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ আল মাহমুদ  বলেন, সম্প্রতি এলাকায় ‘ছেলেধরা’ আতঙ্ক বিরাজ করছে। বিষয়টি গুরত্বের সাথে নিয়ে পুলিশের সকল ইউনিটকে বিষয়টি নিয়ে কাজ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে এখনও পর্যন্ত এটিকে গুজব বলেই মনে হচ্ছে। কারণ আতঙ্ক তৈরি হলেও এখন পর্যন্ত এলাকা থেকে কোন শিশু তারপরও পুলিশ আতঙ্ক কাটিয়ে উঠতে কাজ করছে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.