Templates by BIGtheme NET
Home / আইন-আদালত / ‘চিকিৎসক তৈরির ফাঁদ’ :: গাংনীর সেই প্রতিষ্ঠান সিলগালা

‘চিকিৎসক তৈরির ফাঁদ’ :: গাংনীর সেই প্রতিষ্ঠান সিলগালা

ফাইল ছবি

মেহেরপুর নিউজ, ২৭ ফেব্রুয়ারি:
কালের কণ্ঠ, মেহেরপুর নিউজসহ কয়েকটি পত্রিকায় ধারাবাহিকভাবে সংবাদ প্রকাশের পর মেহেরপুরের গাংনীর সেই ‘চিকিৎসক তৈরির ফাঁদ’ ‘প্যারামেডিকেল এন্ড নার্সিং প্রশিক্ষণ ইনষ্টিটিউট’ সিলগালা করে দিয়েছে ভ্রাম্যামান আদালত।
মঙ্গলবার দুপুরে গাংনীর সহকারি কমিশনার (ভুমি) ও নির্বাহি ম্যাজিষ্ট্রেট মো: দেলোয়ার হোসেন এ অভিযান পরিচালনা করেন। গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য  কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল অফিসার ও ওই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে গঠিত তদন্ত কমিটির সভাপতি মো: সজিব উদ্দিন ভ্রাম্যমান আদালতের সময় উপস্থিত ছিলেন। এসময় প্যারামেডিকেল এন্ড নার্সিং প্রশিক্ষণ ইনষ্টিটিউট ভাড়া নেওয়া কার্যালয়টি সিলগালা করে দেন এবং সাইনবোর্ডটিও নামিয়ে দেওয়া হয়। অভিযান চলাকালীন সময়ে প্রতিষ্ঠানের পরিচালক ইউসুফ আলী পলাতক ছিলেন।
তদন্ত কমিটির সভাপতি গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল অফিসার মো: সজিব উদ্দীন জানান, ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার সময় তদন্ত কমিটির প্রধান হিসেবে তাকে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ডেকে নেওয়া হয়। প্রতিষ্ঠানটি সিলগালাসহ সাইনবোর্ড নামিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে প্রতিষ্ঠান পরিচালক ইউসুফ আলী ও তাদের মূল প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ টেকনোলজী ফাউন্ডেশনের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেওয়া হবে কিনা প্রশাসনিক কর্মকর্তারা বলতে পারবেন।
নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো: দেলায়ার হোসেন জানান, পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ ও বিভিন্ন অভিযোগ থাকায় জেলা প্রশাসক এর নির্দেশে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়। তিনি জানান, মেডিক্যাল প্রাকটিস এবং বেসরকারী ক্লিনিক ও ল্যাবরেটরী (নিয়ন্ত্রণ) অধ্যাদেশ ১৯৮২ এর ৮ ও ১৩ ধারা বিধান অনুযায় প্রতিষ্ঠানটি সিলগালা করে দেওয়া হয়েছে এবং সাইনবোর্ডও নামিয়ে দেওয়া হয়েছে। তিনি আরো জানানম প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক পলাত রয়েছেন। তিনি যদি সিলগালা ভেঙে আবারো প্রতিষ্ঠান চালু করার চেষ্টা করেন তখন তার বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী মামলার ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
ফিরে দেখা:
গত ৩০ জানুয়ারি মেহেরপুর নিউজ  ও কালের কণ্ঠ’র প্রিয় দেশ পাতায় গাংনী প্যারামেডিক্যালও নার্সি প্রশিক্ষণ ইনষ্টিটিউট নিয়ে সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। প্রকাশিত সংবাদে ইউসুফ আলী নামের এক ব্যক্তি নিজেই তিন বছর, দুই বছর মেয়াদি বিভিন্ন চিকিৎসক কোর্সের প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন। বিভিন্ন কোর্সের বিভিন্ন শিক্ষার্থী একই সঙ্গে প্রশিক্ষণ দিতে দেখা যায়। প্রতিবেদনে ওই প্রতিষ্ঠানের কোন সরকারি অনুমোদন নাই বলে উল্লেখ করা হয়। প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়ার পর স্বাস্থ্য বিভাগের টনক নড়ে। ওই দিনই সিভিল সার্জন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাকে প্রতিষ্ঠানটি বিরুদ্ধে চার সদস্য একটি তদন্ত কমিটি গঠনের নির্দেশ দেন। গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল অফিসার মো: সজীব উদ্দিনকে সভাপতি করে চার সদস্যর তদন্ত কমিটি করা হয়। কমিটির অন্য সদস্যদের মধ্যে সদস্য সচিব স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান সহকারী মো: আসাদুল ইসলাম, সদস্য এমটিএসআই মো: মসীউর রহমান, স্টোর কিপার মো: দবির উদ্দীন আহমাদ। তদন্তের আদেশ পেয়ে ৩ ফেব্রয়ারি শনিবার প্রতিষ্ঠানটি তদন্ত করে সপ্তাহ খানেক পর তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেন।
পরে কালের কণ্ঠ’র প্রিয় দেশ পাতায় গত ১ ফেব্রুয়ারি ‘গাংনীর সেই প্রতিষ্ঠানের তদন্ত হবে’, ৫ ফেব্রুয়ারি ‘সেই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অনিয়ম পেয়েছে তদন্ত কমিটি’ এবং ১২ ফেব্রুয়ারি ‘সেই বন্ধের সুপারিশ’ শিরোনামে ধারাবাহিক সংবাদ প্রকাশ হয়।
এদিকে, তদন্ত কমিটি তদন্ত করার পর থেকে ইউসুফ আলী আত্মগোপনে রয়েছেন। তারপর থেকে প্রতিষ্ঠান প্রশিক্ষণ কার্যক্রম বন্ধ ছিল। তদন্ত কমিটি তাদের প্রতিবেদন জমা দেওয়ার পর জেলা প্রশাসনের ও স্বাস্থ্য বিভাগের উদ্যোগে ভ্রাম্যামান আদালত পরিচালনা করে প্রতিষ্ঠানটি সিলগালাসহ সাইনবোর্ড নামিয়ে দেওয়া হয়।

 

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.