Templates by BIGtheme NET
Home / অন্যান্য / প্রধানমন্ত্রীর কাছে মেহেরপুর পৌর মেয়রের আবেদন

প্রধানমন্ত্রীর কাছে মেহেরপুর পৌর মেয়রের আবেদন

603764_1427017857594626_3581474020297599249_n-horzমেহেরপুর নিউজ, ১৪ জুলাই:
সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ মুক্ত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় প্রধানমন্ত্রীর অকুতভয় জীবনীশক্তি, দৃঢচেতা মনোভাব ও মনোবল, সু-কঠিন সিদ্ধান্তগ্রহন ও তার বাস্তবায়ন এবং বিশ্বব্যাপী বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্করক্ষার কারণে দেশ যে কোন সময়ের চেয়ে ভাল আছে উল্লেখ করে মেহেরপুর পৌরসভার পক্ষ থেকে ৫টি দাবি করে প্রধানমন্ত্রীর নিকট আবেদন করেছেন
মিউনিসিপ্যাল এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ম্যাব) এর সিনিয়র সহ-সভাপতি
মেহেরপুর পৌর মেয়র মোতাচ্ছিম বিল্লাহ মতু। আজ বৃহস্পতিবার তিনি ডাকযোগে আবেদনপত্রটি প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে পাঠিয়েছেন।
প্রধানমন্ত্রীর কাছে করা সেই আবেদনের হুবহু তুলে ধরা হলো মেহেরপুর নিউজের পাঠকদের জন্য।
প্রধানমন্ত্রীর কাছে পৌর মেয়র আবেদন
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী-
দেশকে যুদ্ধাপরাধী কলঙ্কমুক্ত করে সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ মুক্ত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় আপনার অকুতভয় জীবনীশক্তি, দৃঢচেতা মনোভাব ও মনোবল, সু-কঠিন সিদ্ধান্তগ্রহন ও তার বাস্তবায়ন এবং বিশ্বব্যাপী বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্করক্ষার কারণে আজ আমরা অন্য যে কোন সময়ের চাইতে অনেক ভাল আছি। তাই ঐতিহাসিক মুজিবনগর কেন্দ্রীক মেহেরপুর পৌরসভার পক্ষ থেকে আপনাকে জানাই অন্তরের অন্তস্থল থেকে মুজিবীয় সালাম ও শুভেচ্ছা।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী
সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদমুক্ত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা সহ মুক্তিযুদ্ধের এবং স্বাধীনতার সুতিকাগার ঐতিহাসিক মুজিবনগরের ঐতিহাসিক গুরুত্বকে সমুন্নত রাখতে মেহেরপুর পৌরসভার পক্ষ থেকে ৫টি গুরুত্বপূর্ণ ও দীর্ঘদিনের পঞ্জিভূত দাবী আপনার রবারর তুলে ধরছি –

১। স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন, ২০০৯ এর পঞ্চম তফসিল অনুযায়ী “পৌর পুলিশিং কার্যক্রম” আইন বাস্তবায়ন করা-
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
আজ সময়ের বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ। আপনার কঠোর পদক্ষেপে সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ গোষ্টি আজ মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে পারছে না। এই প্রশ্নে সারাদেশের পৌর মেয়ররা সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ মুক্ত বাংলাদেশের প্রতিটি শহর প্রতিষ্ঠায় আপনার সাথে একাট্টা হয়ে কাজ করতে চায়। সেই ক্ষেত্রে প্রয়োজন স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন, ২০০৯ অনুযায়ী “পৌর পুলিশিং কার্যক্রম” আইন দ্রুত বাস্তবায়ন করা। এই আইনটি বাস্তবায়ন আজ সময়ের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। আইনটি বাস্তবায়নে আপনার তড়িৎ অনুমতি ও নির্দেশনা পেলে জনগণকে সাথে নিয়ে দেশের প্রতিটি শহরে নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা সম্ভব। তখন খুব সহজেই জঙ্গী সন্ত্রাসীদের অবস্থান চিহ্নিত ও সনাক্তকরণ সহ তাদের আইনে সোপর্দ করা এবং দমন করা সম্ভব হবে।

২। সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদমুক্ত ঐতিহাসিক মুজিবনগর কেন্দ্রীক মেহেরপুর পৌরসভা স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনকে সাথে নিয়ে সিসি ক্যামেরা আচ্ছাদিত “নিরাপদ মেহেরপুর মড়েল শহর” গড়তে চাই-
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
আপনার অনুমতি ও সহযোগীতা সাপেক্ষে মেহেরপুর পৌর শহরের ১৭ কি:মি: বর্গ এলাকা উচ্চ প্রযুক্তি সম্পন্ন সিসি ক্যামেরার আওতায় নেওয়ার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের নির্দেশনা ও পরামর্শ অনুযায়ী যৌথভাবে এই কাজ শেষ হলে মেহেরপুর পৌর এলাকার সমস্ত মানুষকে সার্বক্ষনিক নিবিড় পর্যবেক্ষনের মধ্যে নেওয়া সম্ভব হবে। এর মাধ্যমে মেহেরপুর পৌরসভা প্রথম নাগরিক নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠা করে আবারও দেশের সমস্ত পৌরসভার মধ্যে মডেল পৌরসভা হিসাবে আপনার পাশে থাকতে চাই। এ কাজে দেশীবিদেশী অসংখ্য প্রতিষ্ঠান ও দাতাসংস্থা অংশীদারিত্ব মূলক ভূমিকা রাখতে চায়। তাদের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণমূলক আপনার নির্দেশপত্র গেলে দ্রুততম সময়ের মধ্যে এই দাবী বাস্তবায়ন সহ মেহেরপুর পৌরসভার মত সমস্ত পৌরশহরকে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলা সম্ভব।

৩। স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহাসিক গুরুত্বকে সমুন্নত রাখতে প্রতিবছর মন্ত্রীপরিষদের এক বা একাধিক গুরুত্বপূর্ণ সভা ঐতিহাসিক মুজিবনগরে আয়োজন করা-
একথা অনস্বীকার্য্য সত্য যে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নেতৃত্ব না দিলে যেমন বাংলাদেশ স্বাধীন হতো না, তেমনি ঐতিহাসিক মুজিবনগরের জন্ম না হলে বিশ্বমানচিত্রে বাংলাদেশের নাম স্থান পেত না। দেশের প্রথম মন্ত্রীপরিষদের শপথ হয়েছিল মুজিবনগরে। সেই ঐতিহাসিক গুরুত্বকে সমুন্নত রাখতে এবং নতুন প্রজন্মকে স্বাধীনতা ও দেশপ্রেমে উজ্জীবিত করতে মহান জাতীয় সংসদে বিল অনুমোদন সাপেক্ষে প্রতিবছরে মন্ত্রীপরিষদের এক বা একাধিক গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক ঐতিহাসিক মুজিবনগরের করার দাবী জানাচ্ছি।

৪। ঐতিহাসিক মুজিবনগরের নামে “মেহেরপুরে শুল্ক ও স্থলবন্দর” স্থাপন করে জাতীয় ও আন্তজার্তিক পর্যায়ে মুজিবনগরের ইতিহাসকে তুলে ধরতে হবে-
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
দেশের ৯ মাসের স্বাধীনতাযুদ্ধ পরিচালনা করেছিলো মুজিবনগর সরকার। দেশের স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র পাঠ, মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক নিযুক্ত, মন্ত্রীপরিষদের শপথ সবই হয়েছিল মুজিবনগরে। সেদিন মুজিবনগরকে দেশের প্রথম রাজধানী হিসাবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছিল। তাই মুজিবনগরের নামে মেহেরপুর জেলায় শুল্ক ও স্থলবন্দর স্থাপন করা হলে বন্ধু রাষ্ট্রের সাথে আমদানি রপ্তানীকাজে সাফল্য সহ জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক পর্যায়ে ঐতিহাসিক মুজিবগরের গুরুত্ব ও ইতিহাসকে তুলে ধরা সম্ভব হবে।

৫। সর্বশেষ, মুজিবনগর রেলসংযোগ কাজ সম্প্রসারণ করে মেহেরপুর জেলাকে রেলপথের আওতায় নেওয়া-
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
সারাদেশে উল্লেখ করার মত অসংখ্য মৌলিক উন্নয়ন হয়েছে আপনার সরকারের সময়ে। সেই ক্ষেত্রে পিছিয়ে নেই মেহেরপুরও। দীর্ঘদিনের পঞ্জীভূত দাবী “মুজিবনগর রেলপথ স্থাপনের” কাজ এই বছরেই শুরু হচ্ছে জেনে আমরা খুবই আনন্দিত। তবে, চুয়াডাঙ্গা দর্শনা থেকে মুজিবনগর এই ¯^ল্প কিলোমিটার রেলপথের এই নতুন সংযোগ লাইনটি সম্প্রসারন করে লাইনটি দর্শনা হয়ে মুজিবনগর হয়ে মেহেরপুরের শহর স্পর্শ করে কুষ্টিয়ার সাথে সংযোগে আপনার অনুমতি পেলে দেশীবিদেশী দর্শনার্থী পর্যটক ঐতিহাসিক এই অঞ্চল সহজেই ভ্রমন করতে পারবে। ফলে- রেলপথে প্রতিদিন অসংখ্য দর্শনার্থী ও পর্যটক ঐতিহাসিক মুজিবনগর, রবীন্দ্রনাথের কুঠিবাড়িবাড়ি, মরমী কবি লালনের আখড়া, কবি মীর মোশারফ হোসেনের বাড়ি, ইংরেজদের দু:শাসনের বিভিন্ন স্থাপনা সহ মেহেরপুর ও কুষ্টিয়ার ঐতিহাসিক ও ইতিহাস খ্যাত দর্শনীয় স্থানসমূহ ভ্রমন করা সহজ হবে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী-
দেশের মানুষের চাওয়া পাওয়ার একমাত্র ভরসাস্থল আপনি। তাই সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদমুক্ত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী গণমানুষের পক্ষে আপনার কাছে মেহেরপুর পৌরসভা এই ৫ টি প্রধান দাবী উত্থাপন ও সেগুলো দ্রুত বাস্তবায়নে আপনার দ্রুত হস্তক্ষেপ এবং নির্দেশনা কামনা করছে। আপনি দীর্ঘজীবি হন। আপনার সুস্বাস্থ্য ও মঙ্গল কামনা করছি।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful