Templates by BIGtheme NET
Home / ইতিহাস ও ঐতিহ্য / পৃথিবীর সৌন্দর্যের অন্যতম প্রতীক সুন্দরবন ঘুরে এলো মেহেরপুরের সাংবাদিকরা

পৃথিবীর সৌন্দর্যের অন্যতম প্রতীক সুন্দরবন ঘুরে এলো মেহেরপুরের সাংবাদিকরা

সামাদুল ইসলাম
বাংলাদেশের মোট আয়তনের ছয়ভাগের একভাগ জুড়ে সুন্দরবন । সৌন্দর্যের নীলাভুমি এই সুন্দরবনে মেহেরপুরের সাংবাদিকরা পিকনিকে গিয়েছিলেন ৪ মার্চ ২০১০ তারিখে। বিকাল সাড়ে তিনটায় মেহেরপুর প্রেসক্লাব চত্বর থেকে সুন্দরবনে পিকনিকের উদ্দেশ্যে শরণখোলার পথে যাএা শুরু করে । রাস্তায় অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে রাত ১১টায় শরণখোলার সদর দপ্তর রায়েন্দা থানায় উপস্থিত হন মেহেরপুরের একঝাক সাংবাদিক । থানার ওসি নিজামউদ্দিন হাওলাদার ও এএসপি ( প্রবি) শিপলু মেহেরপুরের সাংবাদিকদের উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান । রাতে খাওয়াদাওয়া সেরে ডাকবাংলো ও বিভিন্ন হোটেলে সাংবাদিকদের থাকার ব্যবস্থা করা হয় । ৫ মার্চ সকাল ৬টায় রায়েন্দা ষ্টীমার ঘাট থেকে লঞ্চে সুন্দরবন দেখার উদ্দেশ্যে কটকায় রওনা হয়। পথিমধ্যে সুন্দরবন শরনখোলার রেঞ্জের দুজন ফরেস্ট গার্ডকে নিরাপত্তার সাথে নেয়া হয়। সাংবাদিকদের সাথে যোগ দেন বাগেরহাট জেলার এ এস পি শিপলু, শরণখোলা থানার ওসি নিজামদ্দিন হাওলাদার সহ ৮ জন সশস্ত্র পুলিশ সদস্য। বেলা সাড়ে ৩ টার দিকে কটকা সুন্দরবন এলাকায় পৌছে সিডরের তান্ডবে লন্ডভন্ড সুন্দরবনকে দেখা যায়। সিডরে কোটি কোটি টাকার গাছ, রেঞ্জারের অফিস মাটির সাথে মিশে গেছে । কটকা পুলিশী নিরাপত্তায় ঘুরে দেখেন সাংবাদিকরা। হাতে করে পাতা খাওয়ান একঝাক হরিণকে। গাংচিল,বক সহ নানাধরনের পাখি দেখে মুদ্ধ সাংবাদিকরা। বিকেলে বাঘ টাওয়ারে উঠে কোন হরিণ বা বাঘের দেখা না পাওয়া গেলেও সন্ধার পুর্ব মুহুর্তে পাল পাল হরিণ চোখে পড়ে। কটকা সুন্দরবন স্টেশনের স্টেশন অফিসার আবুল কালাম আজাদ সাংবাদিকদের বলেন, সুন্দরবনে ৪ শর উপরে বাঘ রয়েছে। হরিণ রয়েছে ৬ হাজারের ওপরে। সুন্দরবনের নামকরণ সম্পর্কে বলেন, সমুদ্রের উপকুলীয় বন বলে সমুদ্র বন থেকে শব্দটি অপভ্রংশ হয়ে সুন্দরবন নাম হয়েছে। আবার অনেকের মতে এ বনে সুন্দরী গাছের সংখ্যা বেশী বলে এ বনের নাম সুন্দর বন হয়েছে। আবার অনেকে এ বন দেখতে সুন্দর বলে সুন্দরবন হয়েছে বলে তিনি জানান। এ বনে ৩শ প্রজাতির গাছ রয়েছে। এর মধ্যে সুন্দরী, গড়াই,কেয়া, গজারী,শালগাছের সংখ্যা্‌ অধিক। নদীর দুকুলে ভরে আছে গোলপাতা। এ গোলপাতা কেটে এলাকার লোকজন নৌকা বোঝাই করে নিয়ে যাচ্ছে। এ থেকে সরকারে রাজস্ব আয় হচ্ছে। টুরিস্টদের কাছ থেকেও সরকার পাচ্ছে রাজস্ব| প্রতিজনের কাছ থেকে সুন্দরবন দর্শনের জন্য নেয়া হয় ৫০ টাকা। লঞ্চ স্টিমারের জন্য ৪ শ টাকা থেকে শুরু করে ১৩শ টাকা পর্যন্ত নোঙ্গরকর নেয়া হয়। এতে সরকারে কোটি কোটি টাকা আয় হয়। সরকার সুন্দরবনকে পর্যটকদের উপযোগী করে তুললে বছরে কয়েকশ কোটি টাকা আয় হবে বলে বন কর্মকর্তাদের অভিমত। সারাদিন ঘুরে ঘুরে সুন্দরবন দেখার পরে সন্ধ্যা সাড়ে ৫টার দিকে কটকা থেকে মেহেরপুরের সাংবাদিকরা রওনা হয়। রাত দেড়টায় শরণখোলা স্টিমার ঘাটে এসে পৌছায়। রাত তিনটায় শরণখোলা ত্যাগ করে মেহেরপুরের উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে সকাল ১১টায় মেহেরপুরে এসে পৌছায়। মেহেরপুরের প্রেসক্লাবের সভাপতি আলামিন হোসেন, সাধারন সম্পাদক পলাশ খন্দকারের নেতৃত্বে এ দলে ছিলেন মিজানুর রহমান, তুহিন আরন্য, গোলাম মোস্তফা, সামাদুল ইসলাম, ,আবু লায়েছ লাবলু, আইনুল হক,ইয়াদুল মোমিন, মাহবুবুল হক পোলেন, মামুনুর রশিদ, মেহের আমজাদ, মহাসিন আলী, ফারুক মলি¬ক, ক্যামেরাম্যান ডিকেন। এ পিকনিকে মেহেরপুরের সাংবাদিকরা প্রকৃতি থেকে জ্ঞান সঞ্চয় করে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful