Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / নষ্ট হতে চলেছে হাইটেকের কোটি কোটি টাকার মেশিন

নষ্ট হতে চলেছে হাইটেকের কোটি কোটি টাকার মেশিন

হাইটেকের নিরাপত্তাকর্মীরা

হাইটেকের নিরাপত্তাকর্মীরা

মেহেরপুর নিউজ,০৩ জুন:
আমের জন্য বিখ্যাত দেশের দক্ষিন পশ্চিমাঞ্চলের জেলা মেহেরপুর। সেই আমকে কাজে লাগিয়ে জুস, আচারসহ নানারকমের পন্য তৈরি করে দেশ ও বিদেশের বাজার সৃষ্টির লক্ষ্যে মেহেরপুর সদর উপজেলার বারাদি বাজার সংলগ্ন এলাকায় গড়ে তোলা হয়েছিলো হাইটেক ফুড ইন্ডাস্ট্রিজ। প্রতিষ্ঠাতা এমডি মারা যাওয়ার পর কারাখানাটি রুগ্ন শিল্পে পরিনত হতে থাকে। পরবর্তিতে রুগ্ন শিল্পটিকে বাাঁচাতে এগিয়ে আসে ডেসটিনি গ্রুপ। ২০১১ সালের শেষ দিকে এই প্রতিষ্ঠানটিকে ক্রয় করে ডেসটিনি গ্রুপ। এভাবেই যখন ডেসটিনি গ্রুপ সারা বাংলাদেশের রুগ্ণ প্রতিষ্ঠানগুলোকে সচল করার কাজে হাত দিতে থাকে তখন শুরু হয় গভীর ষড়যন্ত্র। আজ সেই ষড়যন্ত্রের স্বীকার হয়ে হাইটেক ফুড প্রোডাক্ট ইন্ডাস্ট্রিজ আজ ধ্বংসের পথে। দীর্ঘদিন ধরে ডেসটিনি গ্রপের ব্যাংক হিসাব জব্দ, চেয়ারম্যান , এমডি কারাগারে থাকায় বন্ধ রয়েছে প্রতিষ্ঠানটি । কিন্তু প্রতিষ্ঠানটি চালু থাকলে এলাকাার হাজার হাজার মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হতো। এলাকায় ব্যবসা বান্ধব পরিবেশ সুষ্টি হতো। অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ হতো । অথচ দীর্ঘদিন ধরে প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় নষ্ট হতে চলেছে কোটি কোটি টাকার মেশিন। এদিকে, প্রায় ২ বছর বেতন না পেয়ে মানবতের জীবনযাপন করছেন সেখানে কর্মরত কর্মকর্তা ও নিরাপত্তাকর্মীরা। অনেকেই আবার দীর্ঘদিন বেতন না পেয়েই অন্যত্র চলে গেছেন। বেতন না পাওয়ায সন্তানাদি নিয়ে পড়েছেন নানা সমস্যায়। মানসিকভাবেই ভেঙে পড়েছেন তারা। ফলে ঠিকমত পাহারা দিতে পারছেন না এ সকল নিরাপত্তা কর্মীরা।

কারখানার ভিতরের একাংশ

কারখানার ভিতরের একাংশ

এদিকে, অরক্ষিত এ ইন্ডাষ্ট্রিজে রাতের আধারে চোর, ডাকাতরা গড়ে তুলছেন আশ্রয়স্থল এমন অভিযোগ এলাকাবাসীর। কলাবাগান থানার একটি মামলায় আদালতের বিজ্ঞ বিচারক ডেসটিনি গ্রæপের সম্পত্তি গুলো নিজ নিজ জেলা পুলিশকে রক্ষনাবেক্ষনের জন্য দায়িত্ব দেয়। পুলিশ কারখানার চাবি বুঝে নিয়ে আর একটি সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দিয়েই তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব তারা শেষ করেছে। প্রথমদিকে মাঝে মধ্যে কারখানা এলাকায় টহল দিলেও এখনও সেটিও বন্ধ রয়েছে।

হাইটেকের দায়িত্বপ্রাপ্ত নিরাপত্তা সুপার ভাইজার মামুনুর রশিদ জানান, দীর্ঘদিন বেতন না পেয়ে সন্তানাদি নিয়ে তারা মানবেতর জীবনযাপন করছেন। তিনি জানান, এখানে নিরাপত্তায় কর্মীরা (সে সহ) প্রায় ২ বছর যাবৎ বেতন পাননি। বেতন না পাওয়ায় তাদের কাজ করার কথা বলাও যায়না। মামুনুর রশিদের ত রাজু আহমেদ, রেজাউল করিম ও ইয়াকুব আলী এরা ৪ জন নিজেদের ভালবাসা দিয়ে আগলে রেখেছেন প্রতিষ্ঠানটি।

হাইটেকের ম্যানেজার ফারুক আহমেদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, হাইটেক প্রতিষ্ঠাকালীন (২০০৭ সাল ) সময় থেকে তিনি সেখানে কর্মরত আছেন। ২০১১ সালে ডেসটিনি গ্রুপ হাইটকেটি কিনে নিলে তাকে নতুন করে ম্যানেজারের দায়িত্ব দিয়ে পদায়ন করা হয়। তারপর থেকেই তিনিও বেতন পাননি বলেন জানান। প্রতিষ্ঠানের প্রতি ভালোবাসা থেকে তিনি হাইটেক ছেড়ে অন্য কোথায় যেতে পারেননি। তবে বেতন বোনাস না পেয়ে স্ত্রী সন্তান নিয়ে কষ্ট করে জীবনযাপন পরিচালনা করছেন। তিনি আশা করেন, অচিরেই সকল অন্ধকার কেটে হাইটেক আবারো কর্মমূখী প্রতিষ্ঠানে রুপ পাবে। হাজার হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হাইটেকের মাধ্যমে সৃষ্টি হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। হাইটেকের পণ্যর গুনগত মান সম্পর্কে তিনি বলেন, হাইটেক উৎপাদিত পানি ও জুস ছিলো সম্পূর্ন হাইজেনিক, পুষ্টিমানে অনন্য। সরকার একটু সুদৃষ্টিই যথেষ্ট হাইটেকের মত ডেসটিনি গ্রুপের মানবকল্যানমূখী প্রতিষ্ঠানগুলোকে চালু করা। ডেসটিনি সোস্যাল মিডিয়া ফোরামের মেহেরপুর জেলা প্রতিনিধি জুবায়েদ আহমেদ শাম্মী জানান, ৪৪০ শতাংশ জমির উপর প্রতিষ্ঠিত হাইটেক ফুড ইন্ডাস্ট্রিজ। যেখানে হাজার হাজার মানুষের কর্মসংস্থানের মাধ্যমে মেহেরপুরের উন্নয়ন হতো। আজ এক ষড়যন্ত্রে হাইটেক সহ ডেসটিনি গ্রুপের সকল উন্নয়মুখী প্রকল্পগুলো মুখ থুবরে পড়ে আছে। অচিরেই সরকার কর্মসংস্খানের চিন্তা করে ডেসটিনি গ্রæপের ৪৫ লক্ষ বিনিয়োগকারী ক্রেতা পরিবশকগনের রুটি রুজীর কথা চিন্তা করে বিদ্যামান সমস্যার সমাধান করে আলোর পথ দেখানোর দাবি জানান তিনি।

ডেসটিনি সোস্যাল মিডিয়া ফোরামের মেহেরপুরের অন্যতম নেত্রী সফুরা খাতুন জানান, অচিরেই সকল সমস্যার সমাধান করে সরকার ৪৫ লক্ষ বিনিয়োগকারী ক্রেতা পরিবেশককে কাজ করার রুযোগ করে দেয়ার দাবি জানান। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ডিজিটাল বাংলাদেশ করার যে রুপকল্প হাতে নিয়েছেন ডেসটিনি গ্রæপ তার সহযাত্রী হিসেবে সেই রুপকল্পকে এগিয়ে নেয়ার লক্ষ্যে কাজ করে আসছিলো। এমতাবস্থায় ডেসটিনির বিবদমান সমস্যা সমাধান করে এ সকল কারখানাগুলো চালানোর পরিবেশ সৃষ্টি করে মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে দিবে বলে সরকারের কাছে এ প্রত্যাশা সকলের।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.