Templates by BIGtheme NET
Home / রাজনীতি / জিততে মরিয়া আ.লীগ প্রার্থীরা, পথের কাঁটা বিদ্রোহী

জিততে মরিয়া আ.লীগ প্রার্থীরা, পথের কাঁটা বিদ্রোহী

upমেহেরপুর নিউজ, ২২ এপ্রিল:
রাত পোহালেই মেহেরপুর সদর উপজেলার আমঝুপি, বুড়িপোতা, কুতুবপুর ও পিরোজপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ।
৩য় ধাপে আগামী ২৩ এপ্রিল মেহেরপুর সদর উপজেলার ৪টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে শেষ সময়ে প্রচারণায় ব্যাস্ত রয়েছেন প্রার্থীরা। তবে সদরের আমঝুপি ও পিরোজপুর ইউনিয়নে আ.লীগ প্রার্খীরা গতবার পরাজিত হওয়ায় এবার নির্বাচনে জিততে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে । ভোটারদের নানা রকম হুমকি ধামকিসহ সন্ত্রাসী বাহিনীদের দিয়ে বিরোধীদের নির্বাচনী অফিস ভাংচুরসহ সাধারণ ভোটারদের মধ্যে ভীতি সঞ্চার করে যাচ্ছেন বলে অভিযোগ বিরোধীদের।  তবে তাদের পথে কাঁটা হয়ে দাড়িয়েছে দলের বিদ্রোহীরা।

সদরের পিরোজপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদন্দিতা করছেন আ.লীগ প্রার্থী জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও স্থানীয় সাংসদের দুল্ভাাই সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সামাদ বাবলু বিশ্বাস, বিএনপির প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান সামসুল আলম এবং আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি সালেহ আল আজিজ (টনিক বিশ্বাস)।

সরেজমিনে পিরোজপুরের বারাদি এলাকায় নির্বাচনের খোঁজ খবর নিতে গেলে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী টনিক বিশ্বাস অভিযোগ করে বলেন, আ.লীগ প্রার্থী আব্দুস সামাদ বাবলু বিশ্বাস প্রকাশ্যে বিভিন্ন নির্বাচনী সভায় ভোটারদের নানাভাবে হুমকি ধামকি দি্েচ্ছন। তিনি বলেন, বলিয়ারপুর গ্রামের তাহের আলী নামের তার কর্মিকে হুমকি দিলে সে মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। এছাড়া তিনি আরো অভিযোগ করে বলেন, ‘যারা নৌকা ভোট দিবেন না তারা কোনো ভোট কেন্দ্রে যাবেন না’ বলে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুস সামাদ বাবলু বিশ্বাস বিভিন্ন নির্বাচনী সভায় ভোটারদের প্রকাশ্যে হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন। টনিক বিশ্বাস বলেন, সুষ্ঠভাবে ভোটগ্রহণ হলে তিনি জয়লাভ করবেন। এর আগে আ.লীগ প্রার্থীর কর্মীরা বিএনপি প্রার্থীর এক কর্মি মাদ্রাসা শিক্ষকের উপর হামলা চালালে বর্তমানে সে পঙ্গুত্ব বরণ করে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এখানে সুষ্ঠ নির্বাচন নিয়ে আশংকা প্রকাশ করেছেন আ.লীগের বিদ্রোহী  ও এবং বিএনপি প্রার্থী।

তবে এ ব্যাপারে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুস সামাদ বাবলু বিশ্বাস বলেন, টনিক বিশ্বাস এক ধরণের প্রতারক হিসেবে এলাকায় পরিচিত। দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে সে বিভিন্ন যায়গায় আমার বিরুদ্ধে কুৎসা রটিয়ে বেড়াচ্ছে। তিনি বলেন, সাধারণ ভোটাররা তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিবে। এতে আমি প্রার্থী হিসেবে তাদের কাছে ভোট প্রার্থনা করছি। কোনো ভোটারকে হুমকি দেয়ার তো প্রশ্নই আসেনা।

আমঝুপি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদন্দীতা করছেন আ.লীগ প্রার্থী সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান বোরহান উদ্দিন চুন্ন, বিএনপি প্রার্থী উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম, আ,লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সাব্কে উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা আ্ব্দুল মালেক মোল্লা, স্বেচ্ছাসেবকলীহ নেতা মতিয়ার রহমান, বিএনপি প্রার্থীর ভাই স্বতন্ত্র প্রার্থী শফিকুল ইসলাম ও আকতার হোসেন। আমঝুপি ইউনিয়নে আ.লীগ প্রার্থীর কর্মীরা সাধারণ ভোটারদের মধ্যে ভয়ভীতি প্রদর্শন করছেন এমন অভিযোগ বিএনপি প্রার্থীর। দুদিন আগে গভীর রাতে ২০/২৫টি মোটরসাইকেল একত্রিত হয়ে তারা বিভিন্ন এলাকায় হামলা চালিয়ে বেশ কিছু বিএনপির নির্বাচনী অফিস ভাংচুর করেছে। গত নির্বাচনে হেরে গিয়ে এবার দল ক্ষমতায় থাকায় নির্বাচনে জিততে মরিয়া হয়ে উঠেছে আ.লীগ প্রার্থী। এখানে বিএনপি প্রার্থীও কৌশলে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। তার ভাই শফিকুল ইসলামকে ডেমি প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে রেখে দিয়েছেন।

বিএনপি প্রার্থী সাইফুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী আমার প্রচার প্রচারনায় নানাভাবে বাধা প্রদান করছেন। তার সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে নির্বাচনী অফিস ভাঙচুর করছে। এ অবস্থায় সুষ্ঠ নির্বাচন নিয়ে তিনি শঙ্কিত।

তবে আওয়ামীলীগ প্রার্থী বোরহান উদ্দিন চুন্ন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমার বিরোধীপক্ষ যে অভিযোগ করছে তা ভিত্তিহীন। তারা জনগনের দ্বারে দ্বারে গিয়ে সব জায়গায় প্রত্যাখান হয়েছে। তারা বিভিন্নভাবে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করছে।

বুড়িপোতা ইউনিয়নে প্রতিটি দল থেকে একজন করে প্রার্থী চেয়ারমান পদে প্রতিদদন্দীতা করছেন। এখানে আ.লীগ প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি শাহজামাল, বিএনপি প্রার্থী উপজেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক অ্যাড, সাইদুর রাজ্জাক, এবং জামায়াতে ইসলামের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ মুকুল। এখানে কোনো প্রার্থীর বিপক্ষে কারো কোনো অভিযোগ এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। তবে আ.লীগের মনোনয়ন বঞ্চিতদের নিয়ে চিন্তার ভাজ পড়েছে আ.লীগ প্রার্থী শাহজামালের কপালে এমনটি জানালেন খোদ প্রাথীই।

কুতুবপুর ইউনিয়নে বিএনপি ও আ.লীগ থেকে মাত্র একজন করে চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদন্দীতা করছেন। আ.লীগ প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান ইদ্রিস আলী মাষ্টার বিগত সময়গুলোতে দলের জৌষ্ঠ নেতাকর্মীদের প্রাধান্য না দেওয়ায় সেখানে তার পরাজয়ের পাল্লাটাই ভারী বলে মনে করছেন সাধারণ ভোটাররা।

উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, সদরের ৫টি ইউনিয়নের মধ্যে ৪টি ইউনিয়ন পরিষদের ভোট গ্রহন হবে। সীমানা জটিলতার কারনে আমদহ ইউনিয়ান পরিষদের নির্বাচন হচ্ছেনা। চার ইউনিয়নের ১ লাখ ৩৫ হাজার ৯৯৫ জন ভোটার (২০১৫ সালের হালনাগাদ ) রয়েছেন।  ভোটগ্রহণের লক্ষ্যে ৫৯টি কেন্দ্রে ৪২০টি বুথ নির্ধারণ করা হয়েছে। নির্বাচনে আ.লীগের ৪জন, বিএনপি’র ৪জন, জামায়াতের একজন, আলীগের বিদ্রোহী ৩ জনসহ ১৪জন প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে প্রতদ্বন্দীতা করছেন।

উপজেলা নির্বাচন অফিসর ও রিটার্নিং অফিসার কবির উদ্দিন বলেন, কিছু এলাকা থেকে মৌখিক অভিযোগ পেয়ে প্রাথীদের সতর্ক করে দেয়া হয়েছে। এরপরেও অভিযোগ আসলে প্রয়োজনে ভোটগ্রহন বর্জনসহ অভিযুক্তদের বিরুদ্দে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এমনকি প্রার্থীতা বাতিলের সিদ্ধান্তও নেয়া হতে পারে বলে তিনি জানান। কবির উদ্দিন বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠভাবে পরিচালনার জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যক বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ কেন্দ্রে কেন্দ্রে মোতায়েন থাকবে। এছাড়াও ইউনিয়নে একটি করে ভ্রাম্যমান আদালত দায়িত্ব পালন করবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful