Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / দেড়মাসেও অধরা শিশু অন্তরের হত্যাকারী

দেড়মাসেও অধরা শিশু অন্তরের হত্যাকারী

3মেহেরপুর নিউজ,২৫ জানুয়ারী:
মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার বাওট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২য় শ্রেণীর ছাত্র ও একই গ্রামের সৌদি প্রবাসি কাফিরুল ইসলামের ছেলে সাব্বির আহমেদ অন্তর হত্যার দেড়মাসেও পুলিশ হত্যাকারী সবুজকে আটক করতে পারেনি। এ নিয়ে এলাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে নিহতের স্বজনরা। শিশু অন্তরকে হত্যার প্রতিবাদে এবং হত্যাকারী সবুজকে গ্রেফতারের দাবিতে এলাকাবাসী দফায় দফায় মানববন্ধন, প্রতিবাদ সমাবেশ করলেও কোনো কাজ হচ্ছেনা বলে অভিযোগ স্বজনদের।

নিহত অন্তরের চাচা জিয়াউর রহমান বলেন, হত্যার দেড়মাস অতিবাহিত হলেও পুলিশ হত্যাকারী সবুজকে আটক করতে পারেনি। সবুজের মত খুনিরা যদি ধরা না পড়ে তাহলে সমজে অপরাধ প্রবণতা বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থেকে যায়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই শংকর কুমার জানান, প্রধান আসামী সবুজ কে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। ইতো মধ্যে বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। খুব শিঘ্রই তাকে আটক করা সম্ভব হবে বলে আশার বাণি শুনান তিনি।

এ ব্যাপারে গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আকরাম হোসেন বলেন, অন্তর হত্যাকারী সবুজকে ধরতে ইতিমধ্যে বিভিন্ন জেলার বিভিন্ন স্থানসহ রাজবাড়ীতেও অভিযান চালানো হয়েছে। পুলিশের পক্ষ থেকে সকল ধরণের চেষ্টা চলছে। খুব দ্রুত গ্রেফতার করা সম্ভব হবে বলে তিন জানান। এছাড়া মামলায় অন্য তিন আসামীকে আটক করা হয়েছে। তারা বর্তমানে মেহেরপুর জেলা হাজতে রয়েছে।

প্রসঙ্গত, ১০ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার বিকেলে ফুটবল খেলার প্রস্তাব দিয়ে একই পাড়ার গোলাম মোস্তফার ছেলে সবুজ হোসেন (১৮) তাকে কৌশলে বাড়িতে ডেকে নিয়ে যায়। এর পর থেকে অন্তর বাড়িতে না ফেরায় পরে অনেক খোজাখুজি করে না পেয়ে তার সন্ধানে এলাকাই মাইকিং করা হয়। পরে রাত ৯টার দিকে স্থানীয় বাওট সোলাইমানী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের একটি কক্ষ থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়। এ সময় তার পা বাঁধা ছিল এবং তাকে বস্তাবন্দি করে রাখা হয়েছিল। উদ্ধারের পর অন্তর জীবিত রয়েছে ভেবে তাকে কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। পরে সেখানের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করে। পরদিন শিশু অন্তরের মা সজনী খাতুন বাদী হয়ে হত্যাকারী সবুজকে প্রধান করে পাঁচ জনের নামে গাংনী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এ ঘটনায় এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ হয়ে ঘটনার দিন রাতেই সবুজের বাড়িতে অগ্নি সংযোগ করে এবং পরপর কয়েকদিন লাগাতার মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করে। তাদের সেই মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশে অন্তরের সহপাঠী ও শিক্ষকরাও অংশগ্রহণ করে। সর্বশেশ সপ্তাহ দুয়েক আগেও অন্তর হত্যার এক মাস পূর্ন হলেও পুলিশ হত্যাকারী সবুজকে আটক করতে না পারায় আবারো মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন করে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.