Templates by BIGtheme NET
Home / নির্বাচন / নিস্ক্রীয় না, কেন্দ্রের হুকুমের অপেক্ষায় আছি . . . . আব্দুল হামিদ

নিস্ক্রীয় না, কেন্দ্রের হুকুমের অপেক্ষায় আছি . . . . আব্দুল হামিদ

মেহেরপুর নিউজ, ০৭ আগষ্ট:

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের মাঝেও আলোচনা শুরু হয়েছে। সম্ভাব্য প্রার্থীরাও নির্বাচনী মাঠে গনসংযোগ শুরু করেছেন। কে পাচ্ছেন আওয়ামীলীগের মনোনয়ন, কে পাচ্ছেন বিএনপির, কে জাতীয় পার্টির এমনকি জামায়াত ইসলামি থেকে কেউ প্রার্থী হচ্ছেন কিনা এ ধরণের নানা প্রশ্ন এখন ঘুরপাক খাচ্ছে। যদিও নির্বাচনের এখনো দেড় বছর বাকি আছে।
এরই ধারাবাহিকতায় মেহেরপুর নিউজ তার পাঠকদের জন্য সকল দলের সম্ভাব্য প্রার্থী যারা মাঠ দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন, দলের আস্থাভাজন হওয়ার চেষ্টায় গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন । আমাদের প্রতিবেদকরাও ছুটছেন সেকল প্রার্থীদের কাছে। তাঁদের নির্বাচনী পরিকল্পনা, এলাকার উন্নয়ন পরিকল্পনা, দলীয় পরিকল্পনা খুটি নাটি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে থাকছে প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার। আজ থাকছে জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি মো: আব্দুল হামিদের সাক্ষাৎকার। সাক্ষাৎকারটি গ্রহণ করেছেন আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক সাইদ হোসেন।

মেহেরপুর নিউজ: মেহেরপুর নিউজের পক্ষ থেকে আপনাকে শুভেচ্ছা।
আব্দুল হামিদ: আমি প্রথমেই মেহেরপুর নিউজকে শুভেচ্ছাসহ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি। এ ধরণের জনপ্রিয় একটি পরিকল্পনা হাতে নেওয়ার জন্য।

মেহেরপুর নিউজ: আগামী সংসদ নির্বাচনে আপনার দল জাতীয় পার্টি মহাজোট থেকে নির্বাচন করবে নাকি একাই নির্বাচন করবে। এবিষয়ে কিছু জানেন কি?
আব্দুল হামিদ: এটা কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত। দল যদি একা নির্বাচন করে তা হলে নেতার কাছে আমি মনোনয়ন চাইবো। নেতা যদি আমাকে মনোনয়ন দেয় তাহলে আমি নির্বাচন করবো। আর যদি মহাজোট হয় তাহলে মহাজোটের হয়ে যদি মনোনয়ন পাই তাহলে নির্বাচন করবো।
মেহেরপুর নিউজ:আপনি মেহেরপুরে জাতীয় পার্টি থেকে কাউকে প্রতিদ্বন্দী ভাবছেন কি ?
আব্দুল হামিদ: বর্তমানে আমার জেলা কমিটিতে কেউ বলেনি আমি মেহেরপুর- ১ আসনের প্রার্থী হবো। নির্বাচন করবো। এই মুহুতে আমি ছাড়া আর কাউকে দেখছি না।
মেহেরপুর নিউজ: একটি রাজনৈতিক দল হিসাবে কমিটি গঠন ছাড়া আর কোন কার্যক্রম আমাদের চোখে পড়েনা কেন ?
আব্দুল হামিদ: আমরা খুব দোটানাই আছি। এই জন্যই কেন্দ্র থেকে কোন প্রোগ্রাম নেই তাই আমাদেরও কোন প্রোগ্রাম নেই। কোন কার্যক্রমে দেখা যায়না এটা ঠিক না অন্যান্য যেসব সামাজিক প্রোগ্রাম সেগুলো আমরা সবই করি। আর কোন রাজনৈতিক দলে অফিস নিয়মিত খোলা হয়না। কিন্তু জাতীয় পার্টি অফিস খোলা হয়।
মেহেরপুর নিউজ: আপনারা বর্তমান সরকার আমলে বিরোধী দল হিসাবে আছেন। কিন্তু আপনাদেরকে বিরোধী দলের কোন কার্যক্রমে দেখি না।
আব্দুল হামিদ:এটা অতি সত্য কথা। আমাদের কি কলমা সেটা কেন্দ্র আমাদের পরিস্কার করেনি। কথায় বলেনা ‌দুদেল বান্দা পাইনা গোর পাইনা বেহেশত’ আমাদের হয়েছে সেই অবস্থা। আমরা যে বিরোধী দল আমাদের তিনটি মন্ত্রী আছে জোটের সাথে আছি এখন আমাদের কেন্দ্রে যদি কোন প্রোগ্রাম না থাকে তাহলে আমরা কার বিরুদ্ধে আন্দোলন করবো কি প্রোগ্রাম করবো। অনেকে বলে আমরা নিস্ক্রীয়, আমরা নিস্ক্রীয় না শুধু মাত্র কেন্দ্রের হুকুমের অপেক্ষায় আছি।

মেহেরপুর নিউজ: আপনি সভাপতি হওয়ার পর কি তৃনমূল নেতা কর্মীদের একত্রিত করেছেন।
আব্দুল হামিদ: চেষ্টা করছি। আসলে বাংলাদেশের রাজনীতিটা হয়ে গেছে সম্পূর্ন কেন্দ্র মূখি এবং কেন্দ্রে অর্থের ছড়াছড়ি। আজকে একটা যেকোন দল বা যারা ক্ষমতায় আছে তারা একটা মিটিং করলে লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করে। কিন্তু আমাদের দল আজ ২৭-২৮ বছর ক্ষমতার বাইরে আমাদের অর্থনৈতিক সংকট আছেই। এজন্য অনেকটা সময় আমরা পিছিয়ে যায়। মানুষ দেখানো মত আমরা করতে পারিনি। তবে এটুকু চ্যালেঞ্জ করে বলতে পারি। যদি আওয়ামীলীগের এক লক্ষ টাকা খরচ হয় আর আমাদের ৫০ হাজার টাকা খরচ করে তার থেকে বড় প্রোগ্রাম করতে পারবো।
মেহেরপুর নিউজ: মেহেরপুরের উন্নয়নের অন্তরায় কি মনে করেন?
আব্দুল হামিদ:  একটা জনপ্রতিনিধি যদি মনে করে। উন্নয়ন করবে, অবশ্যই সে উন্নয়ন করতে পারে। ব্যাপক উন্নয়ন করতে পারে। সে যদি আত্মসাতের কথা চিন্তা না করে, দুর্নীতি না করে তাহলে সে এলাকার উন্নয়ন করতে পারে। আসল কথা হচ্চে, আত্মসাৎ ও দূর্নীতি কমে গেলে উন্নয়ন হবে।

মেহেরপুর নিউজ:মেহেরপুরের উন্নয়ন নিয়ে কি পরিকল্পনা আছে?
আব্দুল হামিদ: আমাদের পরিকল্পনা অনেক আছে। যেমন এই নদী খনন আমার বড় আগ্রহ ছিল। নদী খনন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আমাদের জাতীয় পার্টির মন্ত্রী আনিসুল হক মাহমুদ এসেছিলেন। সেখানে ৫০ ভাগ নদী খনন হচ্ছে আর ৫০ ভাগ হচ্ছে না। ভেটিলে মানে নিম্ম দিকে হচ্ছে না। আমিই একমাত্র লোক মেহেরপুরের কোন নেতা কোন এমপি কোন কেউ এটা মন্ত্রীর সামনে উপস্থাপন করেনি। আমিই কেবল করেছিলাম। আমাকে একটা সুযোগ দিয়েছিল বিরোধী দলের সভাপতি হিসাবে। আমি বলেছিলাম ভেটেল না কাটলে আমরা যা ছিলাম তাই থাকবো। মন্ত্রী সেটা আমলে নিয়ে পুনরায় টেন্ডারের ব্যবস্থা করে প্রকল্পটা করেছিলেন। তিনি বলেন, এই মেহেরপুর যখন জেলা হয়। ১৮টি জেলাকে যখন ৬৪টি জেলা করা হয়। তখন কোন ক্যাটাগরিতে পরে না জেলা মেহেরপুর হয়না। আমি তখন জুনিয়র একটা সদস্য আমি তাদের বোঝাতে সক্ষম হয়েছিলাম এবং আমাদের নেতার সাথে দেখা করে। আমরা যে ৬জন, নেতার সাথে দেখা করতে গিয়েছিলাম তাদের মধ্যে ২জন বেঁচে আছে আর বাকীরা মারা গেছে। আমি আর রুস্তম আলী। আমি বলেছিলাম, স্যার এখান থেকে যদি মুক্তিযুদ্ধ পরিচালিত হয়। তাহলে মেহেরপুর কেন জেলা হয় না। তখন কোন কথা না বলে বলেছিল ঐটাই হবে বাংলাদেশের ক্ষুদ্র জেলা এবং সব চেয়ে সন্মানিত জেলা। উনার একক সীদ্ধান্তে মেহেরপুর জেলা ঘোষনা করা হয়। মেহেরপুর জেলা ক্যাটাগরিতে হয় না, এরিয়াতে হয় না, জনগনে হয় না। আমাদের সেই কথাতে তিনি স্মৃতি সৌধের ভিত্তি স্থাপন করেছিলেন।
মেহেরপুর নিউজ: ঐ সময় আপনি দলের কোন পদে ছিলেন ?
আব্দুল হামিদ: ঐ সময় আমি দলের উপজেলা সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলাম। প্রথম যখন দল গঠন হয় তখন আমি জেলার কোন পদে ছিলাম না। আমিই ঐ সময় নেতাদের বুঝিয়েছিলাম। আমিই মাইক্রো ভাড়া করে নিয়ে গিয়েছিলাম।
মেহেরপুর নিউজ: বাকীরা কে কে ?
আব্দুল হামিদ: সাখায়াৎ মুন্সি, হাজী ইদ্রিস আলী, জালাল সাহেব । উনারা মারা গেছেন।
মেহেরপুর নিউজ:মেহেরপুরে স্থল বন্দর নিয়ে আপনার ভাবনা কি?
আব্দুল হামিদ: এটা নদী খননের আমারও দাবি ছিল। আন্দোলনের যে কমিটি হয়েছিল সেটা আমার উদ্যোগে হয়েছিল।
মেহেরপুর নিউজ: সেই কমিটিতে কি আপনি এখন আছেন ?
আব্দুল হামিদ: না আমি এখন নেই। এখান ছাত্রলীগরা দখল করেছে, আমি চান্স পাইনি।
মেহেরপুর নিউজ: মহা জোট বা জাতীয় পার্টি যদি আগামি সংসদ নির্বাচনে আপনাকে মনোনয়ন না দেয় তা হলে আপনি স্বতন্ত্র নির্বাচন করবেন কি না ?
আব্দুল হামিদ:আমি একটা কথা বলি ১৯৯৯ সালে মেহেরপুরে উপনির্বাচনে  আমি আমার নেতার কাছে মনোনয়ন চাইনি। তারপরেও আমাকে মনোনয়ন দিয়েছিল। এবং আমি পাশ করে যেতাম। কিন্তু রাজনৈতিক কারণেই আমার নেতা প্রত্যাহার করতে বললে আমি তাঁর নির্দেশে মনোনয়ন প্রত্যাহার  করেছিলাম। তখন বিএনপি নির্বাচন করে নাই। তারপর গত ৫ জানুয়ারি নির্বাচনে আমি টাকা জমা দিয়েছিলাম। কিন্তু নেতা আমাকে বসে যেতে বলে আমি বসে গিয়েছি। আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী হবোনা।
মেহেরপুর নিউজ: আপনার তৃণমূলকে গোছানোর কোন পরিকল্পনা আছে কি না ?
আব্দুল হামিদ: আমি আগামি ঈদের পর আনুষ্ঠানিক ভাবে গনসংযোগ করবো। এবং সদস্য সংগ্রহ করার জন্য মাঠে নামবো।  প্রতিটা ইউনিয়নে যাবো।  ঈদের পরপরি শুরু করবো। আমি নেতার সাথে যোগাযোগ করবো তিনি আমাদের কি নির্দেশ দেই। সে নির্দেশ মোতাবেক অামরা মাঠে কাজ করবো।

মেহেরপুর নিউজ: এত ক্ষন মেহেরপুর নিউজকে সময় দেওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যাবাদ।

আব্দুল হামিদ: মেহেরপুর নিউজকেও ধন্যবাদ।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful