Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / পাতা দেখে লিচু গাছ কিনে ক্ষতির মুখে ব্যবসায়ীরা

পাতা দেখে লিচু গাছ কিনে ক্ষতির মুখে ব্যবসায়ীরা

11মেহেরপুর নিউজ, ২৩ মে:
প্রতিটি ফলের ‘অফইয়ার’ ও ‘অনইয়ার’ বলে দুটি সময় থাকে। অর্থাৎ এবছর ভালো হল হলে আগামী বছর হবে না। আবার এ বছর ফল না এলে আগামী বছর ভালো হবে। সেই হিসেবে এ বছর মেহেরপুরে লিচুর ফলন ভালো ফলন হওয়ার কথা ছিল।  ভালো ফলনের আশায় গাছের পাতা দেখে মুকুল আসার আগেই বাগান মালিকদের সাথে লিচু গাছ কিনেন ব্যবসায়ীরা। কিন্তু ফল হলো উল্টা।
চাষীরা জানান, এ বছরে চৈত্রের শুরু থেকে মেহেরপুরের তাপমাত্রা ছিল বাংলাদেশের সর্বোচ্চ । যা ৩৮ থেকে ৪২ ডিগ্রী সেলসিয়াসের মধ্যে উঠানামা  করেছে। লিচুর গুটি আসার পর থেকে পরিপক্ক হওয়া পর্যন্ত সময় বৃষ্টির দেখা মেলেনি। বেশির ভাগ লিচুর গায়ে কালো দাগ ও ফেটে গেছে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে একটি থোকায় একটি লিচু হওয়ার ঘটনাও ঘটেঠে এ বছর। এছাড়াও প্রচন্ড খরতাপে বাগানের লিচু পুড়ে শুকিয়ে যায়। শুকনো পোড়া লিচুর উপর বৃষ্টি পড়ায় ফেটে চৌচির হয়ে যাচ্ছে গাছের লিচু। ঘন ঘন সেচ ও ছত্রাক নাশক প্রয়োগ করেও কোন কাজ হচ্ছে না। এতে ফলন বিপর্যয়ের ফলে লোকসানের মুখে পড়েছে জেলার লিচু চাষি ও ব্যবসায়ীরা। এ বছর অতিরিক্ত খরার কারণে আশানুরুপ ফল আসেনি। যেটুকু এসেছে তা বিক্রি করে বাগান মালিকের টাকাও পরিশোধ করতে পারেননি। এভাবেই তাদের কষ্টের কথা জানাচ্ছিলেন লিচুর বাগান ব্যবসায়ীরা।
মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার আযান গ্রামের লিচু ব্যবসায়ী সিরাজ উদ্দিন। তিনি বলেন, এ বছর তিনি তার ব্যবসায়ীক পার্টনারসহ ৮টি লিচু বাগান কিনেছেন মুকুল আসার আগেই। তিনি বলেন, সদর উপজেলার আমঝুপি গ্রামের একটি বাগান কিনেন ৪ লক্ষ টাকাই। সেখানে ১১২টি বোম্বাই জাতের লিচু গাছ আছে। ধারনা করেছিলেন এখান থেকে যে পরিমান লিচু হবে তা দিয়ে বাগান মালিকের টাকা পরিশোধ করে ২ থেকে ৩ লক্ষ টাকা লাভ করবেন। কিন্তু লিচুর ফলন না আসাই বাগান মালিককে অনুরোধ করে ৪ লক্ষ টাকার স্থলে আড়াই লক্ষ দিতে পেরেছেন। নিজের লাভ তো দুরের কথা বাগান মালিকের বাকি টাকাও পরিশোধ করা সম্ভব না বলে তিনি জানান।
22লিচু ব্যবসায়ী ফজলুর রহমান বলেন, গতবছর লিচুর অফইয়ার থাকলেও লিচু বিক্রি করে ভালো লাভ হয়েছিল। কিন্তু এ বছর অধিক লাভের আসায় পাতা দেখে মুকুল আসার আগেই এ বছর ১৫টি লিচু বাগান কিনেছেন। বাগান কেনার পর থেকে সেচ, কিটনাশক, বাগান পাহারাদেয়া এবং লিচু ভাঙাসহ বিক্রি করা পর্যন্ত যে পরিমান খরচ হয়েছে তার আসল টাকা ফেরৎ পাওয়া যাচ্ছে না।
আমঝুপি গ্রামের বাগান মালিক মসলেম আলী বলেন, তার দুটি বাগানে ১৩২টি লিচু গাছ রয়েছে। শীতের শুরুতে একটা বৃষ্টি হওয়ায় লিচুতে এ বছর পর্যাপ্ত পরিমানে মুকুল আসেনি। তার পরে আবার গুটি হওয়ার পর থেকে প্রচন্ড তাপদাহ। সবমিলিয়ে এবছর লিচুচাষীদের লোকসান গুনতে হচ্ছে।
ঢাকার বাদামতলি থেকে আসা উসমান মিয়া নামের এক ফল ব্যাবসায়ী মেহেরপুরে এসেছেন লিচু কিনতে। তিনি বলেন, মেহেরপুরের লিচু স্বাদে ও গুনে ভালো হওয়ায় ঢাকার বাজারে এর ভালো চাহিদা রয়েছে। তিনি বলেন, গত ১৯ বছর ধরে মেহেরপুরের বিভিন্ন বাগান থেকে লিচু কিনে ঢাকায় বিক্রি করেন। তবে ফলণ কম হওয়ার এবছর লিচু বেশী দামে কিনতে হচ্ছে।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হিসেব মতে জেলার তিনটি উপজেলা দেশী, বুম্বাই, চায়না-৩ সহ নানা জাতের প্রাায় ৫৭৯ হেক্টর জমিতে লিচুর আবাদ হয়েছে। যা থেকে দুই হাজার মেট্রিক টন লিচু উৎপাদনের সম্ভাবনা ছিল।
মেহেরপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক এস এম মোস্তাফিজুর রহমান  বলেন, অতিরিক্ত খরার কারণে লিচু পুড়ে যাওয়ায় লিচুর ফলন বিপর্যয় হয়েছে। তবে কৃষি বিভাগের পরামর্শে চার্ষীরা কিছুটা হলেও উপকার পেয়েছেন বলে তিনি দাবি করেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.