Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / নিবন্ধনের ছবি তোলার ফি ৫০ টাকা !

নিবন্ধনের ছবি তোলার ফি ৫০ টাকা !

20160208_124859_resized_1মেহেরপুর নিউজ,০৮ ফেব্রুয়ারী:
মেহেরপুর সদর উপজেলার বাড়িবাঁকা সীমান্ত মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ ও নবম শ্রেণীর নিবন্ধনের অন্তর্ভুক্তি পর্বের ছবি তোলা ও বোর্ডে পাঠানো বাবদ ৫০ টাকা করে আদায় করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ( কম্পিউটার) আব্দুল লতিফের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে। আর এতে উৎসাহ যোগাচ্ছেন খোদ প্রধান শিক্ষক সাহারুল ইসলাম।
সোমবার বিদ্যালয়ে সরেজমিনে পরিদর্শনে গিয়ে দেখা যায়, ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে ছাত্রী আছে ৮০ জন আর নবম শ্রেণীতে আছে ৩৮ জন। প্রত্যোকের কাছে থেকে কম্পিউটার শিক্ষক আব্দুল লতিফ নিবন্ধনের অন্তর্ভক্তির জন্য ছবি তোলা ও বোর্ডে পাঠানোর জন্য ৫০ টাকা করে আদায় করেছেন। ৬ষ্ঠ ও নবম শ্রেণীর সকল ছাত্রীই একযোগে ৫০ টাকা দেয়ার কথা স্বীকার করেছেন। এদের মধ্যে ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রীরা সকলেই কম্পিউটার শিক্ষক আব্দুল লতিফের সামনেই ৫০ টাকা দেয়ার কথা স্বীকার করে। এঘটনায় ক্ষুব্ধ অন্যান্য শিক্ষকরা। তাদের অভিযোগ কোনো রকম সিদ্ধান্ত ছাড়াই প্রধান শিক্ষকের সাথে আলাপ করে কম্পিউটার শিক্ষক আব্দুল লতিফ শ্রেণী শিক্ষকদের বাদ দিয়ে এ টাকা তুলছেন।
তবে এ বিষয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণীর শ্রেণী শিক্ষক আব্দুল আলিম এবং নবম শ্রেণীর শ্রেণী শিক্ষক মুসাদ আলী দুজনের কেউ জানেন না তাদের ক্লাস থেকে ছাত্রীদের কাছে থেকে নিবন্ধনের ছবি তোলার জন্য কত টাকা করে তোলা হচ্ছে।
তবে বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আব্দুল মতিন বলেন, ছবি তোলার জন্য আমরা এক ব্যাবসায়ীর সাথে ১০ টাকা নেওয়ার জন্য চুক্তি করেছিলাম। পরে শুনেছি সে তাতে রাজি হয়নি। তবে সেক্ষেত্রে ১৫ বা ২০ টাকা হতে পারে। সেক্ষেত্রে ৫০ টাকা হতে পারে না বলে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এ ঘটনা কোনো শিক্ষককে জানানোও হয়নি বলে তিনি জানান।
এ ব্যাপারে কম্পিউটার শিক্ষক আব্দুল লতিফ ৫০ টাকা করে নেয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, ছবি তোলা, অনলাইনের মাধ্যমে বোর্ডে পাঠানো ও ব্লাড গ্রæপিং করতে এত টাকা লাগবেই, তাই নেয়া হচ্ছে। তবে ইন্টারনেট বিল বিদ্যালয় থেকে দেওয়া হয় কি না এ প্রশ্ন করলে তিনি কোনো কথা বলেন না। আবার ব্লাড গ্রæপ করার প্রয়োজন আছে কিনা এনিয়েও কোনো কথা বলেন না। যদিও ব্লাড গ্রæপ করা লাগে তাহলে নবম শ্রেণীর যারা তারা তো আগে সেটা করেছে এমন প্রশ্নের জবাবও তিনি এড়িয়ে যান।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাহারুল ইসলাম কম্পিউটার শিক্ষকের পক্ষ নিয়ে বলেন, এগুলো করতে খরচ হই। তাছাড়া ব্যবস্থাপনা কমিটির মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নিয়েই নেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।
বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি কামরুল ইসলাম বলেন, ছাত্রীদের কাছে থেকে টাকা নেয়ার কথা শুনেছেন। যদি এটা বিধি মত না হয়ে থাকে তাহলে পরিবর্তি সভায় তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
যোগাযোগ করা হলে সদর উপজেলার ভারপ্রাপ্ত মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা হোসনে মোবারক বলেন, শুধুমাত্র জীবনবৃত্তান্ত আর ছবি নিবন্ধনের অন্তর্ভুক্তির জন্য পাঠাতে হবে। ছবি তোলার ক্ষেত্রে সামান্য কিছু টাকা হয়তো স্টুডিওকে দেয়া লাগতে পারে। তবে ৫০ টাকা নিয়ে থাকলে মঙ্গলবারের মধ্যেই ছাত্রীদের মাঝে টাকা ফেরৎ দেয়ার ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.