Templates by BIGtheme NET
Home / নির্বাচন / তৃণমূলের সাথে আমার একটি সম্পর্ক সৃষ্টি হয়েছে— মো: জাকির হোসেন

তৃণমূলের সাথে আমার একটি সম্পর্ক সৃষ্টি হয়েছে— মো: জাকির হোসেন

মেহেরপুর নিউজ,২৪ জুলাই:

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের মাঝেও আলোচনা শুরু হয়েছে। সম্ভাব্য প্রার্থীরাও নির্বাচনী মাঠে গনসংযোগ শুরু করেছেন। কে পাচ্ছেন আওয়ামীলীগের মনোনয়ন, কে পাচ্ছেন বিএনপির, কে জাতীয় পার্টির এমনকি জামায়াত ইসলামি থেকে কেউ প্রার্থী হচ্ছেন কিনা এ ধরণের নানা প্রশ্ন এখন ঘুরপাক খাচ্ছে। যদিও নির্বাচনের এখনো দেড় বছর বাকি আছে।
এরই ধারাবাহিকতায় মেহেরপুর নিউজ তার পাঠকদের জন্য সকল দলের সম্ভাব্য প্রার্থী যারা মাঠ দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। দলের আস্থাভাজন হওয়ার চেষ্টায় গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন সে সকল প্রার্থীদের মুখোমুখি হচ্ছে মেহেরপুর নিউজ। আমাদের প্রতিবেদকরাও ছুটছেন সেকল প্রার্থীদের কাছে। তাঁদের নির্বাচনী পরিকল্পনা, এলাকার উন্নয়ন পরিকল্পনা, দলীয় পরিকল্পনা খুটি নাটি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে থাকছে প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার।
আজ থাকছে জেলা বিএনপির নির্বাহী সদস্য ও শিক্ষক নেতা মো: জাকির হোসেনের সাক্ষাৎকার। সাক্ষাৎকারটি গ্রহণ করেছেন আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক সাইদ হোসেন।

মেহেরপুর নিউজ: মেহেরপুর নিউজের পক্ষ শুভেচ্ছা। আগামী সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে মনোয়ন চাইবেন শোনা যাচ্ছে? এ বিষয়ে আপনার বক্তব্য।
মো: জাকির হোসেন: আমি প্রথমেই মেহেরপুর নিউজকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি যে তারা অক্লান্ত পরিশ্রমের মাধ্যমে মেহেরপুর নিউজকে অনন্য উচ্চতায় তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছে। আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি যে আমাকে মেহেরপুর নিউজের মাধ্যমেই আমার প্রিয় মেহেরপুরবাসীর কাছাকাছি যাওয়ার সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছে। আপনার প্রশ্নের উত্তরে জানাচ্ছি যে, আমি দীর্ঘদিন থেকে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের সাথে বিভিন্নভাবে কাজ করে যাচ্ছি। মাননীয় দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া যখন যে নির্দেশ দিয়েছেন তা পালন করার চেষ্টা করেছি। সুতরাং, দলের শীর্ষপর্যায়ে নেতৃবৃন্ধ এবং মেহেরপুরের তৃণমূলের নেতৃবৃন্দের সাথে আমার যে সম্পর্ক সৃষ্টি হয়েছে সে বিশ্বাস থেকেই আমি বিএনপি থেকে মনোনয়ন চাইবো।
মেহেরপুর নিউজ: শিক্ষক নেতা হিসাবে কাজ করতে করতে সংসদ নির্বাচন নিয়ে ভাবনা আসলো কেন ?
মো: জাকির হোসেন: শিক্ষক নেতা হিসেবে কাজ করতে গিয়ে শিক্ষক সমাজের ভাগ্যোন্নয়নে নানা কাজ করেছি বিশেষকরে বেসরকারি শিক্ষকদের অবসরকালীন সময়ে একটি জায়নামাজ কিংবা লাঠি নিয়ে বিদায় নিতে হতো। আজ সেই শিক্ষকরা লক্ষ লক্ষ টাকা সরকারি কোষাগার থেকে পাচ্ছে। এ ছাড়া শিক্ষকদের কোন উৎসব ভাতা ছিল না বিএনপি’র শাষনামলে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সান্নিধ্যে যাওয়ার সৌভাগ্য হয় এবং তিনি আমাদের মাধ্যমেই শিক্ষকদের অবসরভাতা ও উৎসবভাতা প্রদান করেন। যেহেতু আমার বাড়ি মেহেরপুর এব্ং আমি একটি আন্তর্জাতিক সংস্থার পিস এ্যম্বাসেডর সেহেতু মেহেরপুরের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ঘুরে অবহেলিত মানুষের কান্না আমি শুনেছি, বিএনপির তৃনমূলের নেতাকর্মীদের শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বীর উত্তমের আদর্শ বাস্তাবায়িত না হওয়ার হাহাকার আমি উপলব্ধি করেছি তাই তাদের আকূল আকুতি থেকেই তাদের ভাগ্যোন্নয়নের জন্যই আমার মেহেরপুর থেকে নির্বাচন করার ভাবনা আসে।
মেহেরপুর নিউজ: আপনি শিক্ষক নেতা ছাড়াও একটি সংস্থার পিস এ্যম্বাসেডর। যেখানে আপনাকে সব দলকে নিয়ে কাজ করতে হয়। সেখানে একটি দলের হয়ে মনোনয়ন চাইলে সেখানে কোন প্রভাব পড়বে কিনা ?
মো: জাকির হোসেন: ঠিকই বলেছেন। আমি একটি আন্তর্জাতিক সংস্থার পিস এ্যম্বাসেডর বা শান্তির দূত। আমাদের সংগঠনে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সরকার প্রধান, মন্ত্রী, এমপিসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ সদস্য হিসেবে বিশ্বময় শান্তি প্রতিষ্ঠায় কাজ করে থাকেন। বর্তমানে বাংলাদেশে অপশাষনের কারণে জনগণের শান্তি বিঘিœত হচ্ছে। তাই আমি মনে করি সুস্থ্য, সুন্দর, নির্মল ও জনকল্যাণমুখি রাজনীতি প্রতিষ্ঠা করতে পারলে বাংলাদেশের মানুষ শান্তিতে থাকতে পারবে। সে লক্ষ্যেই আমি যেহেতু জাতীয়তাবাদে বিশ্বাস করি সেহেতু বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের পক্ষে মনোনয়ন চাইলে এ সংগঠনের কোন সমস্যা সৃষ্টি হবে না বরং এর শ্রী-বৃদ্ধি ঘটবে।
মেহেরপুর নিউজ: দীর্ঘদিন মেহেরপুরের রাজনীতিতে আপনাকে দেখা যায়নি কেন ? বিএনপির চলমান কোন আন্দোলন সংগ্রামে দেখা যায় না। কিšু‘ মনোনয়ন চাইছেন কোন সূত্র ধরে ?
মো: জাকির হোসেন: আমি কেন্দ্রীয় পেশাজীবি রাজনীতির সাথে যুক্ত। দলের প্রয়োজনেই ঢাকায় বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছি। মাননীয় দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া নির্দেশসমূহ জানবাজী রেখে পালন করেছি। তাই মেহেরপুরের আন্দোলন সংগ্রামে আমাকে তেমনভাবে দেখা যায়নি একথা সত্যি। তবে মেহেরপুরে দলের আন্দোলন সংগ্রাম এগিয়ে নিতে নানাভাবে কাজ করেছি, মেহেরপুরের তৃনমূলের নেতাকর্মীদের সাথে সবসময় যোগাযোগ রেখেছি, তাদের সুখ-দুঃখে পাশে থাকার চেষ্ট করেছি এবং দেশনেতীর নির্দেশে মামলা মোকাদ্দমায় জড়জড়িত ব্যক্তিদের পাশে থেকেছি। সেকারণে মেহেরপুরের নেতৃত্ব আমাকে জেলার সভাপতি হিসেবে দেখতে চেয়েছিল। কিন্তুু কেন্দ্র আমাকে প্রথমবারের মত জেলা বিএনপির সদস্য হিসেবে অন্তর্ভূক্তি করে কাজ চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দেন। সেমতে কাজ করতে করতে ইতিমধ্যেই মেহেরপুরের মানুষের কাছে আমি জিয়া পরিবারের প্রতিচ্ছবিতে পরিনত হয়েছি। তাই আমি মেহেরপুর -১ আসন থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশা করছি।
মেহেরপুর নিউজ: আপনার মতে মেহেরপুরে বিএনপি‘র যোগ্য নেতৃত্ব কে দিতে পারবে?
মো: জাকির হোসেন: এক কথায় উত্তর দেয়া কঠিন, তবে আমি মনে করি শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বিরোত্তমের আদর্শ যিনি ধারন করে জন-মানুষের আকাক্সখা পূরণে কাজ করতে পারবেন তিনিই হাজারো শহীদ জিয়ার অনুসারিদের নিকট যোগ্য নেতা হিসেবে বিবেচিত হবেন।
মেহেরপুর নিউজ: বিএনপি এখন অনেকটাই একত্রিত। সেখানে মেহেরপুরের বিএনপিকে নিয়ে কাজের পরিকল্পনা কি ?
মো: জাকির হোসেন: আপনার কথা শুনে আমি ভীষণভাবে আনন্দিত যে মেহেরপুর বিএনপি আজ একত্রিত। আপনি নিশ্চয় জানেন মেহেরপুর বিএনপি দীর্ঘদিন ধরে দ্বিধাবিভক্ত ছিল। একটি স্বার্থা্বষি মহল শহীদ জিয়ার অনুসারিদের বাদ দিয়েই জেলা বিএনপির কমিটি গঠন করতে চেয়েছিল। কিন্তু আমি সকলকে নিয়ে ঐক্যবদ্ধ বিএনপি গঠনের লক্ষ্যে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছি। ঐক্যবদ্ধ বিএনপি গঠনের লক্ষ্যে আমার মেধা, শ্রম এবং রক্ত ঝরেছে। মহান আল্লাহ-তা’য়ালার অসীম রহমতে আজ বিএনপি দাঁড়াতে পেরেছে একটি প্লাটফর্মে। তবে জেলার শীর্ষনেত্রীবৃন্দের ব্যর্থতার কারণে পূর্ণাঙ্গ কমিটি এখনও গঠন করা সম্ভব হয়নি। পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন হলে মেহেরপুর জেলা বিএনপি আরও শক্তিশালি ও ঐক্যবদ্ধ হবে। ভবিষ্যতে এই ঐক্য অব্যাহত থাকবে বলে আমি আশাবাদী। মেহেরপুর থেকে অনেক সম্মানিত নেত্রীবৃন্দই দলের নমিনেশন চাইতে পারে। তবে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া যার হাতে ধানের শীষ তুলে দিবে মেহেরপুরের ঐক্যবদ্ধ বিএনপি তার পাশেই থাকবে।
মেহেরপুর নিউজ: আপনি বিএনপি থেকে মনোনয়ন না পেলে স্বতন্ত্র ভাবে নির্বাচন করবেন কি না ?
মো: জাকির হোসেন: দলের সিদ্ধান্তের বাইরে যাওয়ার কোন প্রশ্নই আসে না।
মেহেরপুর নিউজ: নির্বাচিত হলে মেহেরপুরের উন্নয়ন নিয়ে আপনার ভাবনা ?
মো: জাকির হোসেন: আমি সর্বশক্তিমান আল্লাহ্ তা’য়ালার রহমতে এবং জনগণের ভোটে নির্বাচিত হলে মেহেরপুরের মানুষের জীবন-যাত্রার মান উন্নয়নে কাজ করবো। তাদের শিক্ষা, স্বাস্থ্য ব্যবস্থা উন্নয়নের পাশাপাশি কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও বেকার সমস্যা সমাধানসহ অবকাঠামো উন্নয়নের মাধ্যমে অর্থনৈতিক কর্মচাঞ্চল্য মেহেরপুর উপহার দিতে চেষ্টা করবো। এছাড়াও আমার একটি বিশেষ স্বপ্ন মেহেরপুরের অভ‚ক্ত মানুষের জন্য একটি ফ‚ড ব্যাংক বা খাদ্য ভান্ডার তৈরি করব।
মেহেরপুর নিউজ: মেহেরপুরের মানুষের প্রানের দাবী স্থল বন্দর। আপনি নির্বাচিত হলে এ নিয়ে আপনি কি করবেন। ?
মো: জাকির হোসেন: স্থল বন্দর আমারো প্রাণের দাবী। এ দাবীতে আমি ঢাকাতে বিভিন্ন কর্মসূচীতে অংশ গ্রহণ করেছি। জনমত সৃষ্টিতে চেষ্টা করেছি। আপনি জানেন, মেহেরপুর বাংলাদেশের প্রথম রাজধানী হিসাবে খ্যাত। কিন্তু মেহেরপুরে অর্থনৈতিক কোন কর্মকান্ড নেই বললেই চলে। আর তাই মেহেরপুরে স্থল বন্দর হওয়া অতি অত্যাবশ্যক। আমি যত দ্রুত সম্ভব স্থল বন্দর নির্মানে প্রচেষ্টা চালাবো ইনশাল্লাহ।
মেহেরপুর নিউজ: মেহেরপুর নিউজকে সময় দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ।
মো: জাকির হোসেন: মেহেরপুর নিউজকেও ধন্যবাদ।
ঘোষনা: পরবর্তী সাক্ষাৎকার পড়বেন মেহেরপুর জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক মো: আব্দুল হামিদের।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful