Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / নামে মডেল, ফলে নাই

নামে মডেল, ফলে নাই

Meherpur Model School Pic.বিশেষ প্রতিবেদন,০৪ জানুয়ারী:
বিএম মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। শহরের হোটেলবাজারের একটি ঐতিহ্যবাহি প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। শহরের সচেতন অভিভাবকদের আস্থার একটি প্রতিষ্ঠান হিসেবে বেশ নাম ডাক ছিল। পরবর্তীতে শিক্ষার গুনগত মান বৃদ্ধিতে সরকার প্রতিটি উপজেলায় একটি মডেল স্কুল ঘোষনার পর থেকে মেহেরপুর শহরের এই প্রতিষ্ঠানটিকে মডেল হিসেবে নামকরণ করা হয়। একই ভাবে জেলার আরো দুটি উপজেলার গাংনীতে একটি এবং মুজিবনগরেও একটি করে স্কুলকে মডেল হিসেবে নামকরণ করা হয়। কিন্তু সদর ও মুজিবনগর মডেল বিদ্যালয় গুলো সবেমাত্র নামকরণেই সীমাবদ্ধ রয়েছে। ফলাফলে অন্য যে কোনো স্কুল তাদের ছাড়িয়ে গেছে। ২০১৫ সালের প্রাথমিক শিক্ষা সমপনী ফলাফল পর্যালোচনা করে এমন তথ্যা পাওয়া গেছে।
সদরের বিএম মডেল বিদ্যালয় থেকে ২০১৫ সালে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা অংশ নিয়ে ৪৩ জনের সকলেই পাশ করেছে। তবে জিপিএ ৫ পায়নি একজনও। ২০১৩ সালে প্রাথমিক সমপনী পরীক্ষায় ৫৩ জন অংশ নিয়ে শতভাগ পাশসহ ৫ জন জিপিএ পেয়েছে মাত্র ৫ জন এবং ২০১৪ সালে ২৯ জন পরীক্ষায় অংশ নিয়ে শতভাগ পাশসহ ট্যাল্টেপুল বৃত্তিসহ জিপিএ ৫ পেয়েছিল মাত্র ৪ জন।
সদর উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, ২৫২ জন ছাত্রের বিপরীতে বিদ্যালয়টিতে প্রধান শিক্ষকসহ সহকারী শিক্ষক আছেন ১৩ জন। একটি শিক্ষকের বিপরীতে ৪০ জন ছাত্র থাকার কথা। সেখানে ৬ জন শিক্ষকের স্থলে প্রয়োজনের অতিরিক্ত শিক্ষক থেকেও এই বিদ্যালয়টি থেকে কয়েকবছর ধরে ভালো ফলাফল পাওয়া যাচ্ছেনা। মডেল বিদ্যালয়টি নিয়ে রীতিমত বিরক্তিতে রয়েছে উপজেলা শিক্ষা অফিসের কর্তারাও।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল হাশেম বলেন, এটি গরীবের বিদ্যালয়। এখানে পরীক্ষার দিন ছেলেমেয়েদের বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে এসে পরীক্ষা দেওয়াতে হয়। ফলাফলের বিষয়ে তিনি বলেন, ভালো ছাত্ররা এখানে থাকে না। সরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও পাশের কিন্ডার গার্টেন স্কুল গুলোতে চলে যায়। তবে শিক্ষার মান উন্নয়নে তিনি বেশ উদ্যোগী বলে জানালেন।
শিক্ষকদের কিছুটা অবহেলা আছে বলে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আব্দূল হালিম বলেন, গত দুবছর ধরে বিদ্যালয়ের ফলাফল খারাপ হওয়ার কারণে শিক্ষকদের আন্তরিকভাবে দায়িত্ব পালন করার জন্য বারবার তাগাদা দিয়েছি। তবে নতুন বছরে ভালো ফলের ব্যাপারে সকলের সহযোগীতা নেয়া হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
এ ব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা অফিসার আমজাদ হোসেন বলেন, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে ফলাফলের বিষয়ে বারবার তাগাদা দিয়েও কোনো কাজ হচ্ছে না। উপজেলা প্রশাসন থেকেও মডেল বিদ্যালয়টির শিক্ষার মান উন্নয়নে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাগাদা দিয়ে আসছেন। এতেও কোনো কাজ হচ্ছে না। তিনি বলেন, ওই বিদ্যালয়ের আশেপাশের অনেক বিদ্যালয় রয়েছে যেগুলো থেকে ভালো ফলাফল হচ্ছে। অথচ সেখানে হচ্ছে না। এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষককে সতর্কীকরণ নোটিশ দেয়া হবে বলে তিনি জানান। অতিরিক্ত শিক্ষকের বিষয়ে তিনি বলেন, ওই বিদ্যালয়ে ৬ জন শিক্ষক থাকলেই যথেষ্ট। নতুন বছরে সমš^য় করে কিছু শিক্ষকের অন্যত্র পদায়ন করার বিষয়টিও ভাবছেন বলে তিনি জানান। মডেল বিদ্যালয়ের বিষয়ে আমজাদ হোসেন আরো বলেন, সরকারী সিদ্ধান্তের বাইরে যাওয়া সম্ভব নয়। তা না হলে ওই বিদ্যালয়ের থেকে অনেক ভালো বিদ্যালয় রয়েছে যেগুলোকে মডেল হিসেবে নামকরণ করা যায়।
এদিকে, মুজিবনগর মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মন্দের ভালো অবস্থানে রয়েছে। সেখানে ৬০ জন পরীক্ষায় অংশ নিয়ে সকলেই পাশ করেছে। জিপিএ ৫ পেয়েছে মাত্র ৪ জন। অপরদিকে, মান রেখেছে গাংনী মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। সেখানে ৫৮ জন পরীক্ষা শতভাগ পাশ সহ জিপিএ ৫ পেয়েছে ১৫ জন।
মুজিবনগর উপজেলা শিক্ষা অফিসার আফিল উদ্দিন বলেন, মুজিবনগের মডেল বিদ্যালয়টি একটি অজোপাড়াগাঁয়ের বিদ্যালয়ের মতো। তাছারা অনেক আগে সরকারী সিদ্ধান্ত মোতাবেক এটিকে মডেল বিদ্যালয় করা হয়েছিলো। তবে নতুন বছরে বিদ্যালয়টির শিক্ষার মান উন্নয়নে বেশ কিছু উদ্যোগ নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.