Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / পান থেকে চুন খসলেই শিশু বুশরার উপর নেমে আসে অমানুষিক নির্যাতন

পান থেকে চুন খসলেই শিশু বুশরার উপর নেমে আসে অমানুষিক নির্যাতন

নির্যাতিত বুশরা

নির্যাতিত বুশরা

জুলফিকার আলী কানন,১৬ নভেম্বর:
পান থেকে চুন খসলেই শিশু বুশরা ইয়াসমিনের উপর নেমে আসে অমানুষিক নির্যাতন। শুধু শারীরিক নির্যাতনই নয়, বন্ধ করে দেয়া হয় পেটের খাবার। এ নির্যাতনের চিত্র চলছে ৪ বছর যাবৎ। গৃহকর্তির ভয়াভহ নির্যাতনে এতটাই আতংকিত যে বুশরা ইয়াসমিন কোন অপরিচত মানুষকে দেখলেই এখন তার চোখ মুখে পড়ছে আতংকের ছাপ। বুশরা গাংনী উপজেলার করমদী গ্রামের দিন মজুর আব্দুল হামিদের মেয়ে। দিন মজুর পিতার ৫ মেয়ে’র মধ্যে বুশরা ইয়াসমিন চতুর্থ। সে বর্তমানে গাংনীর সন্ধানী স্কুল এন্ড কলেজের ৬ষ্ট শ্রেনীর ছাত্রী। নির্যাতনকারী সন্ধানী স্কুল এন্ড কলেজের হিসাব রক্ষক মিম্মা সুলতানা’র বাড়ি চুয়াডাঙ্গা।
বুশরা ইয়াসমিন জানান, সামন্য ভাত কাপড় আর লেখা পড়া শিখতে গরীব পিতা মাতার কাছ থেকে এসেছিলাম ম্যাডাম মিম্মার কাছে। ম্যাডাম মিম্মা আমাকে কারনে অকারনে বিভিন্ন সময়ে চালিয়ে থাকে অকথ্য নির্যাতন। সে আরো জানায়,

আঘাতের চিহৃ

আঘাতের চিহৃ

সারাদিন তার বাড়ির কাজ করতে গিয়ে সামান্য অপরাধ হলেই ম্যাডাম আমাকে শুরু করে শারীরিক নির্যাতন। স্কেল দিয়ে শরীরের বিভিন্ন অংশে মারM-2ধর করে। এছাড়া তার হাতের বড় বড় নোখ দিয়ে বুশরা ইয়াসমিনের দু হাতের কবজী ও উপরের অংশে খামছিয়ে থেতলে দেয়। এছাড়া স্কেল দিয়ে ও চিরুনি দিয়ে শরীরে বিভিন্ন স্থানে ক্ষত করে দেন।

বুশরা ইয়াসমিন জানায়, গত শনিবার সকালের দিকে ম্যাডাম আমাকে পাড়া থেকে গরুর দুধ আনতে বলে। দুধ আনতে দেরী হওয়ায় চিরুনি দিয়ে আমার ডানের হাতের উপর ফুটো করে দেন। এছাড়া হাত দিয়ে পেটাতে থাকেন। আমার চিৎকারে পাড়ার লোকজন এসে আমাকে উদ্ধার করে। তারপর আমি না খেয়েই স্কুলে চলে আসি। টিফিনে বাড়ি গেলে ম্যাডাম আবারো আমার উপর চালাই নির্যাতন।
বুশরার সহপাঠি ইসরাত জাহান বন্নী, জান্নাতুল নাইম, হাবিবার আক্তারসহ বেশ কয়েকজন জানান, বুশরা প্রায় না খেয়ে আসে। আমাদের অন্যান্য সহপাঠিদের কাছে থাকা টিফিনের টাকা দিয়ে মাঝে মাঝে বুশরার খাবারের ব্যবস্থা করে থাকি।

নির্যাতনকারী মিম্মা

নির্যাতনকারী মিম্মা

ম্যাডাম মিম্মা’র বাসার পাশের লোকজনের সাথে কথা বললে প্রতিবেশীরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান,মেয়েটিকে করনে অকারনে প্রায মারধর করে থাকে। শুধু মারধর করেই ক্ষান্ত হয়না। সে মাঝে মধ্যে ছোট ওই শিশুটিকে খাবার বঞ্চিত করে রাখে। স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দা বুশরাকে নির্যাতন না করতে মিম্মাকে বেশ কয়েকবার নিশেধ করার পরেও সে এ কাজটি করে থাকে।
এদিকে অভিযুক্ত মিম্মা সুলতান জানান, বুশরাকে আমি কাজের মেয়ে হিসেবে তার বাবা মায়ের কাছ থেকে নিয়ে এসেছি। সে অনেক অপরাধ করে থাকে। তাই তাকে নির্যাতন নয়, শাসন করা হয়।
মেহেরপুর পুলিশ সুপার হামিদুল আলম জানান, গাংনী থানার ওসি রিয়াজুল ইসলামকে খোঁজ খবর নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য  নির্দেশ দিয়েছেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.