Templates by BIGtheme NET
Home / কৃষি সমাচার / চার বছরেও প্রতিকার হয়নি গমের ব্লাষ্ট রোগ, চলছে গবেষনা

চার বছরেও প্রতিকার হয়নি গমের ব্লাষ্ট রোগ, চলছে গবেষনা

মাহাবুব চান্দু, ০১ ফেব্রুয়ারি: (শুক্রবারের বিশেষ প্রতিবেদন)
ব্লাষ্ট রোগ গম চাষের জন্য বড় ধরণের হুমকি হয়ে দাড়িয়েছে মেহেরপুর সহ দেশের দক্ষিন পশ্চিমাঞ্চলে। এর কারণে মেহেরপুরে তিন বছর ধরে নিষেধাজ্ঞার কবলে গম চাষ। চাষীরা ব্যক্তিগত ভাবে কিছু চাষ করলেও সরকারি নিষেধাজ্ঞা এখনো বলবৎ রয়েছে। এর মধ্যে বিষেষজ্ঞ পর্যায়ে ব্লাষ্টের কারণ উদ্ভাবন, প্রতিরোধ পদ্ধতি ও প্রতিরোধী জাত উদ্ভাবনের গবেষনা চলছে। গবেষণা সফল হলে এক যুগান্তকারী উদ্ভাবনী দুয়ার খুলে যাবে। প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে ব্লাষ্ট ছত্রাককে।
জানা গেছে, কৃষি গবেষণা ফাউণ্ডেশনের (কেজিএফ) এর অর্থায়নে গমের ব্লাস্ট রোগ দমনে ময়মনসিংহস্থ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি), ময়মনসিংহস্থ বাংলাদেশ পরমানু কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউট (বিনা) ও মেহেরপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর (ডিএই) যৌথভাবে মেহেরপুরে গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা করছে।
বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালযের উদ্ভিদ রোগতত্ত¡ (প্ল্যান্ট প্যাথলজি) বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. বাহাদুর মিয়ার তত্বাবধানে ১২ জন এমএস শিক্ষার্থী এ বিষয়ে গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন। মেহেরপুর সদর উপজেলার নতুন মদনাডাঙ্গা রেজাউল হকের ২ বিঘা জমি লিজ নিয়ে সেখানে এ গবেষনা কার্যক্রম চালাচ্ছেন তারা।
মেহেরপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক ড. আখতারুজ্জামান জানান, গমের ব্লাস্ট একটি ক্ষতিকর ছত্রাকজনিত রোগ। ছত্রাকটির বৈজ্ঞানিক নাম ম্যাগনাপরথি অরাইজি (পাইরিকুলারিয়া অরাইজি) প্যাথোটাইপ ট্রিটিকাম। গমের শীষ বের হওয়া থেকে ফুল ফোটার সময়ে তুলনামূলক উষ্ণ ও আর্দ্র আবহাওয়া থাকলে এ রোগের সংক্রমণ ঘটতে পারে। রোগটি ১৯৮৫ সালে সর্বপ্রথম ব্রাজিলে দেখা যায় এবং পেের বিভিন্ন দেশে এর বিস্তার হয়।
বাংলাদেশে সর্বপ্রথম ২০১৬ সালের ফেব্রæয়ারি মাসের মাঝামাঝি সময়ে মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গা, কুষ্টিয়া, ঝিনাইদহ, বরিশাল ও ভোলা জেলার প্রায় ১৫ হাজার হেক্টর জমিতে এ রোগের প্রাদুর্ভব দেখা যায়, যা মোট গম আবাদি জমির প্রায় ৩ শতাংশ। তবে রোগটি প্রথম সনাক্ত করা হয় মেহেরপুর জেলাতে। এ রোগের কারণে আক্রান্ত গমের ফলন শতকরা ২৫ থেকে ৩০ ভাগ কমে যায় এবং ক্ষেত্র বিশেষে কোনো কোনো ক্ষেতের ফসল প্রায় সম্পূর্ণ বিনষ্ট হয়ে যায়।
মেহেরপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও গবেষণা টিমের সদস্যদের কাছে থেকে জানা গেছে, গমের ব্লাস্ট আক্রমণের পর থেকে বিগত চার বছরে এটা নিয়ে দেশ বিদেশীদের গম বিজ্ঞানীরা ব্লাস্ট আক্রান্ত এলাকা সমূহ পরিদর্শন করে এটাকে নির্মুল করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।
ওদিকে বাংলাদেশে গমের ব্লাস্ট রোগ দমনের জন্য মেক্সিকোতে অবস্থিত আন্তর্জাতিক গম ও ভুট্রা গবেষণা ইনষ্টিটিউটও (সিমিট: CIMMYT:The International Maize and Wheat Improvement Center) বাংলাদেশের গম বিজ্ঞানীদের সাথে একসাথে কাজ করে যাচ্ছেন। ছোট বড় মিলিয়ে এখানে প্রায় ১১ টি পরিক্ষা পরিচালনা করা হচ্ছে। তবে গবেষনায় ৭টি কার্যকরী পদ্ধতি প্রয়োগ করা হচ্ছে। এর মধ্যে যে পদ্ধতিটি ব্লাষ্ট প্রতিরোধ ভুমিকা রাখবে সেটিও গবেষনার চুড়ান্ত ফলাফল হিসেবে ধরা হবে। আগামি দুই মাসের মধ্যে এর চুড়ান্ত প্রতিবেদন পাওয়া যাবে বলে আশা করছেন গবেষক দল। কার্যকরী পদ্ধতিগুলো হচ্ছে- ছত্রাকনাশকের কার্যকারিতার পরিক্ষা, মাটিতে সার প্রয়োগ, পাতায় সার প্রয়োগ, বীজবাহিতের পরিক্ষা, বিভিন্ন জাতের গমে ব্লাস্ট প্রতিরোধী পরিক্ষা, মিউটেশন পরিক্ষা , মসুরের সাথে শস্য পর্যায় অবলম্বন। এছাড়ার আরো চার ধরণের পদ্ধতি গবেষণা পরিক্ষণ হিসেবে চালানো হচ্ছে।
মেহেরপুর সদর উপজেলার গোভীপুর গ্রামের গম চাষী মিরাজুল ইসলাম জানান, তিনি এ বছর তিন বিঘা জমিতে গমের চাষ করেছেন। এর মধ্যে দেড় দেড় বিঘা আগাম গম চাষ করেছেন। গমে আর কিছুদিন পর শীষ আসবে। তখন বোঝা যাবে ব্লাষ্ট রোগ হবে কিনা। তবে এই রোগটি নিয়ে আমরা খুব দূশিন্তায় আছি। এই রোগটি একটি শীষে হলেও পুরো জমিতে ছড়িয়ে পড়ে। গমের দানা হয় না। কুষি অফিস থেকে ওষুধ (বালাইনাশক) স্প্রে করতে বলেছে। আমরা সেভাইে ওষুধ স্প্রে করছি।
শামিমুল ইসলাম নামের মেহেরপুর শহরের এক গম চাষী জানান, গত বছর দুই বিঘা জমিতে গম চাষ করেছিলেন। ব্লাষ্ট রোগে আক্রান্ত হওয়ায় দুই বিঘা জমি থেকে মাত্র ৭ মন গম পেয়েছিলেন। তবে সেই গম খাওয়ার উপযোগী ছিলনা বলে তিনি জানান। এ কারণে এ বছরে তিনি গমের চাষ করেননি।
গবেষনা দলের অন্যতম সদস্য নাবেদ মাহমুদ জানান, আশা করছি গমের ছত্রাকজনিত রোগ ব্লাষ্ট রোগের কারণ উৎঘাটন সহ প্রতিরোধ ব্যবস্থা উদ্ভাবন করা সম্ভব হবে। এর জন্য আরো দুই মাস সময় লাগবে। প্রফেসর ড. বাহাদুর মিয়া উদ্ভিদের রোগতত্ত¡ নিয়ে অনেক অভিজ্ঞ। তার নেতৃত্বে আমরা এই গবেষনা কার্যক্রম পরিচালনা করছি। আশা করছি আমরা একটি যুগান্তকারী উদ্ভাবন করতে সক্ষম হবো।
ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ধিব রোগতত্ত¡ বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. বাহাদুর মিয়া  বলেন, ব্লাষ্ট গমের চাষের জন্য বড় ধরণের হুমকি হয়ে দাড়িয়েছে। আমরা এক বছর ধরে ব্লাষ্ট প্রতিরোধী গমের জাত উদ্ভাবনের গবেষনা চালাচ্ছি। আরো দুই বছর সময় লাগতে পারে। এই গবেষনাটি বাংলাদেশেই প্রথম হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, তবে বালাই নাশক ব্লাষ্ট আক্রান্ত হওয়ার আগে স্প্রে করলে প্রতিরোধ হতে পারে। এছাড়া প্রোভেক্স নামক এক ধরণের ওষুধ বীজে মিশিয়ে (প্রতিকেজি বীজে ৩ গ্রাম) বপন করলে প্রতিকার পাওয়া যেতে পারে। প্রতিরোধী জাত উদ্ভাবন না হওয়া পর্যন্ত স্থায়ী সমাধান হবে না।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.