Templates by BIGtheme NET
Home / নির্বাচন / তৃণমূল নেতাকর্মীদের দুর্দশা আমি বুঝি – অ্যাড. ইয়ারুল ইসলাম

তৃণমূল নেতাকর্মীদের দুর্দশা আমি বুঝি – অ্যাড. ইয়ারুল ইসলাম

মেহেরপুর নিউজ, ১৪ জুলাই:

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের মাঝেও আলোচনা শুরু হয়েছে। সম্ভাব্য প্রার্থীরাও নির্বাচনী মাঠে গনসংযোগ শুরু করেছেন। কে পাচ্ছেন আওয়ামীলীগের মনোনয়ন, কে পাচ্ছেন বিএনপির, কে জাতীয় পার্টির এমনকি জামায়াত ইসলামি থেকে কেউ প্রার্থী হচ্ছেন কিনা এ ধরণের নানা প্রশ্ন এখন ঘুরপাক খাচ্ছে। যদিও নির্বাচনের এখনো দেড় বছর বাকি আছে।
এরই ধারাবাহিকতায় মেহেরপুর নিউজ তার পাঠকদের জন্য সকল দলের সম্ভাব্য প্রার্থী যারা মাঠ দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। দলের আস্থাভাজন হওয়ার চেষ্টায় গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন সে সকল প্রার্থীদের মুখোমুখি হচ্ছে মেহেরপুর নিউজ। আমাদের প্রতিবেদকরাও ছুটছেন সেকল প্রার্থীদের কাছে। তাঁদের নির্বাচনী পরিকল্পনা, এলাকার উন্নয়ন পরিকল্পনা, দলীয় পরিকল্পনা খুটি নাটি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে থাকছে প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার।
আজ থাকছে শহর আওয়ামীলীগের সভাপতি, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. ইয়ারুল ইসলামের সাক্ষাৎকার। সাক্ষাৎকারটি গ্রহণ করেছেন আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক সাইদ হোসেন।
মেহেরপুর নিউজ: প্রথমেই মেহেরপুর নিউজ পরিবারের পক্ষ থেকে আপনাকে শুভেচ্ছা।
অ্যাড. ইয়ারুল ইসলাম: ধন্যবাদ। মেহেরপুর নিউজ ও মেহেরপুর বাসীকে শুভেচ্ছা।
মেহেরপুর নিউজ : বর্তমান সময়ে বিভিন্ন স্থানে গনসংযোগ করতে দেখ যাচ্ছে আপনাকে। সে হিসেবে আগামী সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দীতা করা ইচ্ছা আছে কিনা ?
অ্যাড. ইয়ারুল ইসলাম : অবশ্যই । এ কারণেই তৃনমূল জনসাধারণের কাছে যাচ্ছি তাদের দোয়া নিচিচ্ছ। দলের জন্যও প্রচার করছি।
মেহেরপুর নিউজ : আগামী সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দলীয় মমনোয়নন নিয়ে আপনার প্রত্যাশা কতটুকু?
অ্যাড. ইয়ারুল ইসলাম : প্রত্যাশা প্রাপ্তির সাথে মিল যেন হয় সেই প্রত্যাশা আমি করি। মেহেরপুরের মানুষ যে প্রত্যাশা করছে যে দলের ত্যাগী নেতারা মনোনয়ন পাক। সেই হিসাবে আমি মনোনয়ন প্রত্যাশী। আমার বিশ্বাস এবার সিদ্ধান্তর ক্ষেত্রে সঠিক চিন্তা ভাবনা করে এবং সব দিক বিবেচনা করেই বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সিদ্ধান্ত নেবেন। আমাদের সভানেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সেই সিদ্ধান্তই নেবেন। আশা করা যায় মেহেরপুর মানুষের যে চিন্তা ভাবনা সেই চিন্তার বাস্তবতার প্রতিফলন ঘটবে।
মেহেরপুর নিউজ : আপনি আগামী সংসদ নির্বাচনে নির্বাচিত হলে মেহেরপুরের উন্নয়ন নিয়ে আপনার পরিকল্পনা কি ?
অ্যাড. ইয়ারুল ইসলাম : উন্নয়নের পরিকল্পনাতো অবশ্যই। জনপ্রতিনিধিদের তো দায়িত্ব উন্নয়ন করা। শুধু জনপ্রতিনিধি না নেতৃবৃন্দর দায়িত্ব উন্নয়ন করা । আর যেহেতু উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে হবে আমাকে। আমাদের প্রধানমন্ত্রী সারা দেশ ব্যাপি যে উন্নয়ন করছে। সেই ধারাবাহিকতা আমাদের রক্ষা করতে হবে। এছাড়া বিশেষ বিশেষ কিছু যে বিষয় গুলো আছে সেগুলোর দিকে নজর দিতে হবে।
মেহেরপুর নিউজ : নির্দিষ্ট করে কিছু বলবেন কি ?
অ্যাড. ইয়ারুল ইসলাম : যেমন মুজিবনগর পূর্নাঙ্গ কমপ্লেক্সের যে কাজ গুলো বাকি আছে সেগুলো সম্পন্ন করা । এছাড়াও রেল লাইন, স্থল বন্দর, এসকল বিষয় গুলোর ব্যপারে অবশ্যই আমার চিন্তা ভাবনা থাকবে।
মেহেরপুর নিউজ : মেহেরপুরে শিক্ষিত বেকার সংখ্যা অনেক এ বিষয়ে আপনার কোন চিন্তা ভাবনা আছে কি না ?
অ্যাড. ইয়ারুল ইসলাম : শিক্ষিত বেকারত্ব একটি অভিষাপ। আগের তুলনাই এখন মানুষ কর্মমূখি। বর্তমানে মানুষ অনেক শিক্ষিত। ছেলেরা অনেক বিভিন্ন রকমের কর্মে ব্যস্ত । তারপরেও কর্মের যে মহাযজ্ঞ চলছে এর মধ্যেও যারা বেকার আছে তাদের জন্য নিত্য নতুন প্রযুক্তি ঘটিয়ে মেহেরপুরে যে সেক্টরগুলো আছে অনেক জায়গায় সংযুক্ত করতে পারি (যেমন: একটি বাড়ী একটি খামর, সমবায় সমিতি, ছোট ছোট কারখানা তৈরীতে উদ্বুদ্ধ করা ইত্যাদি এ সকল মাধ্যম দিয়ে অবশ্যই বেকারত্বর সমাধান করা যায়।
মেহেরপুর নিউজ : আপনি নির্বাচিত হলে কোন বিষয়গুলো আগে গুরুত্ব দেবেন। অবকাঠামো না বেকারত্ব ?
অ্যাড. ইয়ারুল ইসলাম : অবকাঠামো তো অবশ্যই আগেই। বেকারত্ব ঘুচানোর আগেই যদি আমাদের অবকাঠামো ভাল হয় তা হলে কর্ম পরিধি বাড়বে কাজের স্থান পাবে। যেমন স্থল বন্দর হলে অনেক বেকার যুবকের বেকারত্ব দুর হবে।
মেহেরপুর নিউজ : আপনি মনোনয়ন পেলে তৃণমূল এবং দলের নেতা কর্মী সকলকে একত্রিত করে নির্বাচন করতে পারবেন কি ?
অ্যাড. ইয়ারুল ইসলাম : আমার বিশ্বাস আমিতো তৃনমুল থেকে এসছি। আমি নিজেই তৃনমূল আমি কোন ভুইফর হিসাবে না। আমি ছোট থেকে রাজনীতি করছি। আমি ছাত্রলীগ করেছি, নিজে তৃনমুলের একজন কর্মী। সেই হিসাবে আমি তৃনমুল নেতা কর্মীদের দুরদশা এটা আমি বুঝি । এবিষয়ে আমার স্বচ্ছ একটা ধারনা আছে। আর মনোনয়ন পেলে আমি সবাইকে একত্রিত করতে পারবো।
মেহেরপুর নিউজ : আপনি গত সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র নির্বাচন করায় দল থেকে বহিস্কৃত হয়েছিলেন। পরে আবার দলে ফিরে এসেছেন। কিন্তু জেলা আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতারা বলেণ আপনি সভাপতি পদ ফেরত পাননি। সদস্য পদে আপনাকে দলে নেওয়া হয়েছে।
অ্যাড. ইয়ারুল ইসলাম : আসলে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ থেকে আজ পর্যন্ত এ ধরনে কোন চিঠি আমাকে দেওয়া হয়নি। আর আমাদের যে গঠনতন্ত্র তাতে বলা আছে আমাদেরকে শোকজ নোটিশ করবে এবং তার জবাব আমরা দেব। আমাদের শাস্তি মুলক যে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে তার কোন চিঠি আমি পাইনি। যারা বলেন আমার পদ নেই তারা আসলে অপপ্রচার করেন। আর সব চেয়ে সুসংবাদ আমাদের সংগ্রামী সভানেত্রী মাননীয় শেখ হাসিনা নিজেই আমাদের যে ব্যারিয়ার ছিল তা বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কার্য্য নির্বাহী মিটিং এ তিনি নিজেই প্রস্তাব দিয়ে প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। আর সংসদ নির্বাচনের ক্ষেত্রে আমার বিষয়টি ছিল যেহেতু ১৫৩ টা সিটে বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত হয়েছে। আমার প্রাণ প্রিয় নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা প্রধান মন্ত্রী হওয়াতে কোন অন্তরায় ছিল না বিধাই আমি সতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলাম। যদি ১৪৯ সিট হতো তাহলে আমি অবশ্যই প্রার্থী হতাম না।
মেহেরপুর নিউজ : আপনি আওয়ামীলীগের মনোননয় না পেলে স্বতন্ত্র নির্বাচন করবেন কি না ?
অ্যাড. ইয়ারুল ইসলাম : প্রশ্নই আসে না। গত নির্বাচনে স্বতন্ত্র হিসেবে অংশ নিয়েছিলাম তার একটা বিশেষ কারণ ছিল যেটা পূর্বে আমি বলেছি।
মেহেরপুর নিউজ: মেহেরপুর নিউজকে সময় দেওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যাবাদ।
অ্যাড. ইয়ারুল ইসলাম: মেহেরপুর নিউজকেও ধন্যবাদ।
ঘোষনা: আগামী পর্বে পড়বেন মেহেরপুর জেলা বিএনপির সহসভাপতি আলমগীর খান ছাতু’র সাক্ষাৎকার।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful