Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / প্রতিবন্ধী সন্তান নিয়ে অসহায় পিতা-মাতা

প্রতিবন্ধী সন্তান নিয়ে অসহায় পিতা-মাতা

ফারুক আহমেদ, ১২ আগষ্ট:
প্রতিবন্ধী ছেলেকে দুমুঠো খাবার ও চিকিৎসা সেবার ব্যবস্থা করতে পারেন এক অসহায় দম্পতি । শনিবার সাংবাদিকদের সামনে তাদের এই অসহায়ত্বের কথা বলতে গিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন খালেদ হোসেন (১১) নামের এক প্রতিবন্ধীর মা ফেরদৌসি খাতুন। মানষিক প্রতিবন্ধী খালেদ হোসেন গাংনী উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের হানিফ আলীর ছেলে।
প্রতিবন্ধী থালেদ হোসেনের মা ফেরদৌসি খাতুন জানান, মানষিক প্রতিবন্ধী একমাত্র ছেলেকে নিয়ে তিনি অথই সাগরে ভাসছেন তিনি। অর্থ অভাবে চিকিৎসা করাতে পারছেন না। আবার সময় মত দুমুঠো ভাতও দিতে পারছেন না ছেলেকে। অভাব অনটনের সংসার হওয়ায় ঠিকমত সংসার চালাতে পারিনা তারপর ছেলের চিকিৎসা করা অসম্ভব। যা টাকা পয়সা ছিলো সেগুলো ছেলের চিকিৎসা করতে শেষ হয়ে গেছে। তিনি আরো জানান,ছেলেকে সামলাতে না পেরে পায়ে শিকলবন্ধী করে রাখা হয়েছে। শিকল দিয়ে বেধে না রাখলে হারিয়ে যায়। প্রতিবেশিদের মারধর করে। ছেলেকে টানতে টানতে নিজের সকল স¤^ল শেষ হয়েছে। নিজেও হয়েছি রুগী। কখনও অনাহারে কখনও অর্ধাহারে থেকে জীবন যাপন করছি। প্রতিবন্ধী খালেদের পিতা হানিফ আলী জানান,মে¤^র চেয়াম্যানের কাছে ধরনা ধরেও ছেলের জন্য একটি প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড পাইনী। যেভাবে সংসার চলছে এভাবে চলতে থাকলে কোন একদিন আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়ে হবে। দিনমুজুরের কাজ করে না পারি সংসার চালাতে না পারি ছেলের চিকিৎসা করাতে।
স্থানীয়রা জানান, প্রতিবন্ধী খালেদকে নিয়ে তার পরিবার বড় অসহায় হয়ে পড়েছে। চিকিৎসা সেবা করানোর মত অর্থ নেই। দিনমুজুরের কাজ করে যা অর্থ আয় করে তার বাবা তা দিয়ে কোন রকম দিন চলে যায়। এ বিষয়ে কথা বলতে কাজিপুর ইউপি চেয়ারম্যান রাহাতুল্লাহর মোবাইল ফোনে কল দিলে বন্ধ পাওয়া যায়। গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা: মাহবুবুর রহমান বলেন,প্রতিবন্ধী খালেদকে নিয়ে হাসপাতালে নিয়ে আসলে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা দেয়া হবে।
গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মো: দেলোয়ার হোসেন জানান,প্রতিবন্ধীর পরিবারে আবেদন করলে সমাজ সেবা অধিদপ্তরের মাধ্যমে প্রতিবন্ধী ভাতা কার্ডের ব্যবস্থা করে দেয়া হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.