Templates by BIGtheme NET
Home / নির্বাচন / পুনরায় ভোটগণনার দাবিতে বিএনপির সংবাদ সম্মেলন

পুনরায় ভোটগণনার দাবিতে বিএনপির সংবাদ সম্মেলন

মেহেরপুর নিউজ,৩০ এপ্রিল:
মেহেরপুর পৌর নির্বাচনে ভোটডাকাতি করা হয়েছে দাবি করে সংবাদ সম্মেলন করেছে মেহেরপুর পৌর নির্বাচনের বিএনপি মনোনিত প্রার্থী জাহাঙ্গীর বিশ্বাস। অনুষ্ঠিত হওয়া ১৩টি কেন্দ্রের ব্যালট পেপার পুনরায় যাচাই বাছাই করে ভোট গণণা করার দাবি জানান হয় সংবাদ সম্মেলনে।
রবিবার দুপুর ১২টার দিকে মেহেরপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে বিএনপির প্রার্থীর পক্ষে সংবাদ সম্মেলনে অনুষ্ঠিত হয়।
সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ লিখিত অভিযোগ করেন জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক এমপি মাসুদ অরুণ। এতে মেয়র প্রার্থী জাহাঙ্গীর বিশ্বাস, জেলা বিএনপির সহসভাপতি ও প্রার্থীর প্রধান এজেন্ট আব্দুর রহমান, সহসভাপতি শেখ সাইদ আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রশিদ উপস্থিত ছিলেন।
মাসুদ অরুণ বলেন, নির্বাচনের আগের রাতেই বিভিন্ন কেন্দ্রে ব্যালট ছিনতাই করে একটি বিশেষ প্রতীকে সিল মারা হয়েছে। যে কারণে ২৫ এপ্রিল নির্বাচনে ৭ নম্বর ওয়ার্ডের ১১ ও ১২ নম্বর কেন্দ্রে যখন ভোটারদের ব্যালট পেপার সরবরাহ করতে পারেননি তখন প্রিসাইডিং অফিসাররা ওই কেন্দ্র দুটি ভোটগ্রহণ স্থগিত করে দেন।
মাসুদ অরুণ অভিযোগ করে বলেন, মধ্যরাত্রীতে ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটলেও কেন এখন পর্যন্ত ( রবিবার দুপুর) একটি জিডি বা মামলা করা হলো না। তিনি প্রশ্ন করে বলেন, এমনকি ছিনতাইকৃত ব্যালট পেপার উদ্ধারে আইনশৃক্সখলা বাহিনী কোন উদ্ধার অভিযান চালালো না? ব্যালট পেপরা ছিনতাইকারীদের কেন আটক করা হলো না? অথচ প্রকৃত ঘটনা গোপন করে প্রিসাইডিং অফিসাররা সকাল ৮টার সময় ঠিকই ভোটগ্রহণ শুরু করলেন। যা অত্যন্ত হতাশাজনক। যার প্রমান হয় সকাল ১০টার দিকে ভোটাররা লাইন ধরে ভোট দিতে এসেছিলেন। সে সময় ব্যালট পেপার সরবরাহ করতে পারেননি তাই ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। এছাড়া অধিকাংশ কেন্দ্রে একই ঘটনা ঘটলেও তা অন্ধকারেই থেকে গেছে।
মাসুদ অরুণ আরো বলেন, একজন ভোটার ছাড়া নির্বাচনী কেন্দ্রে আর কেউ কারো প্রবেশ করা ঠিক নয়। অথচ সাবেক সংসদ সদস্য জয়নাল আবেদীন ও প্রফেসর আব্দুল মান্নান, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম রসুল এই তিন জন দায়িত্বশীল ব্যাক্তি কেন্দ্রে কেন্দ্রে গিয়ে আচরণ বিধি লক্সঘন কওে ভোটারদেও নৌকা প্রতীকে সিল মারতে বাধ্য করেছেন। নির্বাচনে একটি প্রার্থী ২টি গাড়ি ব্যবহার করার অনুমতি পেলেও আ.লীগ দলীয় প্রার্থীর পক্ষে ৭টি গাড়ি ব্যবহার করা হয়েছে। যে কারণে প্রতিটি কেন্দ্রের ব্যালট পেপার যাচাই বাছাই করে পুনরায় ভোটগণনার দাবি করছি। প্রয়োজনে আমরা আইনি লড়াই চালিয়ে যাব।
মাসুদ অরুন বলেন, যেহেতু ১১ ও ১২ নম্বর কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ পুনরায় অনুষ্ঠিত হবে। সেক্ষেত্রে জেলা বিএনপির পক্ষ থেকে সাত দফা দাবি তুলে ধরেণ তিনি। দাবিগুলো হচ্ছে- ১১ ও ১২ নম্বর কেন্দ্রের ব্যালট পেপার ছিনতাইকারীদের গ্রেফতার, ওই দুটি কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসারের বিরুদ্ধে শাস্তিমুলক ব্যবস্থা গহণ, পৌর এলাকার সকল বৈধ অস্ত্র নির্বাচনকালীন সময় পর্যন্ত জমা রাখা, নির্বাচনের ৪৮ ঘন্টা পূর্বে থেকে বহিরাগতদের ওই এলাকায় থাকতে না দেওয়া, প্রশাসনের সর্বোচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে ভোটগ্রণের পরিবেশ তৈরি করা, দলনিরপেক্ষ পিসাইডিং অফিসার ও পোলিং অফিসার নিয়োগ দেওয়া, ভোটাররা যাতে নির্বিঘেœ ভোট কেন্দ্রে আসতে পারে তার পরিবেশ তৈরি করা।
মেয়র প্রার্থী জাহাঙ্গীর বিশ্বাস বলেন, অধিকাংশ কেন্দ্রে আমার এজেন্টদের হুমকি ধামকি দিয়ে ভিত করে রাখা হয়েছিল। ফলে তার জীবননাশের ভয়ে কেন্দ্রে মুখ খুলতে পারেননি।
জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সাবেক দুইজন এমপির ভোট কেন্দ্র পরিদর্শনের নামে কিছু উৎসাহী পুলিশ কর্মকর্তাদের সহযোগীতায় উপস্থিত ভোটারদের প্রকাশ্যে নৌকা প্রতীকে সিল মারাতে বাধ্য করার অভিযোগ করেন তিনি।
তিনি অভিযোগ করে বলেন, প্রিসাইডিং কর্মকর্তাদের লিখিত অভিযোগের মাধ্যমে জানা গেছে, ১১ ও ১২ নম্বর কেন্দ্রে ১৩৭৫টি সিল ছিনতাই করে মারা হয়েছে । একই ভাবে ৬ নম্বর কেন্দ্রে তারা সিল মারতে গেলেও প্রিসাইডিং অফিসারের কঠোর ভুমিকার কারণে সন্ত্রাসিরা সিল মারতে পারেননি।
প্রসঙ্গত, গত ২৫ এপ্রিল মেহেরপুর পৌরসভার সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের অভিযোগ তুলে ১১ ও ১২ নম্বর কেন্দ্র দুটি ভোটগ্রহণ স্থগিত করেন প্রিসাইডিং অফিসাররা। বাকি ১৩টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। ওই ১৩টি কেন্দ্রে আ.লীগ প্রার্থী মাহফুজুর রহমান রিটন ভোট পান ,৯২০৯, বিএনপি প্রার্থী জাহাঙ্গীর বিশ্বাস ভোট পেয়েছেন ৭,৮৪১ ।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful